চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘টেস্টে আফগানিস্তানের চেয়ে আমরা অনেক এগিয়ে’

টেস্ট আঙিনায় পদার্পণের পর মাত্র দুটি ম্যাচ খেলা আফগানিস্তান শুক্রবার বাংলাদেশ সফরে আসছে। চট্টগ্রামে সিরিজের একমাত্র টেস্ট শুরু ৫ সেপ্টেম্বর।

অভিজ্ঞতায় ঘাটতি থাকলেও দলটির স্পিন আক্রমণ বরাবরই সমীহ জাগানিয়া। বিশেষ করে রঙিন পোশাকে। নতুন অধিনায়ক রশিদ খান ছাড়াও দলটিতে আছেন মোহাম্মদ নবী, কাইস আহমেদের মতো বিশ্বমানের স্পিনার।

বিজ্ঞাপন

তবে লাল বল ও সাদা পোশাকের টেস্ট ক্রিকেটে ব্যাটসম্যানদের প্রতিরোধের সুযোগ অবারিত থাকায় প্রতিপক্ষ আফগানদের স্পিন নিয়ে অতটা ভয়ের কারণ দেখছেন না মেহেদী হাসান মিরাজ। বাংলাদেশের অভিজ্ঞতার ঝুলি ভারী হওয়ায় আত্মবিশ্বাস প্রতিফলিত হল টাইগার অলরাউন্ডার কণ্ঠে।

বিজ্ঞাপন

‘আমাদের স্পিনারদের অভিজ্ঞতা অনেক। বিশেষ করে সাকিব ভাই প্রায় ১৩-১৪ বছর ক্রিকেট খেলে ফেলেছে, সফল একজন খেলোয়াড়, বিশ্বমানের বোলার ও অলরাউন্ডার। তাইজুল ভাই হয়ত আর একটা উইকেট পেলে টেস্টে একশ উইকেট হয়ে যাবে। আমারও তিন বছর টেস্ট খেলার অভিজ্ঞতা হয়েছে। এই সময়টায় যে অভিজ্ঞতা হয়েছে, আমি বলব ওদের থেকে আমাদের টেস্ট ক্রিকেটের অভিজ্ঞতা ভালো।’

‘ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টি ক্রিকেটের চাইতে টেস্ট অনেক ভিন্ন। যেটা (সাদা বলের ক্রিকেটে) ওদের স্পিনাররা করে আসছে, যেমন- ওরা ওয়ানডে, টি-টুয়েন্টিতে রান চাপিয়ে বল করে বা বিভিন্ন জায়গা বল করে থাকে। এটার জন্য হয়ত ব্যাটসম্যান চার্জ করে থাকে। টেস্ট ক্রিকেটে কিন্তু ওরকম কিছু নেই। যে জোর করে মারা বা চার্জ করে খেলা। যতক্ষণ ভালো করবে ততক্ষণ সমীহ পাবে। একটা বল খারাপ করলে ওটাই মারবে। আর ধৈর্য্য সহকারে বোলার কতক্ষণ বল করতে পারে? এটাই, বোলারের ধৈর্য্য। ওরা কতটুকু করবে বা কতটুকু প্রস্তুতি নিয়ে আসবে সেটা তারাই ভালো জানে। তবে আমি মনে করি ওদের থেকে টেস্টে আমরা অনেক এগিয়ে আছি। শতভাগ দিতে পারলে ফলাফল আমাদের দিকেই আসবে।’

মিরাজের মূল শক্তির জায়গা বোলিং। অথচ অনুশীলনে আঙুলে চোট পাওয়ায় বল করতে পারছেন না এ অফস্পিনার। সাকিব-তাইজুলদের সঙ্গে আফগানিস্তানের বিপক্ষে টেস্টে বল করতে হলে দ্রুতই পুরোপুরি ফিট হয়ে উঠতে হবে তাকে। আগামী বুধবার ঘোষণা করা হতে পারে ১৪ সদস্যের স্কোয়াড। ১৯ টেস্টে ৮৬ উইকেট শিকার করা এ তরুণ স্পিনারকে দলে থাকতে হলে পেতে হবে ফিটনেসের ছাড়পত্রও।

Bellow Post-Green View