চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স

ঈদ-উল-আজহাকে সামনে রেখে ব্যাংকিং চ্যানেলে প্রবাসীদের আয় বা রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়েছে। সদ্য সমাপ্ত জুলাই মাসে প্রবাসীরা ১৫৯ কোটি ৭৬ লাখ ডলারের সমপরিমাণ রেমিট্যান্স দেশে পাঠিয়েছেন। যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ২১ দশমিক ২০ শতাংশ বেশি। যা বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স আহরণ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগের হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

বিজ্ঞাপন

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, জুলাই মাসে প্রবাসীরা দেশে রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন ১৫৯ কোটি ৭৬ লাখ ডলার। যা আগের মাস জুনে ছিল ১৩৬ কোটি ৮২ লাখ ডলার। অর্থাৎ এক মাসের ব্যবধানে ২২ কোটি ৯৪ লাখ ডলার রেমিট্যান্স দেশে বেশি এসেছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সামনে কোরবানি ঈদ। এছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংক হুন্ডি প্রতিরোধে বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করায় রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়েছে।

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, ঈদে মানুষের বাড়তি খরচ হয়। অনেকে কোরবানির পশু কিনবে তাই বেশি অর্থ পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এছাড়া কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিভিন্ন পদক্ষেপের কারণে হুন্ডিতে রেমিট্যান্স আসা কমেছে। এসব কারণে ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়েছে।

বিজ্ঞাপন

বেসরকারি খাতের ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে। এ ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ১১৮ কোটি ২৮ লাখ ডলার। রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ৩৭ কোটি ৭৭ লাখ, বিশেষায়িত ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ২ কোটি ৩৬ লাখ এবং বিদেশি মালিকানাধীন ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ১ কোটি ৩৩ লাখ ডলার।

একক ব্যাংক হিসেবে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে বেসরকারি খাতের ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে। এ ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ৩০ কোটি ৭৭ লাখ ডলার। রেমিট্যান্স আহরণে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংক। এ ব্যাংকটির মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ১৬ কোটি ৭১ লাখ ডলার। এ ছাড়া সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে ১১ কোটি ১২ লাখ ডলার এবং জনতা ব্যাংকের মাধ্যমে ৭ কোটি ৭৯ লাখ ডলার এসেছে।

রেমিট্যান্সের তথ্য পর্যালোচনায় দেখা গেছে, সদ্য সমাপ্ত ২০১৮-১৯ অর্থবছরে প্রবাসী বাংলাদেশিরা ১ হাজার ৬৪২ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। এর আগে ২০১৪-১৫ অর্থবছরে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স এসেছিল ১ হাজার ৫৩১ কোটি ৬৯ লাখ ডলার। এ ছাড়া ২০১৬-১৭ অর্থবছরে প্রবাসীদের রেমিট্যান্স পাঠানোর পরিমাণ ছিল ১ হাজার ২৭৬ কোটি ৯৪ লাখ ডলার। সর্বশেষ ২০১৭-১৮ অর্থবছরের ১ হাজার ৪৯৮ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিল প্রবাসীরা। এটি তার আগের অর্থবছরের চেয়ে ১৭ দশমিক ৩ শতাংশ বেশি।

চলতি অর্থবছরের (২০১৯-২০২০) বাজেটে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ঘোষণা করেছিলেন রেমিট্যান্সের উপর প্রণোদনা দেয়া হবে। সে অনুযায়ী সম্প্রতি তিনি বলেছেন, প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের উপর ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দিচ্ছে সরকার।

অর্থাৎ কেউ ১০০ টাকা দেশে পাঠালে তিনি ১০২ টাকা পাবেন। গত ১ জুলাই থেকে এই প্রণোদনা কার্যকর হয়েছে।

Bellow Post-Green View