চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কাবিলার বাড়ি নোয়াখালীতে অমির ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’!

কাজল আরেফিন অমির দর্শকপ্রিয় সিরিয়াল ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ এর পুরো টিম যাচ্ছে নোয়াখালীতে। এতদিন দর্শক এ সিরিয়ালের অন্যতম চরিত্র কাবিলার মুখে তার এলাকা নোয়াখালীর নাম শুনেছেন। এবার সেই এলাকা দেখা যাবে স্ক্রিনে! সেখানে ঘটতে থাকবে মজার সব কাণ্ড! 

চ্যানেল আই অনলাইনকে জানিয়েছেন কাজল আরেফিন অমি। এ নির্মাতা বলেন, নোয়াখালীর বিভিন্ন লোকেশনে সাত থেকে দশদিনের এক লট শুটিং করবো। সেখানে থাকবে কাবিলা, শুভ, হাবু ভাই, পাশা ভাইসহ অন্যরা। আশা করছি, গল্প আরও জমবে। তিনি বলেন, গল্পে আরও বৈচিত্র আনার জন্যই নোয়াখালীর নাম ও চরিত্রগুলো স্ক্রিনে আনতে চাই।

বিজ্ঞাপন

প্রথম সিজনে কাবিলার চরিত্রে নোয়াখালীর কিছু অংশ দেখানো হয়েছিল। তবে ওই সব দৃশ্যের শুটিং নোয়াখালীতে হয়নি। ঢাকার আশপাশেই শুটিং করা হয়েছিল। অমি বলেন, এবার সত্যি সত্যি নোয়াখালীতে শুটিংয়ে যাচ্ছে ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ টিম।

ব্যাচেলর পয়েন্টের তৃতীয় সিজনে কাবিলা চরিত্রে জিয়াউল হক পলাশ, শুভ চরিত্রে মিশু সাব্বির, রিয়া চরিত্রে সানজানা সরকার রিয়া, হাবু ভাই চরিত্রে চাষী আলম, পাশা ভাই চরিত্রে অভিনয় করছেন মারজুক রাসেল। চরিত্রগুলো দর্শকদের কাছে তুমুল জনপ্রিয়।

বলা বাহুল্য, প্রত্যেক শিল্পীই নিজস্ব নামের বাইরে ব্যাচেলর পয়েন্টের চরিত্রগুলো দিয়ে যেন বেশি দর্শক সমাদৃত হয়েছেন।

অন্যান্য চরিত্রে অভিনয় করছেন আবদুল্লাহ রানা, মনিরা মিঠু, সাবিলা নূর, মুসাফির শোয়েব বাচ্চু, মুকিত জাকারিয়া, শিমুল শর্মা প্রমুখ।

আগামীতে দেখা যাবে সুমন পাটোয়ারী, শরাফ আহমেদ জীবনকে। এর আগে ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ এর প্রথম দুই সিজনে ছিলেন আরও জনপ্রিয় দুই চরিত্র তৌসিফ মাহবুব (নেহাল), শামীম হাসান সরকার (আরেফিন)।

সঙ্গত কারণে তৃতীয় চলমান পর্বে তারা নেই! পরিচালক অমি বলেন, গল্প ডিমান্ড করলে ভবিষ্যতে তারা আসতেও পারে!

ব্যাচেলর পয়েন্টের তৃতীয় সিজনে ১৩ পর্ব প্রচার হয়েছে। মোশন রকের ব্যানারে প্রতি পর্বই ধ্রুবই টিভির ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ হচ্ছে। মুক্তির পরেই রেকর্ড পরিমাণ ভিউস দেখা যায়। নির্মাতা অমির মতে, এ নাটকের জন্য প্রবাসীরাও অপেক্ষা করেন। মুখিয়ে থাকেন নতুন পর্বের জন্য। তিনি বলেন, দর্শকদের প্রকৃত ভালোবাসা পাই বলেই অ্যাফোর্ডে কমতি থাকেনা।

দর্শকের মতে, ব্যাচেলর পয়েন্ট নাটকের ‘প্রাণ ভোমরা’ কাবিলা ওরফে জিয়াউল হক পলাশ। নাটকের গল্পে দেখা যায়, নোয়াখালী থেকে রাজধানীতে লেখাপড়া করতে আসেন পলাশ। তার মুখে নোয়াখালীর ভাষা ও নোয়াখালীর বিভিন্ন ব্যক্তি ও স্থানের নাম শোনা যায়। সেই পলাশের নিজ এলাকা নোয়াখালীতে হচ্ছে শুটিং। তিনি নিজেও বিষয়টি নিয়ে উচ্ছ্বসিত।

চ্যানেল আই অনলাইনকে জিয়াউল হক পলাশ বলেন, আমার নিজের এলাকা নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি। সেখানে শুটিং করবো। পার্শ্ববর্তী জেলা ফেনীতেও কিছু শুটিং হতে পারে। নাটকে বজরা বাজার, জাকিরসহ বিভিন্ন চরিত্রের নাম শোনা যায়। প্রত্যেকেই প্রকাশ্যে আসবে।

মুঠোফোনের ওপাশে থাকা নোয়াখালীর প্রেমিকা রোকেয়ার দেখা পাওয়া যাবে কিনা জানতে চাইলে পলাশ বলেন, চমক হিসেবেই থাকুক। বাকিটা সময় বলে দেবে। তবে নিজ এলাকায় আগামীতে শুটিং করতে যাচ্ছি। ভাবতেই অন্যরকম ফিল হচ্ছে।