চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনা মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্রের চিকিৎসা সরঞ্জাম সহায়তা

যুক্তরাষ্ট্র সরকার বাংলাদেশে কোভিড-১৯ এর বিস্তার রোধে এবং এদেশের জনগণের স্বাস্থ্য চাহিদা মেটাতে যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা ইউএসএআইডি’র মাধ্যমে কোভিড-১৯ মোকাবিলায় জরুরি চিকিৎসা সরঞ্জাম ও সরবরাহ অনুদান দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের দেয়া এবারের অনুদানের আর্থিক মূল্য প্রায় ৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং এর অন্তর্ভুক্ত রয়েছে স্বাস্থ্যসেবাদানকারী পেশাজীবী ও অন্যান্য সম্মুখসারির কর্মীদের জন্য ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই), কোভিড-১৯ পরীক্ষা কার্যক্রম সম্প্রসারণের জন্য পরীক্ষাগারের যন্ত্রপাতি এবং কোভিড-১৯ রোগীদের সময়মতো গুরুত্বপূর্ণ স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ওষুধ।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ সরকার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মাধ্যমে এই চিকিৎসা সরঞ্জাম ও ওষুধগুলো দেশের সীমান্ত এলাকাগুলোতে বিতরণ করবে যেখানে সাম্প্রতিককালে কোভিড-১৯ সংক্রমণের ঘটনা বৃদ্ধি পাওয়ায় এগুলোর চাহিদা বেড়েছে।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলার এই সরবরাহ আনুষ্ঠানিকভাবে আজ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহা পরিচালক প্রফেসর ডাঃ আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশিদ আলম ও স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব লোকমান হোসেন মিয়ার হাতে তুলে দেন।

রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলার তার বক্তব্যে বলেন, “আজকে কোভিড-১৯ চিকিৎসা সরবরাহ ও ওষুধের হস্তান্তর এই সঙ্কট একসাথে কাটিয়ে উঠার ক্ষেত্রে আমাদের সফল ও অনন্য অংশীদারিত্বের দৃষ্টান্তগুলোর অন্যতম।” ইউএসআইডির’ ‘মামনি’ মাতৃ ও নবজাতক উন্নয়ন প্রকল্পের ইমার্জেন্সি রেসপন্স টু কোভিড-১৯ প্যান্ডেমিকের সহায়তায় অনুষ্ঠানটি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আয়োজন করে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে সেভ দ্য চিলড্রেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর ডাঃ মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরা, অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন), ডিজিএইচএস; অধ্যাপক ডাঃ নাসিমা সুলতানা, অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন), ডাঃ মোঃ নাজমুল ইসলাম, পরিচালক, ডিজিস কন্ট্রোল, ডাঃ মোঃ শামসুল হক, লাইন ডিরেক্টর, এমএনএইচ ও এএইচ, কাজী জেবুন্নেসা, অতিরিক্ত সচিব, হেলথ সার্ভিস ডিভিশন, ডাঃ মোঃ রোবেদ আমিন , লাইন ডিরেক্টর এনসিডিসি সহ অন্যান্য উর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ। আরও ছিলেন ইউএসএআইডি বাংলাদেশ, সেভ দ্য চিলড্রেন ও আইসিডিডিআরবির উর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ এবং জুম কলে সংযুক্ত হয়েছেলিনে অনুদানপ্রাপ্ত জেলাগুলো থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা।