চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

যানজটে আটকা বিক্ষুব্ধ যাত্রীদের হামলার শিকার কর্তব্যরত কয়েকজন সাংবাদিক

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে তীব্র যানজট বিষয়ে সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে চ্যানেল আইয়ের টাঙ্গাইল প্রতিনিধি মুসলিম উদ্দিন আহমেদ ও ক্যামেরাপার্সন আরিফুল ইসলামসহ কর্তব্যরত কয়েকজন সাংবাদিক যানজটে আটকা বিক্ষুব্ধ যাত্রীদের হামলার শিকার হয়েছেন।

রবিবার দুপুরে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

বিজ্ঞাপন

মারধরে আরিফুল ইসলাম আহত হয়েছেন। ভেঙে গেছে টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারে ব্যবহৃত প্রায় অর্ধলক্ষ টাকার সরঞ্জাম। এছাড়া দু’জন সংবাদকর্মীর সঙ্গে থাকা সব অর্থ কেড়ে নেয় হামলাকারীরা।

চ্যানেল আই অনলাইনকে মুসলিম উদ্দিন জানান, সিরাজগঞ্জের দুই লেন বিশিষ্ট মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে ভাঙাচোরা থাকার কারণে ঈদে ঘরমুখো মানুষদের নিয়ে আসা অতিরিক্ত সংখ্যক যানবাহনের ভিড়ে সেখানে তীব্র যানজট। ভয়াবহ জ্যামের দুর্ভোগে প্রচণ্ড বিক্ষুব্ধ রাস্তায় আটকে থাকা যাত্রীরা। ভয়ে কোনো পুলিশ সদস্য রাস্তায় নেই। তারা নিরাপদ দূরত্বে অবস্থান করছে। পুলিশ ভয়ে যেখানে নিরাপদ দূরত্বে সেখানে আমরা মাঠে কাজ করে যাচ্ছি। মানুষের দুর্ভোগ তুলে ধরছি। উল্টো তারা আমাদের উপর হামলা করল!’

হামলা সম্পর্কে চ্যানেল আইয়ের টাঙ্গাইল প্রতিনিধি জানান, ‘আমাকে অফিস থেকে বলা হয়েছিল লাইভ দিতে হবে। আমি সকাল সাড়ে ৮টার দিকে স্পটে। আমার নিয়মিত ক্যামেরাম্যান মাসুদ রানা অসুস্থ থাকায় আরিফুল ইসলাম নামের অন্য একজনকে নিয়ে টাঙ্গাইল শহরের রাবনা বাইপাস এলাকায় গিয়েছিলাম। সম্ভবত কারিগরি কিছু ত্রুটির কারণে আমার লাইভ বাতিল করা হয় ৯টা ৫ মিনিটে। এরপরই যাত্রীরা ক্ষেপে যায়।’

বিজ্ঞাপন

মুসলিম উদ্দিন বলেন, যাত্রীরা ক্ষেপে গিয়ে  হইচই করে অভিযোগ করতে থাকে, গণমাধ্যম কর্মীরা সবসময় সরকারের জয়গান গায়। ওই সময় এই দুর্ভোগের জন্য তারা সড়ক পরিবহন ও সেতু বিষয়ক মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে দায়ী করেও রোষ প্রকাশ করতে থাকে। এমন সময় হঠাৎ করে একদল লোক ক্যামেরা ও লাইভের সরঞ্জামসহ দাঁড়িয়ে থাকা আরিফুলের ওপর হামলা করে তাকে মারধর শুরু করে।

তিনি জানান, তাকে মারধর না করা হলেও তার সঙ্গে মানিব্যাগে থাকা সব টাকা ছিনিয়ে নেয় কয়েকজন। তার মোটরসাইকেলটিও পুড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হলে ওই সময় স্থানীয় এক পরিচিত ব্যক্তির সহায়তায় এ যাত্রায় রক্ষা পান তারা।

‘এর আগেই অবশ্য আমি সেখান থেকে চলে আসতে চেয়েছিলাম। কিন্তু পরিস্থিতি প্রতিকূলে ছিল। চলে এলেও হামলা হবে, আবার থাকলেও হামলা হবে, এতটাই বিক্ষুব্ধ ছিল লোকজন।’

তিনি আরও জানান, কাছাকাছি সময়ে আরও কয়েকটি টিভি চ্যানেলের সংবাদকর্মীরা যানজট পরিস্থিতি কাভার করতে গিয়ে একই ধরনের হামলার শিকার হয়েছেন।

‘সময় টিভির কাদির তালুকদারকে ধাওয়া করেছে একদল। ইন্ডিপেনডেন্টের মামুনুর রহমান মিয়াকে একঘণ্টা আটকে রাখা হয়েছিল। আরও কয়েকজনও এ পরিস্থিতির শিকার।’ তারা রাবনা থেকে এলেঙ্গা যাওয়ার পথে একেকজন একেক স্থানে হামলার মুখে পড়েছিলেন বলে জানান চ্যানেল আইয়ের এ প্রতিনিধি।

Bellow Post-Green View