চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ফেসবুক এবং ‘আই হেইট পলিটিক্স’ প্রজন্ম

একবার মালয়েশিয়া প্রবাসী এক শ্রমিককে তার মালিক বেতন না দিয়ে পাসপোর্ট আটকিয়ে রাখলো। ওই শ্রমিক সেখানকার বাংলাদেশ দূতাবাস চেনেন না কিংবা চিনলেও কেউ তাকে সাহায্য করবে না ভেবে ফেসবুকে প্রবাসীদের জন্য খোলা একটা পেজে নিজের কষ্টের কথা লিখে তিনি জানিয়েছিলেন, আমি দেশে ফেরত যেতে চাই। আমাকে সাহায্য করুন। দেখা গেলো তার ওই পোষ্ট স্বয়ং মন্ত্রীই দেখেছিলেন এবং আশ্বাস দিয়েছিলেন ব্যবস্থা নেয়ার। এটি হয়তো কোনোদিনই ওই শ্রমিকের পক্ষে সম্ভব হতো না যদি না ফেসবুক থাকতো। তিন সপ্তাহ বন্ধ থাকার পর ফেসবুকে ঢোকার গেটওয়ে খুলে দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। ফেসবুকে…

আমেরিকাকে বিশ্ব শান্তি পুরস্কার দেয়া হোক

৯/১১’র পর হয়তো দিনটি এখন ১১/১৩ হিসেবেই পরিচিতি পাবে। বলছি ফ্রান্সে ঘটে যাওয়া সন্ত্রাসী হামলার কথা। আমেরিকায় টুইন টাওয়ার ধ্বংসের পর পুরো পৃথিবীর দৃশ্যপটে যেমন একটা পরিবর্তন এসেছিলো, ধারনা করা হচ্ছে ফ্রান্সে ভয়ানক ওই হামলার পরও হয়তো পুরো পৃথিবীর দেশগুলোর মাঝে পারস্পারিক সম্পর্ক এবং নিরাপত্তা প্রেক্ষাপটে আসবে আমূল পরিবর্তন।এখন প্রশ্ন হচ্ছে এর সুফল আসলে কারা ভোগ করছে? নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা যে কোন সন্ত্রাসী হামলার পর যেমন এর কারণ এবং প্রতিকার নিয়ে ঝাপিয়ে পড়েন, ঠিক তেমনি রাজনীতিবিদরাও ভাবতে শুরু করেন এর সুফল আসলে কারা ভোগ করছে। কোন…

গৃহকর্মী নির্যাতন ও মনের আনন্দে ঘুরে বেড়ানো!

ধরুন আপনার বাসার ১২ বছরের কাজের মেয়েটি একদিন হঠাৎ হারিয়ে গেলো। আপনি তখন কি করবেন? নিশ্চয়ই আপনি মনের আনন্দে ঘুরে বেড়াবেন না; কিংবা সকাল-বিকেল অফিস করবেন ঠিক'ই কিন্তু ওই কাজের মেয়ের কোন খোঁজ করবেন না! আজ পত্রিকায় একটা সংবাদ ছাপা হয়েছে। এক বিচারক এবং তার স্ত্রী মিলে তাদের বাসার কাজের মেয়েকে নিয়মিত নির্যাতন করে আসছেন। ওই কাজের মেয়ের দেহে একাধিক ক্ষত চিহ্ন পাওয়া গেছে। এই মেয়ে দেড় বছর ধরে ওই বাসায় কাজ করতো। শেষমেশ কাজের মেয়েটি কোন ভাবে পালিয়ে গিয়ে বেঁচে গেছে! অদ্ভুত ব্যাপার হচ্ছে ওই বিচারক'কে যখন সাংবাদিক ফোন করে তার বাসার কাজের…

নিরাপত্তার চাদরে নয়, কম্বলে ঢাকুন!

শুনেছি দুই বিদেশি'কে হত্যার পর ঢাকার গুলশান, বারিধারা অর্থাৎ পুরো কূটনীতিক পাড়া নাকি নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেয়া হয়েছে! এই চাদরে এমন'ই ফাঁক! যে দিন গণমাধ্যম মারফত জানতে পারলাম তার পর দিন'ই দেখি পত্রিকায় খবর বেড়িয়েছে-গুলশানে প্রবল নিরাপত্তা ব্যবস্থার মাঝেই দিনে দুপুরে চাঁদাবাজি-ছিনতাই চলছে! এর দুই দিন পরে শুনি এক ১৪ বছরের ধনীর দুলাল নাকি মদ খেয়ে শুধু গাড়ি'ই চালাচ্ছিলো না, রীতিমত কার রেসিং করছিলো ওই গুলশান এলাকাতেই। একে তো বয়স ১৪, এর মাঝে আবার মদ খেয়ে গাড়ি চালাচ্ছিলো। যা হবার তাই হয়েছে। এই ছেলে গাড়ি উঠিয়ে দিয়েছে আশপাশের লোকজনের…

আমাদের নারী ক্রিকেট দল পাকিস্তানে কতোটা নিরাপদ

সেই কতো বছর আগের কথা। প্রথমে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দল পাকিস্তানে যে হোটেলে ছিলো তার সামনে বোমা হামলা। অবশ্যম্ভাবী ফল হিসেবে কিউইদের দ্রুত দেশে ফিরে যাওয়া। এরপর শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল পাকিস্তানে গেলো পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে। কিন্তু মাঝ পথেই ফিরতে হলো তাদের। কারণ, ক্রিকেটারদের বাস লক্ষ্য করে গুলি! এতে এমনকি কয়েকজন খেলোয়াড় আহতও হয়েছিলো। ফলাফল, পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বন্ধ! সময় গড়ালো কিন্তু কোন দলই পাকিস্তানে যেতে রাজি হচ্ছে না। শেষ পর্যন্ত এইতো কিছু দিন আগে জিম্বাবুয়ে পাকিস্তান সফর করতে রাজি হলো। কিন্তু সেই একই ঘটনা।…

সুইডেনের মুরগির চেয়েও কমদামি বাংলাদেশের মানুষ

টাঙ্গাইলে তিনজন মানুষকে পুলিশ গুলি করে হত্যা করেছে। তাদের অপরাধ হচ্ছে, সেখানকার এক মা ও ছেলেকে বিবস্ত্র করে লাঞ্চিত করার ঘটনায় তারা প্রতিবাদ করতে গিয়েছিলো! এই ঘটনায় সব মিলিয়ে সাতজন পুলিশকে প্রত্যাহার করা হয়েছে! প্রত্যাহার মানে হচ্ছে এক জায়গায় থেকে আরেক জায়গায় ট্রান্সফার করা হয়েছে। এই সব ঘটনা দেখে আমার বার বার সেই মুরগীর খামারির কথা মনে পড়ে যায়। সুইডেনের বিখ্যাত একটি ইংরেজি খবরের কাগজের প্রায় বছর সাতেক আগের শিরোনাম ছিলো অনেকটা এইরকম: একটি মুরগি খামারের খুব কাছ দিয়ে সুইডিশ বিমান বাহিনীর কিছু বিমান উড়ে যাবার জন্য বিমান বাহিনীর…

তালেবান, আল কায়েদা ও আইএসের উত্থান-পতন আর পুনরুত্থানের ইতিহাস!

সমৃদ্ধ আফগানিস্তান ও আভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক কোন্দল যুদ্ধ-বিগ্রহ ছাড়া আফগানিস্তান এখন কল্পনাই করা যায় না। দেশটির কয়েক প্রজন্ম জানেই না স্বাভাবিক জীবন বলতে কি বুঝায়! তবে দেশটির অবস্থা সব সময় এমন ছিল না। একসময় আফগানিস্তান শান্তির জন্য পরিচিত ছিল। ১৯৭৩ সালের আগ পর্যন্ত রাজা জহির শাহ দেশটি পরিচালনা করছিলেন আধুনিক গণতন্ত্রের আদলে। সেসময় সেখানে বহুতল ভবন প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো, স্বচ্ছ নির্বাচন ছিল, নারীদের অধিকার ছিল, অন্যান্য দেশের সাথে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ছিল যথেষ্ট শক্ত। কিন্তু ১৯৭৩ এর শেষ দিক থেকে এই প্রস্ফুটিত রাষ্ট্র’টির সমস্যা শুরু…

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের বেতন ও মর্যাদার কথা

দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর শিক্ষকরা নিজেদের বেতন ও সেই অনুযায়ী অন্যান্য আমলাদের সাথে নিজেদের মর্যাদা যাতে অষ্টম বেতন কাঠামো অনুযায়ী বজায় থাকে তার জন্য আন্দোলন করছে। কিছু দিন আগেই তারা ঘণ্টা তিনেকের কর্ম বিরতি পালন করেছে এবং এর পর দাবি আদায় না হলে আরও বৃহত্তর আন্দোলনের কথা ভাবছে বলে জানান দিয়েছে। বর্তমানে তারা ফুল টাইম কর্ম বিরতির দিকে যাচ্ছে! এ সবই তারা করছে চমৎকার গণতান্ত্রিক উপায়ে। নতুন বেতন কাঠামো অনুযায়ী নিজেদের অধিকার আদায়ের জন্য তারা আন্দোলন করতেই পারে। তবে সবচাইত উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে এই আন্দোলনে সব মতের শিক্ষক…

মুসলিম ধনী দেশগুলো কেনো আশ্রয় হবে না!

ক্যাথলিক খ্রিষ্টানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় গুরু পোপ ফ্রান্সিস রোববার প্রার্থনার পর ঘোষণা করেছেন, ইউরোপের সকল ক্যাথলিক প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে গির্জাতে হলেও যেনো মুসলমান শরণার্থীদের আশ্রয় দেয়া হয়। তিনি ইউরোপবাসীকে শরণার্থীদের ভালো চোখে দেখার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ইউরোপের সকল ধর্মের মানুষ, সকল ধর্মের উপাসনালয়ের উচিত হবে এই মানুষগুলোকে আশ্রয় দেয়া।এই ধর্মীয় গুরু এমন একটা সময়ে এই ঘোষণা দিয়েছেন যখন সিরিয়ার পাশের দেশ সৌদি আরবের সরকার ঘোষণা করেছে তারা কোনো শরণার্থী নেবে না। অথচ আরব লীগের সদস্য ও মুসলিম বিশ্বের নেতা হিসাবে…

শিক্ষক মারধোর ও শিশু নির্যাতন

সিলেটের শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মারধোর করার ঘটনা ঘটেছে। বিশ্ববিদ্যালয়টির ছাত্ররাই তাদের মেরেছে বলে শোনা যাচ্ছে। ঘটনা যতোটুকু জানা গেছে, আন্দোলনরত শিক্ষকরা বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য যখন নিজ কর্মক্ষেত্রে যাচ্ছিলেন তখন তাকে ধাক্কা দিয়েছিলেন, আর এই প্রেক্ষিত একটি ছাত্র সংগঠনের ছাত্ররা আন্দোলনরত শিক্ষকদের উপর ব্যাপকভাবে চড়াও হয়! এতে বেশ কিছু শিক্ষক আহত হয়েছেন।কোন ঘটনাটি সত্য আর কোনটি মিথ্যা সেটি অবশ্য বিবেচনার দাবি রাখে। অবাক করা ব্যাপার হচ্ছে, এই পুরো ঘটনার মাঝেই একটা পৈশাচিক ব্যাপার কাজ করেছে। সর্বোচ্চ বিদ্যাপিঠে এই…