চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বন্যার্তদের সাহায্যে মানবিক হাত বাড়িয়ে দিন

সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলায় স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যায় মানুষ নানা বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে। সব জায়গায় বন্যার পানি অসহায়ত্বের সর্বোচ্চ সীমা অতিক্রম করেছে। ভেঙে যাচ্ছে ঘর-বাড়ি, নদী গর্ভে হারাচ্ছে জনপদ। পানির ওপর ভাসছে মানুষ, ভাসছে প্রাণীরা। স্বাধীনতার ৫০ বছরেও বন্যার এমন ভয়াবহতা দেখেননি সিলেটবাসী। মানবিক সংকটের এই দু:সময়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর সদস্যরা। বিভিন্ন সংগঠনও সাধ্যমতো পাশে দাঁড়াতে শুরু করেছে।

গণমাধ্যমে প্রকাশ, সিলেট এলাকায় এবারের বন্যা দেশের আগের সব রেকর্ড ভেঙেছে। উজান থেকে আসা পাহাড়ী ঢলে ও বৃষ্টিপাতে সিলেট বিভাগের প্রায় ৮০ শতাংশ এলাকা এখন পানির নিচে। এ অবস্থায় হুমকির মুখে জনজীবন। দেশের যখন এমন ভয়ংকর অবস্থা, তখন বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ানো সবার মানবিক দায়িত্ব বলে আমরা মনে করি।

Reneta June

মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে সারাদেশেই গত ২৪ ঘন্টায় বৃষ্টিপাত হয়েছে। আজ শনিবার সারাদেশে বজ্রসহ ভারী বর্ষণের পূর্বাভাস দিয়ে রেখেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এই আবহাওয়া খুব একটা পরিবর্তনের সম্ভবনা নেই আগামী ৩ দিনে। তাই আগামী তিন দিনে বন্যা পরিস্থিতি আরও অবনতির আশঙ্কা করছেন আবহাওয়াবিদরা।

বিজ্ঞাপন

ইতিমধ্যে সিলেট-সুনামগঞ্জ মারাত্মক পরিস্থিতি ছাড়াও বিভিন্ন জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে। শেরপুরে বন্যার পানিতে ডুবে মৃত্যু হয়েছে তিনজনের। নেত্রকোণায় পানিবন্দী হয়ে পড়েছে প্রায় ৫ লাখ মানুষ। বিচ্ছিন্ন আছে নেত্রকোণাার সাথে ঢাকার রেল যোগাযোগ। যমুনা-ব্রহ্মপুত্র ধরলার পানি বেড়ে সিরাজগঞ্জ-কুড়িগ্রামেও পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে।

দুর্যোগে জীবন ও সম্পদের ঝুঁকি হ্রাসের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা বর্তমানে বিশ্বে ‘রোল মডেল’ বলে সরকার দাবি করে এসেছে বিভিন্ন সময়ে। বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলার সফল ইতিহাসও রয়েছে, তারপরেও বিগত বছরগুলোতে নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগে আমাদের অপ্রস্তুত পরিস্থিতির নগ্নচিত্র প্রকাশিত হয়েছে! আমরা মনে করি, দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনায় বিশেষ নজর দেয়া খুবই জরুরি বলে।

বৃহত্তর সিলেটে বন্যার্তরা বিদ্যুত-মোবাইল নেটওয়ার্ক বিচ্ছিন্ন অবস্থায় থেকে মারাত্মক ঝুঁকিতে রয়েছে। শুকনা খাবার, নিত্য প্রয়োজনীয় ওষুধ আর জ্বালানির অভাবের নানা খবর প্রকাশিত হতে শুরু করেছে গণমাধ্যমে। এছাড়া আরেকটি বিষয় বিশেষভাবে নজরে এসেছে, তা হলো বন্যা কবলিত এলাকায় যোগাযোগ মাধ্যম ও তার অস্বাভাবিক ভাড়া। সাধারণ একেকটি নৌকার ভাড়া যেখানে শত টাকার ঘরে ছিল, তা কয়েক হাজার টাকা দাবি করছে অনেকে। খাদ্যদ্রব্যের বাড়তি দামেরও অভিযোগ উঠেছে। এসব দিকে প্রশাসনের বিশেষ নজর প্রয়োজন, সেসঙ্গে আপদকালীন সময়ে মানুষের প্রতি মানবিক হবার শিক্ষা আমাদের নিতে হবে। বাড়িয়ে দিতে হবে সাহায্যের হাত।