চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পর্বতারোহী রেশমা হত্যার বিচার ও সাইকেল লেনের দাবিতে সাইকেল রাইড

পর্বতারোহী, সাইক্লিস্ট ও দৌড়বিদ রেশমা নাহার রত্নার মর্মান্তিক মৃত্যতে দায়ী গাড়িচালককে গ্রেফতার, নিরাপদ যাতায়াত ও সাইকেল লেনের দাবি নিয়ে সাইকেল রাইডের আয়োজন করেছিল পর্বতারোহন, সাইক্লিং ও ভ্রমণের গ্রুপ ‘অভিযাত্রী’।

শুক্রবার সকাল ৭টায় জাতীয় সংসদ ভবনের সামনে থেকে শুরু হওয়া রাইডটিতে অংশ নেয় প্রায় ৪০ জন সাইক্লিস্ট।

বিজ্ঞাপন

রাইডটি সংসদ ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে বিজয় সরনি হয়ে সাতরাস্তা দিয়ে হাতিরঝিল চক্রাকারে ঘুরে শেষ হয়। সব ধরণের ট্রাফিক আইন মেনে সারিবদ্ধ ভাবে সাইকেল চালিয়ে সড়কে হত্যার প্রতিবাদে মৌন প্রতিবাদ জানায় দলটি। এসময় রেশমা নাহার রত্নার স্মরণে ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

আয়োজন শেষে অভিযাত্রী দলের সমন্বয়ক এভারেস্ট শীর্ষে ওঠা প্রথম বাংলাদেশি নারী নিশাত মজুমদার বলেন, ঢাকার মত একটি যানজটের নগরে সড়ক দুর্ঘটনায় একজন সাইক্লিস্টের মৃত্যু মেনে নেয়া যায় না। আর কোন সম্ভাবনাময় প্রাণকে আমরা হারাতে চাই না। আজ যদি সাইকেল লেন থাকতো, সড়কে হত্যার ঠিকমতো বিচার হতো তাহলে হয়তো রেশমাকে হারাতে হতো না।

তিনি আরো বলেন, এই ইভেন্টটি শুধু প্রতিবাদের জন্য না। এর পাশাপাশি সবাইকে একটা বার্তা দেয়া যে, সড়কে সকলের উচিত ট্রাফিক আইন মেনে চলা।

বাংলাদেশের আয়রনম্যান শামসুজ্জামান আরাফাত বলেন, আজ ৮ দিন হয়ে গেল সড়কে রেশমা নাহার রত্না মারা গেছেন। অথচ পুলিশ এখনো দায়ি ব্যক্তিকে শনাক্ত করতে পারলো না। সংসদ ভবন এলাকার মত গুরুত্বপূর্ণ একটি এলাকায় এমন একটি মর্মান্তিক দুর্ঘটনার পর যদি সুষ্ঠু তদন্তনা হয় তাহকে বিষয়টি সত্যিই মর্মান্তিক হবে।

গত ৫ আগস্ট হাতিরঝিলে দৌড় শেষে সাইক্লিং করে বাসায় ফেরার পথে চন্দিমা উদ্যানের সামনে কালো রঙের একটি মাইক্রোবাস ধাক্কা দেয় পর্বতারোহী, সাইক্লিস্ট ও দৌড়বিদ রেশমা নাহার রত্নাকে। পথচারী ও পুলিশ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় রেশমার ভাই ঐ দিনই শেরে বাংলা নগর থানায় অজ্ঞাত একজনের নামে একটি হত্যা মামলা করেন। ঘটনার ৮ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনো মাইক্রোবাস কিংবা তার চালককে শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ।