চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মিয়ানমারে অভ্যুত্থান ব্যর্থ করতে জাতিসংঘ মহাসচিবের আহ্বান

জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস মিয়ানমারে ঘটে যাওয়া সেনা অভ্যুত্থানকে ব্যর্থ করে দিতে বিশ্ব নেতৃত্বের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেছেন, নির্বাচনের বিপরীতমুখী পরিবর্তন অগ্রহণযোগ্য। অভ্যুত্থানে জড়িত নেতাদের অবশ্যই বুঝতে হবে যে, দেশকে শাসন করার কোনো পথ এটা নয়।

এর আগে বুধবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ এই অভ্যুত্থানের নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দেয়ার উদ্যোগ নিলে তাতে ভেটো দেয় চীন।

বৃহস্পতিবার জাতিসংঘ মহাসচিব মিয়ানমারে সাংবিধানিক আদেশ পুনঃপ্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়েছেন। তার আশা এই বিষয়ে নিরাপত্তা পরিষদ ঐক্যবদ্ধ থাকবে।

তিনি বলেন, ‘এই অভ্যুত্থান যাতে ব্যর্থ হয় তা নিশ্চিত করার জন্য মিয়ানমারের উপর পর্যাপ্ত চাপ দিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সব নেতাদের একত্রিত করতে আমাদের যা করা সম্ভব আমরা তাই করবো।’

‘‘নির্বাচনের ফলাফল ও জনগণের ইচ্ছেকে ঘুরিয়ে দেওয়া কখনোই গ্রহণযোগ্য নয়। আমার আশা মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে বোঝানো সম্ভব যে, এটা দেশ শাসনের কোনো পথ নয় এবং সামনে এগিয়ে যাওয়াও পথ নয়।’’

সেনাবাহিনী ও বেসামরিক সরকারের মধ্যে নির্বাচনে জালিয়াতি নিয়ে বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে চলমান উত্তেজনার মধ্যেই সোমবার মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থান ঘটে।

তার পরপরই এনএলডির শীর্ষ নেত্রী অং সাং সু চি, দেশটির প্রেসিডেন্ট এবং মন্ত্রিসভার সদস্যসহ প্রভাবশালী রাজনীতিকদের আটক করে সেনাবাহিনী।

পরে সেনাবাহিনী এক ঘোষণায় জানায়, আগামী ১ বছরের জন্য মিয়ানমারের ক্ষমতায় থাকবে তারা।

তবে সেনাবাহিনীর এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে এরই মধ্যে প্রতিবাদ শুরু করেছে মিয়ানমারের বিভিন্ন পেশাজীবী এবং নাগরিকদের বড় একটা অংশ।

অভ্যুত্থানের পর থেকে সু চি কোথায় আছেন তা এখনও পরিস্কার করেনি দেশটির সেনাবাহিনী। যদিও তার বিরুদ্ধে বেশ কিছু অভিযোগ আনা হয়েছে। এর মধ্যে একটি অভিযোগ; আমদানি-রপ্তানি আইন ভঙ্গ এবং অবৈধভাবে যোগাযোগ ডিভাইস (ওয়াকিটকি) ব্যবহার করা।

এই অভিযোগে ক্ষমতাচ্যুত স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চির ১৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন দেশটির একটি আদালত। অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার ২ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে।