চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

শ্রমিকদের উন্নত জীবন ব্যবস্থা ও গার্মেন্টস শিল্পকে রক্ষা বিষয়ক কিছু ভাবনা

একটি রাষ্ট্রের অধীনে অনেকগুলো শ্রেণী বসবাস করে। যেমন বুর্জোয়া, শ্রমিক, কৃষক, মধ্যবিত্ত ইত্যাদি। প্রতিটি শ্রেণী তাদের নিজ নিজ স্বার্থের অবস্থান থেকে রাষ্ট্রের কাছে দাবি জানায়। আবার রাষ্ট্র নিজে কোনো শ্রেণী নিরপেক্ষ নয়। রাষ্ট্র কোনো না কোনো শ্রেণী স্বার্থে কার্য পরিচালনা করে। ফলে সমাজে বসবাসরত শ্রেণী সমূহের স্বার্থের সাথে রাষ্ট্রের স্বার্থের একটি দ্বন্দ্ব প্রতিনিয়ত বিরাজমান থাকে। রাষ্ট্র যেহেতু রাজনীতি দ্বারা পরিচালিত হয় ফলে রাজনৈতিক আদর্শ রাষ্ট্রের মাধ্যমে প্রতিফলিত হয়। তাই রাষ্ট্র শ্রেণী নিরপেক্ষ হতে পারে না। কিন্তু…

৯০ এর আন্দোলনের এই দিনের কিছু স্মৃতি

২৫ নভেম্বর সকালের দিকে মধুর ক্যান্টিনে এসে শুনি কারাগার থেকে অভি গ্র্রুপকে মুক্তি দেয়া হয়েছে। বুঝার বাকি রইলো না যে সরকারের সাথে আঁতাত করে সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যের বিরুদ্ধে ব্যবহারের জন্য এই গ্রুপকে ছেড়ে দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে দখল করার একটি পাঁয়তারা চালু করা হলো। সকাল ১১.৩০ মিনিটের দিকে হতাশ সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা মধুর ক্যান্টিনে আস্তে আস্তে জড়ো হতে থাকে। বেলা ১১.৪৫ মিনিটের দিকে তৎকালীন ডাকসু জিএস ও জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম-আহবায়ক খায়রুল কবির খোকন এর নেতৃত্বে কিছু স্কুল কলেজের ছাত্রসহ একটি মিছিল মসজিদ সংলগ্ন গেট…

যুক্তরাষ্ট্র গিয়ে ব্লগাররা যেভাবে মার্কিন স্বার্থ রক্ষা করবে

যারা ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি রকমের ধর্ম বিরোধীতা করে লেখে ব্লগার সাজেন তাদের দার্শনিক ভিত্তির কোনো পরিচয় নেই। বিজ্ঞান দিয়ে ধর্মকে বিরোধীতা ফয়েরবাখ-হেগেল থেকে কার্ল মার্ক্স - এঙ্গেলস এরাও কেউ করে নাই। হেগেলের বস্তুবাদী দর্শনের উপর ছুরি চালিয়ে তার ভাববাদী চিন্তার উপর সমালোচনা করে মার্ক্স বলেছেন দ্বান্দিক বস্তবাদ ফয়েরবাখ-হেগেলই আবিস্কার করেছেন। ফয়েরবাখের বস্তুবাদ ও হেগেলের দ্বান্দিকতাকে একটি মনুষ্য আকৃতিতে রুপ দিলে তার মাথা থাকে নিচের দিকে আর পা থাকে উপরের দিকে, আমি শুধু এটার মাথা ও পা সোজা করে দিয়েছি। দর্শনের শুরু এনাক্সমিন্দাসের…

নারী দিবস মানে নারীর অবমাননা

আজ আন্তর্জাতিক নারী দিবস। ঠিক এমন কোনো পুরুষ দিবস নাই। কারণটা পরিস্কার। বিশ্ব সমাজ ব্যবস্থা পুরুষ নিয়ন্ত্রিত এবং নারীর দাবির মুখে একটি দিবস তাদের উৎসর্গ করা হয়েছে। নারীর দাবি সমমর্যাদার। মর্যাদা সম হবে না অসম হবে তার নিয়ন্ত্রক পুরুষরা নয়, নিয়ন্ত্রক হচ্ছে এই সমাজ। সমাজ তার বিকাশের প্রয়োজনেই পুরুষের হাতে নিয়ন্ত্রণভার তুলে দিয়েছে বা দিয়েছিলো।আবার সমাজই পারে নারীকে সমমর্যাদায় বা নিয়ন্ত্রণের ভূমিকায় নিয়ে আসতে। এক সময় সমাজ বিকাশের শর্ত ছিল শ্রম নির্ভর। সেই যুগে ‘বীর পুরুষরা’ সমাজের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়। আস্তে আস্তে সমাজ…

নারী দিবস মানে নারীর অবমাননা

আজ আন্তর্জাতিক নারী দিবস। ঠিক এমন কোনো পুরুষ দিবস নাই। কারণটা পরিস্কার। বিশ্ব সমাজ ব্যবস্থা পুরুষ নিয়ন্ত্রিত এবং নারীর দাবির মুখে একটি দিবস তাদের উৎসর্গ করা হয়েছে। নারীর দাবি সমমর্যাদার। মর্যাদা সম হবে না অসম হবে তার নিয়ন্ত্রক পুরুষরা নয়, নিয়ন্ত্রক হচ্ছে এই সমাজ। সমাজ তার বিকাশের প্রয়োজনেই পুরুষের হাতে নিয়ন্ত্রণভার তুলে দিয়েছে বা দিয়েছিলো।আবার সমাজই পারে নারীকে সমমর্যাদায় বা নিয়ন্ত্রণের ভূমিকায় নিয়ে আসতে। এক সময় সমাজ বিকাশের শর্ত ছিল শ্রম নির্ভর। সেই যুগে ‘বীর পুরুষরা’ সমাজের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়। আস্তে আস্তে সমাজ…

নারী দিবস মানে নারীর অবমাননা

আজ আন্তর্জাতিক নারী দিবস। ঠিক এমন কোনো পুরুষ দিবস নাই। কারণটা পরিস্কার। বিশ্ব সমাজ ব্যবস্থা পুরুষ নিয়ন্ত্রিত এবং নারীর দাবির মুখে একটি দিবস তাদের উৎসর্গ করা হয়েছে। নারীর দাবি সমমর্যাদার। মর্যাদা সম হবে না অসম হবে তার নিয়ন্ত্রক পুরুষরা নয়, নিয়ন্ত্রক হচ্ছে এই সমাজ। সমাজ তার বিকাশের প্রয়োজনেই পুরুষের হাতে নিয়ন্ত্রণভার তুলে দিয়েছে বা দিয়েছিলো।আবার সমাজই পারে নারীকে সমমর্যাদায় বা নিয়ন্ত্রণের ভূমিকায় নিয়ে আসতে। এক সময় সমাজ বিকাশের শর্ত ছিল শ্রম নির্ভর। সেই যুগে ‘বীর পুরুষরা’ সমাজের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়। আস্তে আস্তে সমাজ…

রাজনৈতিক নেতৃত্বশূন্যতার পথে বাংলাদেশ

রাজনৈতিক নেতৃত্ব শূন্যতার কবলে পড়তে যাচ্ছে বাংলাদেশের রাজনীতি। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি হিসেবে ৫২’র ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে যে রাজনৈতিক নেতৃত্ব শুরু হয়েছিল, পরবর্তীতে ৬২’র শিক্ষা আন্দোলন , ৬৯’র গণঅভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে সেই নেতৃত্ব পরিপক্কতা লাভ করেছিল। সেই পরিপক্ক রাজনৈতিক নেতৃত্ব ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধকে নেতৃত্ব দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করে। কিন্তু, ৭১ পরবর্তী সেই নেতৃত্ব অন্তর্কলহে লিপ্ত হয়। ৬০ এর দশকে কম্যুনিস্ট নেতৃত্ব অত্যন্ত শক্তিশালী ছিল। সেই নেতৃত্ব তৎকালীন মূলধারার রাজনীতির সাথে সম্পর্কিত ছিল। ৬০…

‘স্বৈরাচারের পতন না হওয়া পর্যন্ত আমরা ঘরে ফিরবো না’

১৯৮২ সালের ২৪শে মার্চ তৎকালীন সেনাবাহিনী প্রধান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ তৎকালীন বিএনপি সরকারের রাষ্ট্রপতি শাসিত সরকারের রাষ্ট্রপ্রধান বিচারপতি আব্দুস সাত্তারকে বন্দুকের মুখে ক্ষমতা থেকে উচ্ছেদ করে সামরিক শাসন জারি করেন। তাকে যে বন্দুকের মুখে যে ক্ষমতা থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছিল; এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের সময় কোন এক প্রকাশ্য জনসভায় বিচারপতি আব্দুস সাত্তার তার বিস্তারিত বর্ণনা দিয়েছিলেন। আমি সেই জনসভায় উপস্থিত ছিলাম। সেই থেকে শুরু এরশাদের ৯ বৎসরের স্বৈরাচারী রাজনৈতিক আমল । ১৯৮৩ সালে সর্বপ্রথম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ছাত্রদের নেতৃত্বে…

কেনো তারা শান্তিতে নোবেল পেলো

শেষ পর্যন্ত নোবেল শান্তি পুরষ্কার পেয়েছে Tunisian National Dialogue Quartet নামক একটি সংগঠন। এই সংগঠনটির বাংলা অনুবাদ করলে দাড়ায় " চার জোট তিউনিসিয়ার জাতীয় সংলাপ"। এখানে Quartet এর বাংলা আভিধানিক অর্থ হচ্ছে "চৌপদী"। কিন্তু চৌপদী বলতে আসলে সমাজের চারটি বৃহৎ সামাজিক সংগঠন নিয়ে গঠিত জাতীয় সংলাপের উদ্যাগকে বোঝানো হচ্ছে। এই বৃহৎ জাতীয় সংলাপের উদ্যোক্তা মূলত: তিউনিসিয়ার নিম্নোক্ত সগঠনগুলোঃ ১। UGTT নামক তিউনিসিয়ান সাধারন শ্রমিক ইউনিয়ন (Tunisian General Labour Union) ২। Tunisian Confederation of Industry, Trade and Handicrafts…

‘নিষিদ্ধ’ যে পিটার ছিলেন ইউরোপীয় বামপন্থী আর জাসদের সংযোগসেতু

নাম পিটার কাস্টার্স। বাংলাদেশের বাম ও জাসদ রাজনীতিতে একটি পরিচিত নাম। মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের পক্ষে জনমত গঠনে বিশেষ ভূমিকা ছিল। কিন্তু পরবর্তীতে জাসদ রাজনীতির সাথে সংশ্লিষ্ট হওয়ার কারণে আওয়ামী লীগের বিরাগভাজন হন। অনেকে বলে থাকেন জাসদকে সেই সময়কার মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শত্রুরা অর্থ দিয়ে সাহায্য করেছিল। আসলে জাসদের বড় বন্ধু ছিলেন এই পিটার কাস্টার্স। তিনি ইউরোপের বামপন্থী সংগঠনগুলোর সঙ্গে জাসদের যোগাযোগ সেতু ছিলেন (তার ভাষায়)। বামপন্থী বিপ্লবীদের নানাভাবে তিনি সহযোগিতা করতেন। তিনি মৌলানা ভাসানির একজন অন্ধ ভক্ত ছিলেন, ভাসানির উপর…