চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সড়ক যোগাযোগে সাফল্যের বছর

সড়ক যোগাযোগ অবকাঠামোর দিক থেকে সাম্প্রতিককালের সবচেয়ে সফল বছর ২০১৫। সরকারের অগ্রাধিকারভিত্তিক বেশিরভাগ বড় প্রকল্পেরই মূল অংশের কাজ শুরু হয় এ বছর।

বিজ্ঞাপন

পদ্মাসেতুর পাইলিংয়ের কাজ শুরুর পাশাপাশি চলছে মেট্রোরেল এবং এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণ কাজও।

নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত হচ্ছে যোগাযোগ খাতে দেশের সবচেয়ে বড় প্রকল্প পদ্মা বহুমুখী সেতু। বিজয়ে মাসে বিজয়ের আর এক মাইলফলক হিসেবে ১২ ডিসেম্বর মূলসেতু নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ইতোমধ্যে ২৬ ভাগ কাজ শেষ। পুনর্বাসনের কাজও শেষ পর্যায়ে।

মেট্রোরেলের কাজ শুরু হয়ে গেছে। মাটি পরীক্ষার কাজ প্রায় শেষ। মূল নির্মাণ কাজের দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। ভূমি অধিগ্রহণও শেষ। শুরু হয়েছে মেট্রোরেলের ইঞ্জিন কেনার প্রক্রিয়াও।

স্থাপত্যবিদ জামিলুর রেজা চৌধুরী বলেন, ২০১৫ সালে সড়ক ও যোগাযোগ অবকাঠামো খাতে অনেকগুলো অগ্রগতি হয়েছে। এর মধ্যে প্রথমেই আসবে পদ্মসেতু।

পিপিপি‘র আওতায় বিমানবন্দর সড়ক থেকে চট্টগ্রাম রোডের কুতুবখালি পর্যন্ত এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে এ বছরের ১৬ আগস্ট।

ঢাকা-ময়মনসিংহ চার লেনের ৯০ ভাগ কাজ শেষ। বাকি আছে ১০ কিলোমটিার মূল সড়কে সার্ফেসিং আর মাটির কাজ। উদ্বোধন করা হবে আগামী বছরের শুরুতে।

ঢাকা-চট্টগ্রাম ১‘শ ৯২ কিলোমিটার মহাসড়ক চার লেন করার কাজের ৬৭ ভাগ এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। কুমিল্লা থকে মহিপাল পর্যন্ত মুল সড়কের কাজ প্রায় শেষ। চলছে ফেনী থেকে চট্টগ্রাম সিটি গেট পর্যন্ত

মগবাজার মৌচাক ফ্লাইওভারের সাত রাস্তা থেকে মগবাজার পর্যন্ত নির্মাণ কাজ শেষ পর্যায়ে। আগামী বছরের মার্চে এ অংশ চালু করা হবে। জুনে চালু করা হবে বাংলামোটর থেকে মৌচাক অংশ।

রাজধানীর ঢাকার সাথে পার্শবর্তী জেলাগুলোর যোগযোগ আরও দ্রুত ও সহজ করতে চলতি বছরে বাস র‌্যাপিড ট্রানজিটের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে বিমানবন্দর সড়ক থেকে গাজীপুর চৌরাস্তা পর্যন্ত বাস র‌্যাপিড ট্রানজিটের নকশা প্রনয়ণের কাজ চলছে।

বিজ্ঞাপন

Bellow Post-Green View