চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

টরন্টোর বাংলাদেশ কনস্যুলেটে শেখ কামালের জন্মবার্ষিকী পালন

বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল টরন্টোতে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুর বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের ৭৩তম জন্মবার্ষিকী পালন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে বাংলাদেশ কনস্যুলেট প্রাঙ্গনে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠান সূচিতে ছিল রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর বানী পাঠ, বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা জ্ঞাপন, তথাচিত্র ও বক্তব্য উপস্থাপন এবং বিশেষ মোনাজাত।

Reneta June

উপস্থিত বক্তারা তাদের আলোচনায় বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের গৌরবোজ্জ্বল জীবন ও কর্মের উপর আলোকপাত করেন। আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে তার অনন্যসাধারণ ভূমিকা এবং অবদানের কথা শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন।

বিজ্ঞাপন

কনসাল জেনারেল মোঃ লুৎফর রহমান বক্তব্যের শুরুতে জাতির পিতার স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্টের কালরাত্রিতে নির্মমভাবে নিহত সব শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।

তিনি বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল ছাত্র হিসেবে যেমন ছিলেন অত্যন্ত মেধাবী তেমনি ছিলেন সেরা ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংগঠক এবং সংস্কৃতি জগতের এক উজ্জল নক্ষত্র। আবাহনী ক্রীড়াচক্র, স্পন্দন শিল্পী গোষ্ঠী প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে তিনি অমর হয়ে আছেন। অফুরন্ত প্রাণশক্তির অধিকারী তিনি ছিলেন অত্যন্ত বিনয়ীভদ্র ও নিরহংকারী। ১৫ আগস্টের কালরাত্রিতে স্বাধীনতা বিরোধীরা তাকে নির্মমভাবে হত্যা করে। কিন্তু তার আদর্শ ও দিকনির্দেশনা অনুকরণীয় হয়ে আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। এ দেশের ক্রীড়াঙ্গনকে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে আরও সাফল্য মণ্ডিত করবে।

সবশেষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৫ আগস্টে নিহত সকল শহিদের বিদেহী আত্মার শাস্তি কামনা করে মোনাজাত করা হয়।