চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ঢাকায় জানাজার পর যশোরের উদ্দেশে ফায়ারফাইটার গাউসুলের মরদেহ

সীতাকুণ্ড ট্র্যাজেডি

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে অগ্নিনির্বাপণের সময় বিস্ফোরণে গুরুতর আহত ফায়ারফাইটার গাউসুল আজম চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার মৃত্যুর পর তার জানাজা সম্পন্ন হয়েছে। রোববার বিকালে রাজধানীতে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরে তার জানাজা সম্পন্ন হয়।

ফায়ারফাইটার গাউসুল আজম রোববার ভোর রাতে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ট্রিটমেন্ট ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

Reneta June

সীতাকুণ্ড বিএম কনটেইনার ডিপোর অগ্নি দুর্ঘটনায় এ পর্যন্ত ৯ জন ফায়ারফাইটারের মৃত্যু হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

জানাজা অনুষ্ঠানে ফায়ার সার্ভিস অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ মাইন উদ্দিন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সৈয়দ বেলাল হোসেন, উপসচিব জনাব জাহিদুল ইসলাম, মরহুমের পরিবারের সদস্যগণ এবং ফায়ার সার্ভিসের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারি অংশগ্রহণ করেন।

জানাজা শেষে ফায়ারফাইটার গাউসুল আজমের মরদেহবাহী অ্যাম্বুলেন্স তার গ্রামের বাড়ি যশোরের মনিরামপুরের উদ্দেশে রওনা হয়েছে। সেখানে তার মরদেহ চিরনিদ্রায় শায়িত করা হবে বলে জানায় ফায়ার সার্ভিস মিডিয়া সেল।

গত ৪ জুন দিবাগত রাতে সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোতে আগুন নেভাতে গিয়ে বিস্ফোরণে তিনি গুরুতর আহত হন। প্রথমে তাকে চট্টগ্রাম সিএমএইচে এবং পরে সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টারযোগে ঢাকার শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ট্রিটমেন্ট ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়।

ব্যক্তিগত জীবনে তিনি বিবাহিত ছিলেন। তার ৫ মাসের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। বাবা-মায়ের দুই ছেলে-মেয়ের মধ্যে গাউসুল আজম ছিলেন কনিষ্ঠ।