চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বাঙালির আর্জেন্টাইন ভালোবাসা

সারা বছর সুপ্ত থাকে হৃদয়জুড়ে। চার বছর অন্তর হৃদয় ফুঁড়ে বেরিয়ে আসে সেই ভালোবাসা। প্রতিদানের প্রত্যাশাবিহীন নিখাদ ভালোবাসা, নিঃশর্ত আনুগত্য। ভালোবাসা-অনুরাগ প্রকাশে শ্রম, অর্থ এমনকি জীবন বাজি রাখতেও দ্বিধা নেই। বেরসিকদের কাছে উন্মাদনা মনে হতে পারে, কেউ কেউ এই অনুরাগকে জ্বরের সাথে তুলনা করে ঠাট্টা-মশকরাও করেন।  তবে  বাঙালির ফুটবল ও বিশ্বকাপ প্রেমের নজীর কিন্তু অতুলনীয়। ফুটবল বাঙালির খেলা বলা হলেও মাঠের পারফরম্যান্সে আমরা  বরাবরই ব্যাকবেঞ্চার। তাই বলে, বাঙালির ফুটবল প্রীতি  নিয়ে সংশয় চলে না। সাত সমুদ্র তেরো নদী আর হাজার হাজার…

টপ ফাইভ অথবা সুপার সিক্স

৮৮ বছর আর ২০টি গৌরবোজ্জ্বল আসরের ইতিহাস। বিশ্বসেরা ফুটবল জাতির স্বীকৃতি, জুলে-রিমের সোনার পরী কিংবা ফিফা বিশ্বকাপ, সেতো ফুটবলের বিশ্বযুদ্ধের পোশাকি নাম। বিশ্বকাপ মানেইতো ফুটবল ঐতিহ্যে  সমৃদ্ধ দুই মহাদেশ ইউরোপের সঙ্গে লাতিন আমেরিকার শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনের লড়াই। নিয়ত আধুনিকতা, পেশাদারিত্ব ও বাণিজ্যিক সাফল্যে উন্মুখ ইউরোপীয় ঘরানা। তাদের প্রতিপক্ষ সৃজনশীলতা, সহজাত প্রতিভা, আবেগ উৎসারিত হৃদয় জয় করা লাতিন আমেরিকান ঘরানা। একদল বিজ্ঞান, আবেগ-বিবর্জিত পেশাদারিত্বকে সঙ্গে নিয়ে পাড়ি দিতে চায় দুস্তর পথ। আরেক দলের সম্বল, শারীরিক শক্তির…

ঘরোয়া ফুটবলে দর্শকশূন্যতা, ক্রিকেটেও থাকুক সতর্কতা

এখন যেমন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে গ্যালারি উপচানো দর্শক, একসময় ঘরোয়া ফুটবল-ক্রিকেটে দর্শক থাকত তেমনই। হারিয়ে যাওয়া দর্শক ভিড়কে মাঠে ফিরিয়ে আনার উপায় কী? দর্শক-সংগঠক-খেলোয়াড়রা এজন্য নানা সুপারিশ তুলে ধরেছেন। ঘরোয়া আসরে দর্শকখরা নিয়ে সাইদুর রহমান শামীমের চারপর্বের ধারাবাহিক রিপোর্টের শেষপর্বে থাকছে সেই সুপারিশমালা। গত শতাব্দীর শেষদিকেও উপমহাদেশীয় ফুটবলে বাংলাদেশ ছিল সমীহ জাগানো শক্তি। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ জেতার পাশাপাশি ফাইনালে ছিল লাল-সবুজের নিয়মিত উপস্থিতি। ক্লাব হিসেবে আবাহনী-মোহামেডানের সাফল্য ছড়িয়ে পড়েছিল সাউথ এশিয়া ছাপিয়ে।…

যানজটের কারণেও ঘরোয়া আসরে কম দর্শক

বাংলাদেশের ক্লাবভিত্তিক খেলাধুলার জনপ্রিয়তা হারানোর কারণ কি শুধুই মানের অধোগতি বা প্রতিদ্বন্দ্বিতার অভাব? ফুটবল-ক্রিকেট ভক্তসহ সাবেক তারকা এবং সংগঠকরা আরো যেসব কারণের কথা বলেছেন তার মধ্যে আছে নতুন প্রজন্মের রুচির পরিবর্তন, যানজট, টেলিভিশন ও ডিজিটাল মাধ্যমে বিদেশী লিগ দেখার সুযোগ। ঘরোয়া আসরে দর্শকখরা নিয়ে সাইদুর রহমান শামীমের ধারাবাহিক প্রতিবেদনের তৃতীয় পর্বে উঠে এসেছে সেসব কথা। এমনিতে প্রতিনিয়ত যানজটে নাকাল ঢাকাবাসী। নিত্যদিনের সেই ভোগান্তি নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে রাজধানীর খেলার মাঠে। যানজটের কারণে শহরের ভেতর শহর…

দর্শকশূন্য ফুটবল মাঠ এখন পীড়াদায়ক

খেলাধুলার ঘরোয়া আসর, বিশেষ করে দর্শকশূন্য ফুটবল মাঠ এখন বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনের জন্য এক পীড়াদায়ক নিয়মিত ঘটনা। সাবেক তারকারা বলছেন, অনেক কার্য-কারণের সঙ্গে ঐতিহ্যবাহী বড় ক্লাবের গুঁটিয়ে যাওয়াও অন্যতম বড় কারণ। স্বাধীন বাংলাদেশে ক্রীড়াঙ্গন জেগে উঠেছিল ঢাকার জায়ান্ট মোহামেডান-আবাহনীর দুরন্ত প্রতিদ্বন্দ্বীতায়। ঐতিহ্যের ধারক মোহামেডানের সাথে তারুণ্য ও আধুনিকতার আবাহনীর লড়াই সংক্রমিত হতো শহর-বন্দর, নগর-জনপদে। সালাউদ্দিন, এনায়েত, সাব্বির-মুন্নার বাইরেও সামির শাকির-এমেকার মতো বিশ্বকাপ তারকাদের ফুটবল-যুদ্ধ দেখেছে ঢাকার মাঠ।…

গ্যালারি ভরা দর্শক এখন শুধুই স্মৃতি

স্বাধীনতা পরবর্তী বাংলাদেশের ক্রীড়া বিনোদনের প্রধান কেন্দ্র ছিল ঢাকা স্টেডিয়ামসহ পল্টন ময়দানের বিশাল এলাকা। ঢাকার ফুটবল, ক্রিকেট লিগ নিয়ে স্টেডিয়ামের উন্মাদনা ছড়িয়ে পড়তো ৫৬ হাজার বর্গমাইল জুড়ে। আবাহনী-মোহামেডান মধুর প্রতিদ্বন্দ্বীতা নিয়ে বিভক্ত হয়ে পড়তো পুরো দেশ। আর বর্তমান সময়ে বাংলাদেশের ক্লাবভিত্তিক ক্রীড়া চর্চা পার করছে কঠিন সময়। গ্যালারি উপচে ভরা দর্শক এখন শুধুই স্মৃতি। আবাহনী-মোহামেডানের মতো বড় ম্যাচ থেকেও মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে দর্শক। ক্লাবভিত্তিক প্রতিদ্বন্দ্বীতা কেন রং হারিয়েছে, কেন দর্শকের আকাল? ঢাকার মাঠের সোনালী…

বিশ্বকাপ ফুটবলে আর্জেন্টিনা: বেদনার রঙ আকাশী নীল!

আটলান্টিক মহাসাগরের উত্তরাংশের বারমুডা ট্র্যায়াঙ্গেলের মতোই রহস্যে ঘেরা বিশ্বকাপ ফুটবলে ম্যারডোনা-মেসির আর্জেন্টিনার প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির সমীকরণ। প্রথম আসরের ফাইনালিস্ট,দুইবারের চ্যাম্পিয়ন,তিনবারের রানার্সআপ,মহাদেশীয় টুর্নামেন্ট কোপা আমেরিকায় দ্বিতীয় সর্বাধিক ১৩বারের শিরোপা জয়ী আর্জেন্টিনা। সামর্থ্য,মাঠের পারফরম্যান্সের গাণিতিক অনুবাদ কোথায় তাদের সাফল্যের ইতিহাসে? ১৯৮৬’র মেক্সিকো আসরের পর পেরিয়ে গেছে ৩২ বছর, একের পর এক হাতছাড়া হয়েছে বিশ্বকাপ জেতার সুযোগ। স্যার আলফ্রেডো ডি স্টিফানো,ডিয়েগো ম্যারাডোনার মতোই ইতিহাসের কালজয়ী…

বিশ্বকাপ ফুটবলে লাখো ডলার অর্থ পুরস্কারের হাতছানি

১৮ ক্যারেট সোনায় গড়া ৩৭ সেন্টিমিটার উঁচু ও ছয় দশমিক এক কিলোগ্রাম ওজনের এক মোহনীয় ট্রফি। ফিফা বিশ্বকাপ ট্রফি নামের এই সোনার হরিণ জয়ের নেশায় বছরজুড়ে ব্যস্ততা, অধ্যবসায় ফুটবল দুনিয়ার। ২১১ সদস্য রাষ্ট্রের মধ্যে শেষপর্যন্ত চূড়ান্ত লড়াইয়ে টিকে থাকে ৩২ দেশ। এক মাসের সেই আসল লড়াইয়ে শেষ হাসি যার, তার হাতেই ওঠে বিশ্বসেরা’র স্মারক, বিশ্বকাপ। বিশ্বসেরার স্বীকৃতি, র‌্যাঙ্কিং’র এভারেস্টে অবস্থান, ফুটবল দুনিয়া শাসনের অলিখিত বিশেষণ, এটাই শেষ নয়। পেশাদার ফুটবলের এই স্বর্ণযুগে বিশ্বকাপ ট্রফির সাথে প্রাপ্ত অর্থ পুরস্কার হয়ে উঠেছে আকর্ষণীয় ও…

এবার জানুয়ারিতেই ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ

দেশের ক্লাব ক্রিকেটের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও আকর্ষণীয় আসর ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগ। যদিও প্রতিবছর অনিশ্চয়তা আর শঙ্কা থাকে লিগ ঘিরে। হবে, হচ্ছে করে ক্রিকেটের ভরা মৌসুম পেরিয়ে শেষমেশ মাঠের খেলা গড়ায় এপ্রিলে-মে’র ঝড়-বৃষ্টির দিনে। যে কারণে প্রিমিয়ার লিগের জৌলুসে কাটতি। লিগের ঐতিহ্য ও হারানো সেই জৌলুস ফেরাতে উদ্যোগী হয়েছে ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্রোপলিস (সিসিডিএম)। নতুন বছরের শুরুতেই মাঠে গড়াবে এবারের প্রিমিয়ার লিগ, এমন ঘোষণা তাদের। গত আসরে উন্মুক্ত পদ্ধতিতে দলবদল হলেও এক মৌসুম বিরতি দিয়ে আবারও ফিরছে প্লেয়ার্স বাই চয়েজ।…