চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ছোটন-স্মলির বিদায়ে মেয়েরা মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছিল

জানালেন সাবিনা

Fresh Add Mobile
বিজ্ঞাপন

চলতি বছরের মে মাসে বাংলাদেশ জাতীয় নারী দল ও মেয়েদের সকল বয়সভিত্তিক ফুটবল দলের প্রধান কোচের পদ থেকে পদত্যাগ করেন গোলাম রব্বানি ছোটন। তাকে ছাড়াই জুলাইয়ে নেপালের বিপক্ষে দুটি আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ খেলে বাংলাদেশ। প্রথমটিতে ড্র পেলেও দ্বিতীয় ম্যাচে সাবিনারা টাইব্রেকারে হেরে যায়।

বিজ্ঞাপন

নেপালের সঙ্গে সেই দুই ম্যাচের পরই বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর পদ থেকে পদত্যাগ করেন পল স্মলি। ইংলিশ বংশোদ্ভূত অস্ট্রেলিয়ান ২০১৬ সাল থেকে বাফুফের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

মাঝে এশিয়ান গেমসে লাল-সবুজের দল ছিল হতাশাজনক পারফরম্যান্স। দুই ম্যাচ হারের পর নেপালের সঙ্গে করতে হয় পয়েন্ট ভাগাভাগি। তবে সিঙ্গাপুরকে ঘরের মাঠে বিধ্বস্ত করে বছরের শেষটা ভালোভাবেই করেছে বাঘিনীরা।

প্রথম আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে সিঙ্গাপুরকে ৩-০ গোলে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে অতিথি দল ৮-০ গোলের বিশাল ব্যবধানে হারে। সোমবার শেষ ম্যাচের পর সংবাদ সম্মেলনে ছোটন ও স্মলিকে নিয়ে কথা বলেন অধিনায়ক সাবিনা খাতুন। তার ভাষ্য, ‘ছোটন স্যার, পল স্যার চলে গেলে মেয়েরা মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে। সেটার প্রভাব নেপালের সঙ্গে দেখা গেছে।’

বিজ্ঞাপন
Reneta April 2023

কোচ সাইফুল বারী টিটুর অধীনে আবারো সাফল্যের ধারায় ফিরেছে বাংলাদেশ জাতীয় নারী ফুটবল দল। এ প্রসঙ্গে সাবিনা বলেন, ‘সাইফুল স্যার বাংলাদেশের অন্যতম সেরা কোচ। উনি চেষ্টা করেছেন। প্রথম প্রথম আমাদের সঙ্গে মানিয়ে নিতে সময় লেগেছে। আমাদেরও তাই। প্রথম প্রথম মেয়েরা বলত স্যার একটু রূঢ়। তবে মেয়েরা এখন বলে, স্যারের ভেতর অনেক বদল এসেছে।’

সাইফুল বারী টিটুর সঙ্গে আগামী ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাফুফের চুক্তি রয়েছে। বাফুফের সাবেক ব্রিটিশ ট্যাকনিক্যাল ডাইরেক্টর পল স্মলি আবারো বাংলাদেশে ফিরে সাবিনাদের হেড কোচ হতে পারেন। টাইগ্রেস অধিনায়কের কাছে এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে বলেন, ‘পল স্যার আমাদের সঙ্গে ২০১৬ থেকে কাজ করেছেন। আমাদের যে ধারাবাহিক ক্যাম্পে হয়েছে, তাতে পল স্যারের অবদান আছে বলে আমার মনে হয়।’

গত বছরের সেপ্টেম্বরে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জয়ের পর দীর্ঘ ১০ মাস আন্তর্জাতিক ফুটবলের বাইরে ছিল টিম টাইগ্রেস। এতে ফুটবলারদের ফিটনেসের ঘাটতি ছিল বলে জানান সাবিনা। যদিও সম্প্রতি ফিটনেসে উন্নতি হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন।

‘নেপালের সঙ্গে যে দুটি ম্যাচ খেলেছিলাম, সেখানে ফিটনেসে অনেকটা ঘাটতি ছিল। ফিটনেস অনেক বড় ব্যাপার। কিন্তু শেষ ৩-৪ মাস আমরা যে অনুশীল করেছি। আগের মতোই সেরাটা দিতে পেরেছি। মেয়েরা ভালো খেলেছে। ম্যাচের আগে বলা হয়, সবাই ১২০ ভাগ দেবে। মেয়েরা আজ ২০০ ভাগ দিয়েছে।’

সিঙ্গাপুরের বিপক্ষে নিজে গোলের দেখা পেলেও বেশ কয়েকটি সুযোগ হাতছাড়া করেন সাবিনা। নিজের পারফরম্যান্স নিয়ে অসন্তুষ্টির কথা অকপটেই বললেন, ‘যেটা করেছি সেটা দর্শনীয় গোল না। যে গোল মিস করেছি, মনে হয় আমার ক্যারিয়ারে সবচেয়ে বাজে আজকের মিসগুলো।’

বিজ্ঞাপন
Bellow Post-Green View