চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ
Nagod

নেপাল চ্যালেঞ্জ জিতে সাফ মিশন শুরু বাংলাদেশের

চ্যাম্পিয়ন হওয়ার লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নেমেছিল স্বাগতিকরা। সাফ অনূর্ধ্ব-২০ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে জয় দিয়েই মিশন শুরু করেছে বাংলাদেশ। নিজেদের প্রথম ম্যাচে নেপালকে ৩-১ গোলে হারিয়ে গোলাম রব্বানি ছোটনের মেয়েরা নিজেদের প্রতিপক্ষের চ্যালেঞ্জটা টপকে গেল। 

কমলাপুর বীর শ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে শুক্রবার সন্ধ্যায় হওয়া ম্যাচের একদম শুরু থেকে প্রতিপক্ষকে চেপে ধরে গোলাম রব্বানি ছোটনের দল। হাতেনাতে পাওয়া যায় ফল। তিন মিনিটেই এগিয়ে যায় লাল-সবুজের দল।

Bkash July

বাম প্রান্ত থেকে অনেকখানি দৌড়ে গিয়ে ডি বক্সে ঢুকে পড়েন স্ট্রাইকার আকলিমা খাতুন। গোলরক্ষককে পরাস্ত করে নিশানাভেদ করে তিনি গ্যালারির দর্শকদের আনন্দে ভাসান।

সাত মিনিটের সময় পায়ে আঘাত পেয়ে মাঠ ছাড়েন নেপালের কুসুম খাতিওয়াদা। তার বদলি হিসেবে নামেন সুনকালা রাই।

Reneta June

খেলার ১২ মিনিটে স্বপ্না রানির দূরপাল্লার শট লক্ষ্যভ্রষ্ট হলেও কয়েক সেকেন্ড পর আবারো গোল উৎসবে মাতে কমলাপুরের গ্যালারি। সতীর্থের বাড়ানো লম্বা পাসে ডি বক্সের ভেতর বল আদায়ের চেষ্টা করেন সামসুন্নাহার জুনিয়র। প্রতিপক্ষের এক ডিফেন্ডার হেডে বল ক্লিয়ার করতে না পারায় সামসুন্নাহার বল জালে পাঠিয়ে স্কোরলাইন ২-০ করেন।

 

খেলার ১৭ মিনিটের মাথায় দুটি গোলের সুযোগ পায় লাল-সবুজের দল। আকলিমা খাতুনের জোরালো শট ঠেকান নেপালি গোলরক্ষক কবিতা। যদিও তখন অফসাইডের সংকেত এসেছিল। খানিক পর ডি বক্সের বাইরে থেকে ডান প্রান্তে থাকা সামসুন্নাহার দুরন্ত শট নেন। বল সরাসরি কবিতার গ্লাভসে জমা পড়ে।

২৪ মিনিটে ম্যাচের কর্নার কিকের ফায়দা কাজে লাগিয়ে এক গোল শোধ করে নেপাল। উড়ে আসা বল হেডে বিপদমুক্ত করতে পারেননি সামসুন্নাহার। বল তার মাথায় লেগে গোলমুখে দাঁড়িয়ে থাকা মানমায়া দামনির শট পোস্টের বারে লেগে জালে প্রবেশ করলে নেপাল ম্যাচে ফেরার আভাস দেয়।

বিরতির আগেই সমতায় ফেরার শঙ্কা জাগিয়েছিল হিমালয়ের দেশটি। আমিশা কারকি বল নিয়ে অনেকটা দৌড়ে গেলে তার সামনে তখন ছিলেন কেবল বাংলাদেশি গোলরক্ষক রুপনা চাকমা। একেবারে শেষ মুহূর্তে রুপনা কিক মেরে দলকে রক্ষা করেন।

কিছুক্ষণ পর প্রতিপক্ষের এক ফুটবলারের ফাউলের শিকার হয়ে মাঠে পড়ে যান সামসুন্নাহার। পরে আবার উঠে দাড়িয়ে খেলতে থাকলেও রেফারি বিরতির বাশি বাজানোর পর আবার তিনি মাঠে শুয়ে পড়েন। ধারণা করা হচ্ছে তিনি কনকাশনে ভুগছিলেন।

বাংলাদেশ দলের টিম ম্যানেজার আমিরুল ইসলাম বাবুসহ আরও দুইজন মাঠে সামসুন্নাহারের কাছে ছুটে যান। পরে তাকে ধরে নিয়ে মাঠের সাইডলাইনের কাছে নেয়া হয়।

বাংলাদেশি মিডফিল্ডারের মাথায় পানি ঢালতে থাকা দেখা যায়। একজন তার শরীরে বাতাস করতে থাকেন। প্রায় আট মিনিট পর তিনি দুইজনের কাধে ভর দিয়ে মাঠ থেকে বের হন। বিরতির পর বাংলাদেশের অধিনায়কের বদলে খেলতে নামেন আইরিন খাতুন।

৫৩ মিনিটে আফ্রিদার নেয়া দূরপাল্লার মাপা শট ঠেকান নেপালের গোলরক্ষক। এরপর ৭৫ মিনিটের মাথায় আকলিমার জার্সি টেনে ধরায় ডি বক্সের সামান্য বাইরে বাংলাদেশ ফ্রি কিক পায়। সেট পিস থেকে শাহেদা আক্তার রিপার কিক গোলরক্ষক সহজেই ধরে ফেলেন।

ম্যাচের বাকি সময় চলে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। শেষ দিকে অবশ্য ছোটনের মেয়েরা অতি আক্রমনাত্মক হয়ে উঠে। যোগ করা সময়ের প্রথম মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে ডান প্রান্তে থাকা রিপার আচমকা শটে গোলরক্ষক পরাস্ত হন। বল জালে জড়ালে ৩-১ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে স্বাগতিকরা।

ISCREEN
BSH
Bellow Post-Green View