চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

এখন ঘরে ঘরে থাকবে ‘রাঁধুনী রোবট’

অফিস করে বাসায় ফিরতেই অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। সেখানে প্রতিদিন মজার মজার রান্না করার সুযোগ কোথায়? অফিস করেও যারা ঘরে তৈরি খাবার খেতে চান তারা এখন আর বেশি কিছু চিন্তা না করলেও চলবে। কারণ রান্নার কাজটা সহজ করে দিতে এখন এসে যাচ্ছে ‘শেফ রোবট’। আপনি শুধু দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখবেন আর নিমেষে তৈরি হয়ে যাবে সব মজার মজার খাবার।

জার্মানীতে এবছর ইন্ডাস্ট্রিয়াল টেকনোলজি নিয়ে অনুষ্ঠিত সবচেয়ে বড় ট্রেড ফেয়ার হ্যানোভার মেসিতে এই ধারণাটিকেই প্রতিষ্ঠিত করেছে মোলে রোবোটিকস।

কোনো খাবার তৈরির সময় মানুষ ঠিক যেমন আচরণ করে সেটাকেই অনুসরণ করবে এই রোবট। আর মানুষের এই আচরণই সে তার জন্য কমান্ড হিসেবে গ্রহণ করবে।  সঙ্গে সঙ্গে রোবট তার কাজ করা শুরু করে দেবে।

Advertisement

কর্মঠ এই রোবটগুলোকে প্রশিক্ষণ কে দিচ্ছেন জানেন? ২০১১ সালের বিবিসির মাস্টারশেফ চ্যাম্পিয়ন টিম অ্যান্ডারসন। সেই প্রযুক্তি মেলায় রোবটকে দিয়েই ক্যাব বিস্কুট তৈরি করান তিনি। তিনি বলেন, রোবট দিয়ে আপনি সব কিছুই করিয়ে নিতে পারবেন। সেটা কোনো কিছু রান্নার পূর্বপ্রস্তুতিই হোক বা পুরো রান্নাটাই হোক, সে নিমেষেই করে দেবে। আর সবচেয়ে মজার ব্যাপার, প্রতিবারেই এই রোবট একইভাবে কাজ করবে।

তবে এমন রোবট হাতের নাগালে পেতে আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে আরো দুটি বছর। মোলে এই যন্ত্রটিকে আরো একটু বেশি উপকারী করতে চান। রেফ্রিজারেটর এবং ডিশওয়াশারের খানিকটা গুণ দিতে চান রোবটটিকে। তখন কেটে বেছে চুলা বা ওভেনে রান্না করা থেকে শুরু করে ময়লা বাসন কোসন পরিষ্কার করে নেওয়া সব কাজ এই রোবটই করবে।

মোলি রোবটিকসের মার্ক ওলেনিক বলেন, প্রত্যেকটা মানুষ এই ডিভাইসটির সাথে স্বচ্ছন্দ হোক সেটাই আমাদের চাওয়া। এটা কোনো ইন্ডাস্ট্রিয়াল ডিভাইস না। বরং এর গতি ১০ গুণ সাধারণ। আপনি ঠিক যেভাবে নড়াচড়া করেন এটাও সেভাবে করবে, এবং ঠিক সেই গতিতেই।

কিন্তু রান্না করার সময় কোনো খাবার নরম করবো নাকি শক্ত রাখবো সেটা আমরা বুঝে শুনে নেয়। সেই কাজটা রোবট করবে কি করে? জবাব দিলেন রোবটটি তৈরিকারী প্রতিষ্ঠান শ্যাডো রোবট কোম্পানির রিচ ওয়াকার, রোবটগুলোতে কিছু সেন্সর যুক্ত থাকবে। সেই সেন্সর আপনি ঠিক করে দিতে পারবেন। ফলে সে সেই সময়েই ঠিক করে নেবে তার পরের পদক্ষেপটা কি হবে?