চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

অমিতাভের ‘মুন্সিগিরি’ দেখে মুগ্ধ মাসুদ মুন্সির স্রষ্টা

৩০ সেপ্টেম্বর দেশীয় ওটিটি প্লাটফর্ম চরকিতে মুক্তি পেয়েছে অমিতাভ রেজা চৌধুরী পরিচালিত ওয়েব ফিল্ম ‘মুন্সিগিরি’। যা দেশে দর্শক জানাচ্ছেন মিশ্র প্রতিক্রিয়া।গোয়েন্দা গল্প হিসেবে অনেকে ওয়েব ফিল্মটির সমালোচনা করলেও এটি দেখে নিজের মুগ্ধতার কথা জানালেন গোয়েন্দা মাসুদ মুন্সির স্রষ্টা শিবব্রত বর্মন।

ওয়েব ফিল্মটি দেখে নিজের মুগ্ধতার কথা শুধু নয়, এমন আটপৌড়ে বাঙালি একটি গোয়েন্দা চরিত্রকে চলচ্চিত্রে রূপদান করার জন্য কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন নির্মাতা অমিতাভ রেজা চৌধুরীকেও।

ওয়েব ফিল্মটিতে দেখা যায়, চাঞ্চল্যকর ‘তিতাস গ্যাস কমকর্তা হত্যা’ মামলা পুলিশের ডিটেকটিভ ব্রাঞ্চে হস্তান্তর হলে তদন্তের ভার ন্যস্ত হয় ডিটেক্টিভ ব্রাঞ্চের এডিসি মাসুদ মুন্সির ওপর। স্ত্রী পারভীন সুলতানার সহযোগীতায় মাসুদ মুন্সি তার রহস্য উদঘাটেনর সাবেকি পদ্ধতিকে কাজে লাগিয়ে উন্মোচন করে এক গোপন প্রতিশোধের গল্প।

গোয়েন্দা চরিত্র মানেই একাই একশো। যে কোনো জটিল কঠিন সমস্যার সমাধানে তার বুদ্ধি এবং দক্ষতা সর্বেসর্বা। দেশি বিদেশি সিনেমায় গোয়েন্দা চরিত্রের যে ভাবমূর্তি দর্শকের মগজে, সেটা অনেকটাই এরকম। কিন্তু গোয়েন্দা মাসুদ মুন্সি এই জায়গায় একেবারে সাদামাটা গোছের। এই চরিত্রটির স্রষ্টার কথাতেও বিষয়টি স্পষ্ট হয়।

বিজ্ঞাপন

তিনি তার চরিত্র নিয়ে বলেন, বছর তিনেক আগে একটা উপন্যাস লিখেছিলাম ‘মৃতেরাও কথা বলে’ নামে। যেখানে আমি এমন এক গোয়েন্দা চরিত্র সৃষ্টির চেষ্টা করেছি, যাকে ভিড়ের মধ্যে আলাদা করা যাবে না, কাহিনির ভিতরে সেই গোয়েন্দা মিশে থাকবে প্রায় অদৃশ্য হয়ে। সব গোয়েন্দা কাহিনিতে গোয়েন্দা চরিত্রটি কাহিনিকে ছাপিয়ে উপরে উঠে আসে, নিয়ন্তা হয়ে ওঠে রহস্য সমাধানের, একটা ঐশ্বরিক অবস্থান নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে। আমি এর উল্টোটা করার চেষ্টা করেছিলাম। আমি চেয়েছি, কাহিনির কলকব্জার ভিতর থেকে রহস্য নিজেই নিজেকে উন্মোচন করবে।

‘মুন্সিগিরি’ দেখে নিজের ভালো লাগার কথা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানিয়ে শিবব্রত বর্মন বলেন, অমিতাভের ‘মুন্সিগিরি’ মুভি দেখলাম। আমার ভালো লেগেছে। আমার লেখা উপন্যাস অবলম্বনে তিনি এই মুভি বানিয়েছেন। আমি বলব, উপন্যাসের নির্যাস বা এসেন্সটা তিনি ধরতে পেরেছেন। পর্দায় তিনি একটা আটপৌরে গোয়েন্দা উপহার দিতে পেরেছেন, যিনি হিরো নন, যিনি লাউড নন।

এই কথাসাহিত্যিক বলেন, কোনো লেখকই তার সাহিত্যকর্মের মুভি অ্যাডাপটেশনে সন্তুষ্ট হতে পারে না। আমাকে অমিতাভ সন্তুষ্ট করেছেন। বাংলা চলচ্চিত্রে অমিতাভ এমন এক গোয়েন্দাকে হাজির করেছেন, যিনি শোবার সময় মশারি টাঙান।

চলতি বছরের শুরুতেই আনুষ্ঠানিকভাবে ‘মুন্সিগিরি’ ওয়েব ফিল্মটির ঘোষণা দেয়া হয়। তখন অমিতাভ রেজা জানিয়েছিলেন, এই সিনেমাটি ফ্র্যাঞ্চাইজি আকারে নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। অর্থাৎ বলিউডে যেমন ‘ধুম’, টালিউডের ‘ফেলুদা’ কিংবা হলিউডের ‘অ্যাভেঞ্জার্স’ সিরিজের মতো করেই নির্মিত হবে ‘মুন্সিগিরি’।

ওয়েব ফিল্মটিতে মাসুদ মুন্সির চরিত্রে অভিনয় করেছেন চঞ্চল চৌধুরী। এছাড়াও এতে অভিনয় করেছেন গাজী রাকায়েত, শহীদুজ্জামান সেলিম, পূর্ণিমা, আহসান হাবিব নাসিম, শবনম ফারিয়া প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন