চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

স্ট্রোক করে হাসপাতালে নির্মাতা সি বি জামান

ত্রিশ বছর পর সিনেমা নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছিলেন বাংলা চলচ্চিত্রের প্রখ্যাত নির্মাতা সি বি জামান। সেজন্য প্রাথমিক প্রস্তুতিও সম্পন্ন করেছিলেন। কিন্তু তার আগেই স্ট্রোক করে গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি ‘উজান ভাটি’ খ্যাত এই নির্মাতা।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় স্ট্রোক করেন সি বি জামান। এরপর দ্রুত তাকে নেয়া হয় রাজধানীর শমরিতা হাসপাতালে। পরে অবস্থা বেগতিক দেখে রাত সাড়ে ৯টার দিকে ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়।

বিজ্ঞাপন

সিবি জামানের শারীরিক অবস্থা নিয়ে বুধবার বিকেলে চ্যানেল আই অনলাইনের সঙ্গে কথা বলেন ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. আশীষ কুমার চক্রবর্তী। তিনি জানান, সি বি জামানের লেকুনার ইনফারক্ট (lacunar infarct) নামের একটি স্ট্রোক হয়েছে। সেইসঙ্গে উনার দীর্ঘদিন ধরেই উচ্চরক্তচাপ ও কিডনি ফাংশনও খারাপ এবং বয়স একটা ফ্যাক্টর। আর এসব কারণেই উনাকে নিয়ে একটু ঝামেলা হচ্ছে। তাই বলে বর্তমান অবস্থাকে আমরা আশঙ্কাজনক বলছি না,তবে তার অবস্থা আরো খারাপ হতে পারে।

তিনি আরো বলেন, যে জায়গাতে স্ট্রোকটা হয়েছে এটা ভাল জায়গা না। তবুও উনার সেরে উঠা নিয়ে আমরা আশাবাদী, বর্তমানে তিনি মাল্টিপল কনসালটেন্ট-এর অধীনে চিকিৎসাধীন আছেন, আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। বাকিটা সময়ই বলে দিবে।

১৯৯০ সালে সর্বশেষ ‘কুসুম কলি’ নামের চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছিলেন সি বি জামান। এর প্রায় ৩০ বছর পর সম্প্রতি প্রযোজনা-পরিবেশনা প্রতিষ্ঠান এসএইচকে গ্লোবাল এর ‘এডভোকেট সুরাজ’ চলচ্চিত্রের পরিচালক হিসেবে চুক্তিবদ্ধ হন তিনি।

সি.বি. জামান নিজের ক্যারিয়ার শুরু করেন ১৯৬৬ সালে লাহোর ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে অ্যাসিস্টেন্ট ডিরেক্টর হিসেবে। ১৯৭৩ সাল হতে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত সরাসরি চলচ্চিত্র পরিচালনার সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন তিনি। এ সময়ে তিনি নির্মাণ করেন একে একে ঝড়ের পাখি (১৯৭৩), উজান ভাটি (১৯৮২), পুরস্কার (১৯৮৩), শুভরাত্রি (১৯৮৫), হাসি (১৯৮৬), লাল গোলাপ (১৯৮৯) ও কুসুম কলি’র (১৯৯০) মতো কালজয়ী চলচ্চিত্র। এর মধ্যে ব্যবসায়িক সফলতার পাশাপাশি ১৯৮৬ সালে ৬টি ক্যাটাগরিতে পান জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

Bellow Post-Green View