চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

যেসব কারণে ঐক্যফ্রন্টের শোচনীয় পরাজয়

বিএনপি নেতারা শুধুমাত্র কারচুপির অভিযোগ করে যতই আত্মতৃপ্তিতে ভোগেন না কেন নির্বাচনে ‘বাংলাওয়াশ’ হওয়ার পেছনে তাদের নিজেদের ব্যর্থতাই ছিলো সবচেয়ে বড় ফ্যাক্টর। ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং প্রত্যেকটি সেক্টরেই they were simply outplayed. শুরু থেকেই এই নির্বাচনকে তারা সিরিয়াসলি ‘ভোটযুদ্ধ’ হিসেবে নেননি। তাদের মনোনীত প্রার্থীদের গা ছাড়া ভাব নেতাকর্মীদের মাঝে পারেনি কোনো উদ্দীপনা সৃষ্টি করতে। এছাড়া কাজ করেছে আরো কিছু অবিমৃষ্যকারী সিদ্ধান্ত নেয়ার বোকামীটুকুও। যেমন- ১. জামায়াত নির্ভরশীলতা দেশজুড়ে অসংখ্যবার আলোচনা সমালোচনার মুখোমুখি…

ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের আমলনামা

১. একাত্তর টিভিতে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের মাসুদা ভাট্টি আপাকে নিয়ে অশ্লীল কটূক্তি। ফলশ্রুতিতে দেশজুড়ে অনলাইনে অফলাইনে নিন্দার ঝড়। মাঝখানে তসলিমা ম্যাডামের পুরনো ক্ষোভের উদগীরণ। যার ফলে আবারো বিভক্তি। পরিশেষে মইনুল সাবের "রেহনা পারেগা সেন্ট্রাল জেলে" সংগীত পরিবেশন এর মাধ্যমে সার্কাসের যবনিকাপত। What a show indeed!!! ২. হঠাৎই এদেশের রাজনীতির রঙ্গমঞ্চে আবির্ভাব "যুক্তফ্রন্ট " নামের ডঃ কামাল স্যারের নেতৃত্বে আরেকটি কমেডি ক্লাবের। আর মূলত: এই "কমেডি ক্লাব" টিকে নিয়েই আমার এই যৎকিঞ্চিত অরণ্যে রোদনের প্রচেষ্টা। প্রথমেই আসি…

নদী ও নারীর প্রতি সেই সুর ফের শোনা গেল হালদা’য়

‘তোমার কোন বাধন নাই, তুমি ঘরছাড়া যে তাই, এই আছো ভাটায় আবার এইতো দেখি জোয়ারে।’ একদিন বাংলাগানের কিংবদন্তী হেমন্ত মুখোপাধ্যায় এভাবেই নিবেদন করেছিলেন তার প্রিয় নদীটির প্রতি হৃদয়ের সুষুপ্ত ভালোবাসার শ্রদ্ধার্ঘ্য “নীল আকাশের নীচে” (নায়করাজ রাজ্জাক অভিনীতটি নয়) ছবিতে। আর নদী ও নারীর প্রতি সেই সুরের সিম্ফনি ফের শোনা গেলো তৌকির আহমেদ এর শিল্পীত চিত্রায়ণে সেলুলয়েডের ফিতায়। হুম, ঠিকই ধরেছেন, তৌকির আহমেদের “হালদা”র কথাই লিখতে বসলাম। অভিনেতা তৌকির আমার কাছে যতটা প্রিয় ছিলেন এবং আছেন, পরিচালক তৌকির তার চেয়ে অনেক বেশী মুগ্ধতার সৃষ্টি…

৭ নভেম্বর নিয়ে জাসদের বিভ্রান্ত বিপ্লবের জটিল সমীকরণ

আর কদিন পরেই ৭ই নভেম্বর। এ দেশের ইতিহাসের কলঙ্কজনক একটি দিন। বিপথগামী সেনা সদস্যদের হাতে সেদিন নির্মমভাবে নিহত হত মুক্তিযুদ্ধের তিন কিংবদন্তী মুক্তিযোদ্ধা।  “কে” ফোর্সের খালেদ মোশাররফ, ক্র্যাক প্লাটুনের স্বপ্নদ্রষ্টা মেজর হায়দার, আর আগড়তলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামী কর্নেল হুদা। দশম বেঙ্গল রেজিমেন্টের সদর দপ্তরে অবস্থানকালে সকালে তাদের একেবারে কাছ থেকে গুলি করে হত্যা করে দুজন কোম্পনি কমান্ডার আসাদ এবং জলিল। যারা ছিলো কর্নেল তাহেরের “বিপ্লবী সৈনিক সংস্থা” র সদস্য। শুধু এই তিনজনকেই নয়, সাংবাদিক অ্যান্থনি ম্যাসকারেনহ্যাস এ ব্যাপারে…

ধর্ষণের মহামারী

ধর্ষণ আজ এক মহামারীর নাম বাংলাদেশের আনাচে-কানাচে। ৬ বছরের শিশু থেকে শুরু করে ৬০ বছরের বৃদ্ধাও রেহাই পাচ্ছেন না ধর্ষণের হাত থেকে। নিজের জন্মদাতা পিতা, সৎ পিতা, শিক্ষক, নিকটাত্মীয় কারো হাত থেকে রেহাই পাচ্ছেন না ভিকটিমরা। কর্মক্ষেত্রে, চলন্ত বাসে, এমনকি নিজের ঘরে পর্যন্ত নেই নিরাপত্তা। এ যেন এক অন্তবিহীন ঘূর্ণিঝড়ের করাল থাবা। অতৃপ্ত যৌন আকাঙ্খা, দেয়ালে নগ্ন পোস্টার, যৌন উত্তেজক অবৈধ বইয়ের রমরমা ব্যবসা, অশ্লীল পত্রপত্রিকা, অশ্লীল ছায়াছবি প্রদর্শন, ব্লু-ফিল্ম, পর্নোগ্রাফি, চলচ্চিত্রে নারীকে ধর্ষণের দৃশ্যের মাধ্যমে সমাজে…

যার ডাকে গড়ে উঠেছিল দুর্গ

"আমি হিমালয় দেখিনি। শেখ মুজিবকে দেখেছি" বলেছিলেন কিউবার বিপ্লবী নেতা ফিদেল কাস্ত্রো। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শারীরিক ভাবেও ছিলেন বিশালাকায় । গড় বাঙালিদের চেয়ে ছিলেন বেশী উচ্চতার। আর তাঁর প্রবল ব্যক্তিত্ব ছিল হিমালয়ের চেয়েও বিশাল। যে ব্যক্তিত্বের সামনে মাথা নত করতে হয়েছিল প্রবল প্রতাপশালী পাক জেনারেলদের। এমনকি ১৫ আগস্ট যখন হত্যার উদ্দেশ্যে তাঁর ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে হামলা চালানো হয় , সেদিন প্রথম তাঁর মুখোমুখি হওয়া মেজর মহিউদ্দিনকে বলেছিলেন, --- কি চাস তোরা? কোথায় নিয়ে যেতে চাস আমাকে? তখন মহিউদ্দিন তাঁর চোখের দিকে সরাসরি…

বাম ঐক্য: আরেকটি রাজনৈতিক কমেডি?

দেশের রাজনীতিতে দ্বি-দলীয় বলয়ের বাইরে গিয়ে "মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন পূরণ " করার ডাক দিয়েছে কিছু বাম সংগঠন। ভালো কথা। অবশ্যই সাধুবাদ পাওয়ার যোগ্য। দ্বি-দলীয় শাসনব্যবস্থার বাইরে বিকল্প শক্তি গড়ে তোলার নামে আরো কয়েকটি জোট গঠনের চেষ্টা আমরা অতীতেও দেখেছি। দেখেছি "বাম গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট " "বিকল্প ধারা, “এলডিপি” , নাগরিক ঐক্য গণফোরাম জোট" "জাতীয় পার্টি আর চরমোনাইয়ের জোট" "ওয়ান ইলেভেনের কিংস পার্টি" আরো অনেক কিছু। কিন্তু এসব জোট রাজনৈতিকভাবে পরিবর্তন আনতে ব্যর্থ হয়। উপরন্তু এর কোনো কোন নেতা অবতীর্ণ হন স্রেফ পলিটিক্যাল কমেডিয়ান…

ভোটের রাজনীতির হিসাব মেলাতে ভাস্কর্য অপসারণ

সুন্দরের প্রতি অসুন্দরের ক্ষোভ যুগ যুগ ধরে চলে এসেছে। হালাকু খানের বাগদাদ লাইব্রেরির ধ্বংসযজ্ঞ, আফগানিস্তানে তালেবানদের বামিয়ানের মূর্তি উড়িয়ে দেয়া, সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেট জঙ্গিদের বিভিন্ন শিল্পকর্ম-মঠ মন্দিরের ধ্বংসলীলা একইসূত্রে গাঁথা। আর এখানে খড়গ বয়ে নিয়ে এসেছে হেফাজত। ইতিহাস শুধুই ফিরে ফিরে আসে। ধর্মীয় অনুভূতির জুজু তুলে সুপ্রিম কোর্টের সামনে স্থাপিত ভাষ্কর্যটি নিয়ে সারা দেশে উন্মত্ততা ছড়িয়ে দিয়েছিল তারা। আর তাদেরকে খুশি রাখতে সেকুলার রাজনীতির ধ্বজাধারী আওয়ামী লীগ সরকার এক প্রকার নতজানু হয়েই রাতের অন্ধকারে সুপ্রিম…

জঙ্গিবাদের উৎস ও শক্তি

ভয়াবহ জঙ্গি আতঙ্কে আতঙ্কিত সারাদেশ। চট্টগ্রাম, সিলেট, কুমিল্লা, টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া সর্বত্র বিরাজ করছে চাপা আতঙ্ক। প্রতি মূহূর্তে আশংকা নতুন কোনো রক্তাক্ত ম্যাসাকারের প্রত্যক্ষদর্শী হওয়ার। কিন্তু কি এই জঙ্গিবাদ? কিভাবে তা ঘাঁটি গেড়ে বসেছে আমাদের মাতৃভূমির মাটিতে? ছড়িয়ে পড়েছে ভাইরাসের মত এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে। কোল্ড ওয়ারের সময়ে সোভিয়েত ব্যাকড আফগান কমিউনিস্টপন্থী নজিবুল্লাহ সরকার মার্কিনীদের যথেষ্ট মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। বিভিন্নভাবে তাকে উৎখাতের জন্য একের পরে এক প্রচেষ্টা যখন ব্যর্থ হয়, তখন সিআইএ ব্যবহার করে…

সুপ্রিম কোর্টে ‘লেডি জাস্টিস’ এর ভাস্কর্য ও হেফাজতে ইসলাম

সাম্প্রতিক সময়ে হঠাৎ করেই সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে ন্যায়পরায়ণতার প্রতীক হিসেবে বিবেচিত ‘গ্রিক দেবী’ থেমিসের ভাস্কর্যটি অপসারণের দাবী তুলেছে হেফাজতে ইসলাম। কারণ হিসেবে তারা দেখিয়েছে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত লাগার কথা। বিশ্বে কোডিফাইড আইনের গোড়াপত্তন ঘটে প্রথম রোমান আমলে। রোমান সম্রাটদের পৃষ্ঠপোষকতায় প্রভূত উন্নতি ঘটে বিশ্বের আইনশাস্ত্রের। মহান রোমান সম্রাট জাস্টিনিয়ান এবং কনস্টানটাইনের ভূমিকা এক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য। রোমানদের কাছে ‘লেডি জাস্টিস’ বিবেচিত হতেন ন্যায়পরায়ণতার দেবী হিসেবে। আর এই লেডি জাস্টিসই ছিলেন গ্রিক মিথলজির…