চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ক্যালিফোর্নিয়ায় ২০ বছরে সবচেয়ে বড় ভূমিকম্প

চলছে একের পর এক আফটারশক

যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ায় আঘাত হানছে একের পর এক ভূমিকম্প। এর মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্পটি আঘাত হেনেছে অঙ্গরাজ্যটির একটি মরু অঞ্চলে।

৭.১ মাত্রার এ কম্পনকে ক্যালিফোর্নিয়ার গত ২০ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ভূমিকম্প হিসেবে চিহ্নিত করেছেন আবহাওয়াবিদরা।

Reneta June

বিবিসি জানিয়েছে, সর্বশেষ ভূমিকম্পটির উৎপত্তিস্থল লস অ্যাঞ্জেলেসের ২৪০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে রিজক্রেস্ট শহরের কাছে, ভূপৃষ্ঠ থেকে মাত্র ০.৯ কিলোমিটার গভীরে।

বিজ্ঞাপন

লস অ্যাঞ্জেলেস দমকল বিভাগ অবশ্য জানিয়েছে, এত বড় মাপের ভূমিকম্পেও কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

এর আগে বৃহস্পতিবার একই এলাকায় ৬.৪ মাত্রার আরেকটি ভূমিকম্প হয়। ওই কম্পনটির উৎপত্তিস্থল ছিল ভূমি থেকে ১১ কিলোমিটার গভীরে। ওই ভূমিকম্পে কয়েকটি প্রধান সড়কে ফাটল দেখা দেয়। দু’টি বাড়িতে গ্যাসের লাইন লিক করে আগুনও ধরে যায়।যুক্তরাষ্ট্র-ক্যালিফোর্নিয়ায় ভূমিকম্প

পুরো শহরে জরিপ চালিয়ে বড় কোনো ধরনের অবকাঠামোগত ক্ষয়ক্ষতি পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে রিজক্রেস্ট শহর কর্তৃপক্ষ। তবে কয়েক জায়গায় বিদ্যুৎ চলে যাওয়া এবং ঘরবাড়ি, দোকানপাটে জিনিসপত্র তছনছ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

তবে তখনকার ওই ভূমিকম্প থেকেই মূলত শুরু হয়েছে একের পর এক আফটারশক। মার্কিন ভূতাত্ত্বিক গবেষণা সংস্থা ইউএসজিএস’র সর্বশেষ তথ্যমতে, দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়া অঞ্চলে বৃহস্পতিবার থেকে এ পর্যন্ত আড়াইশ’র বেশি ছোটবড় ভূমিকম্প হয়েছে।

শুক্রবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টা ১৩ মিনিটে (বাংলাদেশ সময় শনিবার সকাল ৯টা ১৯ মিনিট) হওয়া ৭.১ মাত্রার ভূকম্পনটিও একটি আফটারশক। এর পরেও আরও বেশ কিছু আফটারশক হয়েছে।

ভূমিকম্প বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে বলেছেন, আগামী কয়েকদিনে আরও অনেকগুলো আফটারশক হবে ওই অঞ্চলে। এর মধ্যে ৭.১ এর চেয়েও আরও বড় মাত্রার ভূমিকম্প হতে পারে।যুক্তরাষ্ট্র-ক্যালিফোর্নিয়ায় ভূমিকম্প

ক্যালিফোর্নিয়া ভূমিকম্পপ্রবণ একটি এলাকা। যুক্তরাষ্ট্রের এই অঙ্গরাজ্যটি স্যান আন্দ্রেজ ফল্টের প্রায় ১২শ’ কিলোমিটার দীর্ঘ অংশের ওপর অবস্থিত।

ফল্ট বা ফল্টলাইন হলো পৃথিবীর ভূগর্ভস্থ বিশাল খণ্ডিতাংশ বা টেকটনিক প্লেটগুলোর মিলনস্থল। এই টেকটনিক প্লেটগুলো বিভিন্ন সময় একটু একটু করে অবস্থান পরিবর্তন করে থাকে।