চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ফিফার মতো বাফুফেতেও ক্ষমতার দ্বন্দ্বের ঝড়

ফিফার সঙ্গে কার্যকারণের কোনো মিল নেই। কিন্তু ফিফার মতো বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনেও ঝড় চলছে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। তারা বলছেন, এর কারণ ক্ষমতার দ্বন্দ্ব যাতে জড়িয়ে পড়েছেন বাংলাদেশ ফুটবলের দুই ‘হেভিওয়েট’ সালাম মুর্শেদী এবং মঞ্জুর কাদের।

দু’জনই ফেডারেশনের শীর্ষ কর্তা ব্যক্তি। সালাম মুর্শেদী বাফুফের সিনিয়র সহসভাপতি এবং প্রফেশনাল লিগ কমিটির চেয়ারম্যান। আর মঞ্জুর কাদের বাফুফে লিগ কমিটির চেয়ারম্যান এবং শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের সভাপতি। তাদের দুজনের দ্বন্দ্ব এখন অনেকটা প্রকাশ্য বলেই নাম প্রকাশ না করার শর্তে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

তাদের বক্তব্য অনুযায়ী, ঘটনার সুত্রপাত ফুটবল মাঠে নয়, বরং মিরপুরের হোম অফ ক্রিকেটে।

ওই ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বাফুফের এক কর্মকর্তা বলেন, গত ২৫ অক্টোবর বাংলাদেশ স্পোর্টস জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশন এবং বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের মধ্যে একটি আয়োজন করা হয় প্রদর্শনী ক্রিকেট ম্যাচ আয়োজন করা হয়। বিসিবির একজন পরিচালক হিসেবে ওই ম্যাচে উপস্থিত ছিলেন মঞ্জুর কাদেরও। সেখানেই বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনকে ‘একহাত’ নেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

প্রসঙ্গ ছিলো চট্টগ্রামে সফলভাবে শেষ হওয়া শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট। বাফুফের ক্যালেন্ডার থেকে স্বাধীনতা কাপ এবং সুপার কাপ বাদ দিয়ে এ ধরনের টুর্নামেন্ট আয়োজন করায় বাফুফের কড়া সমালোচনা করেছিলেন মঞ্জুর কাদের। ফুটবল লিগ কমিটির চেয়ারম্যান পদ থেকেও সড়ে দাঁড়ানোর ইঙ্গিতও দিয়েছিলেন তিনি। সেদিন ওই ইস্যুতে মঞ্জুর কাদেরের পাশে দাঁড়িয়ে ঢাকা মোহামেডানের ডাইরেক্টর ইনচার্জ লোকমান হোসেন ভূঁইয়াও বাফুফের সমালোচনা করেছিলেন বলে আরেক কর্মকর্তা জানান।

বাফুফে সূত্রে জানা যায়, এরকম মন্তব্যে দুই সংগঠকের উপর বিরক্ত হয় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। ‘লাগামহীন’ কথাবার্তা ও গালিগালাজ দিয়ে গণমাধ্যমে বক্তব্যের জন্য মঞ্জুর কাদের এবং লোকমান হোসেনকে শোকজ নোটিশ পাঠায় বাফুফে। ৪৮ ঘন্টার মধ্যে জবাব দিতে বলা হয় তাদের।

পরের বিতর্কটা অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হোম ম্যাচের আগের দিন।

জাতীয় দলের ১০ ফুটবলারকে অনেকটা জোর করে শেখ জামাল ক্লাবে নিয়ে গিয়ে বিতর্কের জন্ম দেন লেফটেনেন্ট শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের প্রেসিডেন্ট মঞ্জুর কাদের। এমন ঘটনায় তাকে ৪৮ ঘন্টার সময় দিয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠায় ফুটবল ফেডারেশন। কিন্তু নোটিশের জবাবে বাফুফের কাছে তার ১ কোটি ৪৪ লাখ টাকা পাওনা দাবি করে পাল্টা চিঠি পাঠিয়েছেন মঞ্জুর কাদের। একই সঙ্গে পেশাদার লিগ কমিটি থেকে সালাম মুর্শেদীর অপসারণও চেয়েছেন তিনি।

আগামী ২৬ ডিসেম্বর নতুন মৌসুমের দলবদলের তারিখ। তবে চ্যাম্পিয়ন শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব জানিয়েছে, এর মধ্যে সালাম মুর্শেদী পদত্যাগ না করলে আসন্ন দলবদলে অংশ নেবে না মঞ্জুর কাদেরের দল শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব।