চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কেমন হলো সিমলা অভিনীত ‘নিষিদ্ধ প্রেমের গল্প’?

ইউটিউবে একেবারে টাটকা সিনেমা মুক্তির ঘটনা বিরল। সিনেমা হল কিংবা টেলিভিশনে মুক্তির বেশ কিছুদিন পর ইউটিউবে দেয়ার প্রচলনই বেশি। অথচ তরুণ নির্মাতা রুবেল আনুশ সাহস করে নিজের প্রথম সিনেমা সরাসরি মুক্তি দিলেন ইউটিউবে!

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) লাইভ রেডিও নামের ইউটিউব চ্যানেলে রুবেল মুক্তি দিলেন তার বহুল আলোচিত সিনেমা ‘নিষিদ্ধ প্রেমের গল্প’। সিনেমাটি সম্প্রতি সেন্সর বোর্ডে ‘প্রেমকাহন’ নামে জমা পড়েছিল। সেখানে বোর্ড সদস্যরা সর্বসাধারণের জন্য সিনেমা হলে প্রদর্শনের অনুপযুক্ত ঘোষণা করেন। তবে পরিচালক সে আদেশের বিরুদ্ধে আপিল না করে ইউটিউবে মুক্তি দেন।

আর ইউটিউবে ছবিটি মুক্তির পর বেশ সাড়া যাচ্ছেন রুবেল আনুশ। মুক্তির দুই দিন পেরোনোর আগেই ছবিটি দেখা হয়েছে ১ লক্ষ ৬২ হাজার বারের বেশি!

পরিচালক আনুশ বলেন, ‘আশা তো ছিলো ছবিটি মানুষদের সিনেমা হলে দেখাবো। এখন যেহেতু সেন্সর বোর্ডের বিজ্ঞ সদস্যরা ছাড়পত্র দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে, তাই ইউটিউবে মুক্তি দেলাম। সেখানে যেভাবে দর্শকদের সাড়া পেয়েছি, তা আমরা কেউই আশা করি নাই। আমরা তাদের কাছে কৃতজ্ঞ।’

বিজ্ঞাপন

‘প্রেমকাহন’-এর নাম প্রথমে ছিল ‘নিষিদ্ধ প্রেমের গল্প’। পরে ‘প্রেমকাহন’ নামে সেন্সরে জমা দেওয়া হয়। এখন আবার প্রথম নামে মুক্তি পেয়েছে ইউটিউবে।

ছবিটি দেখে ইউটিউবে মন্তব্য করছেন বহু দর্শক। কেউ করছেন সমালোচনা, কেউ আবার প্রশংসা করছেন। দর্শকদের এ আলোচনা সমালোচনাকে ভালো দৃষ্টিতে দেখছেন আনুশ। তিনি বলেন, দর্শকরা ভালো মন্দ সমালোচনা করছেন তার মানে তারা ছবিটি দেখছেন। তাদের সমালোচনাগুলো আমাদের সামনে পথ চলায় সহায়ক হবে।

রুবেল আনুশ ২০১৪ সালের আগস্টে শুরু করেছিলেন ‘নিষিদ্ধ প্রেমের গল্প’। ছবিটির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন সিমলা, মামুন, মনিরা মিঠু, সোহেল খান, মোহাম্মদ সালমান, নোভাই নোভিয়া, মুনমুন আহমেদ মুন, আকাশ মেহেদি, একে আজাদ সেতু, শিমুল খান।

ছবিটি প্রযোজনা করেছে আনুশ ফিল্মস। সহ-প্রযোজক রেড পিকচার্স।

বিজ্ঞাপন