চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনাকালে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় সমন্বয় প্রয়োজন

১২ আগস্ট থেকে দেশের বিভিন্ন স্কুল-কলেজ খুললেও এখনও বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় খোলেনি। অক্টোবর থেকে ধাপে ধাপে খুলে যাবে বলে জানা গেছে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম বর্ষে ভর্তির তারিখও ঘোষণা করা হয়েছে।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাসহ নানা নিয়মের মধ্যে দিয়ে নিয়মিত শিক্ষা কার্যক্রমসহ ভর্তি পরীক্ষার প্রস্তুতি নেয়া প্রয়োজন। দীর্ঘসময় আবাসিক হল ও ক্লাসরুম বন্ধ থাকাতে নানা ধরণের মেরামত ও সংযোজন-বিয়োজন দরকার, সেদিকেও নজর দিতে হবে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

করোনাকালের আগে থেকেই বিগত কয়েকবছর হলো সমন্বিত ভর্তি কার্যক্রমের নানা পরিকল্পনা করা হলেও বিভিন্ন কারণে তা বাস্তবায়ন হয়নি। সমন্বিত ভর্তি কার্যক্রমের মূল উদ্দেশ্য ছিল শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি কমানো। টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়ার শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আলাদা আলাদা গিয়ে পরীক্ষা দেবার বিষয়টি এখনও অনেকটাই আগের মতো। এছাড়া একইদিনে দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দেবার মতো বিষয়টিও সামনে চলে আসছে বারবার। করোনাকালে সমন্বিত বিষয়টির প্রয়োজনীয়তা আরও বেশি করে উপলব্ধি করা যাচ্ছে।

এবছরও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের স্নাতক ভর্তি পরীক্ষার তারিখ একইদিন হওয়ায় বিপাকে পড়েছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। সাত কলেজের কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক শ্রেনীতে ভর্তি পরীক্ষা একই দিনে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। অনেক শিক্ষার্থীই রয়েছে যারা এই দুই বিশ্ববিদ্যালয়েই ভর্তির আবেদন করেছে। তথ্যমতে, আগামী ৩০ অক্টোবর ঢাবি অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা আবার ৩০ ও ৩১ অক্টোবর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ডি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে৷

দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় তাদের নিজ নিজ নিয়মে চলে, তাদের রয়েছে নিজস্ব সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষমতা। কাজেই কোনো সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেবার সুযোগ যেমন নেই তেমনি তাদের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপও সমস্যা ডেকে আনতে পারে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সিদ্ধান্ত ও স্বাধীনতার প্রতি সম্মান জানিয়ে আমাদের আশাবাদ, করোনাকালে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা ও ভোগান্তির কথা মাথায় রেখে সমন্বিত ভর্তি কার্যক্রম নয়তো সুবিধাজনক আলাদা আলাদা সময়ে কর্মসূচি পরিকল্পনা করতে পারে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে সহায়তাও করতে পারে।

বিজ্ঞাপন