চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

প্রত্নতত্ত্ববিদ আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়ার ১০৫তম জন্মদিন

Nagod
Bkash July

প্রত্নতত্ত্ববিদ, অনুবাদক, নৃ-বিজ্ঞানী, পুঁথিবিশারদ, ক্রীড়া সংগঠক ও বাংলাদেশ সরকারের সাবেক সচিব আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া-এর ১০৫ তম জন্মদিন আজ।

Reneta June

এ উপলক্ষ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) ঢাকার স্থাপত্য বিষয়ক গ্রন্থ প্রণয়ন কমিটি এবং আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া-এর পরিবারের উদ্যোগে ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার রূপসদী বৃন্দাবন উচ্চ বিদ্যালয়ে এক আলোচনা ও প্রীতি সম্মিলনীর আয়োজন করা হয়। আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া ছিলেন শতবর্ষী এই বিদ্যাপীঠের সাবেক শিক্ষার্থী।

অনুষ্ঠানে আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া-এর রচিত গ্রন্থসমূহ এবং তার বাঁধাই করা একটি প্রতিকৃতি রূপসদী বৃন্দাবন উচ্চ বিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারের জন্য বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নূর মুহম্মদ জমদ্দারের কাছে হস্তান্তর করেন ঢাকার স্থাপত্য বিষয়ক গ্রন্থ প্রণয়ন কমিটি ও যাকারিয়া-এর পরিবারের সদস্যরা। আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়াসহ বিদ্যালয়ের সকল প্রয়াত শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন ঢাকার স্থাপত্য বিষয়ক গ্রন্থ প্রণয়ন কমিটি, আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া-এর পরিবার ও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া ১৯১৮ খ্রিষ্টাব্দের ১ অক্টোবর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার দরিকান্দি গ্রামের এক অভিজাত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। রূপসদী বৃন্দাবন উচ্চ বিদ্যালয়, ঢাকা কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কৃতিত্বপূর্ণ শিক্ষাজীবন শেষে বগুড়া আজিজুল হক কলেজে ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্যের শিক্ষক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। ১৯৪৭ সালে তিনি ব্রিটিশ সিভিল সার্ভিসে যোগ দেন। দীর্ঘ কর্মজীবনে তিনি দেশের নানা প্রান্তে প্রত্নসম্পদের অনুসন্ধান এবং সংরক্ষণে গুরুত্বপূর্ণ সংগঠকের ভূমিকা পালন করেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর তিনি দেশের প্রথম শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৬ সালে তাকে বাধ্যতামূলক অবসর দেওয়া হয়।

বর্ণাঢ্য কর্মজীবনে তিনি বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটির সভাপতি, বাংলাদেশ ইতিহাস পরিষদের সভাপতি, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদকসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া দেশের তৃতীয় বৃহত্তম জাদুঘর দিনাজপুর মিউজিয়ামের প্রতিষ্ঠাতা। তার অধিকাংশ গ্রন্থই অপ্রকাশিত। তার প্রকাশিত গ্রন্থসমূহের মধ্যে বাঙলাদেশের প্রত্নসম্পদ, বাংলা সাহিত্যে গাযী কালু ও চম্পাবতী উপাখ্যান, গুপিচন্দ্রের সন্ন্যাস, কুমিল্লা জেলার ইতিহাস, তবাকাত-ই-নাসিরী, সিয়ার-উল- মুতাখখিরিন, বাংলাদেশের নৃতাত্ত্বিক পরিচিতি উল্লেখযোগ্য।

আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া বাংলাদেশে প্রত্নতত্ত্ব চর্চার পথিকৃৎ ব্যক্তিত্ব। সুলতানি, মুঘল ও নবাবি আমলের বাংলাকে নিয়ে লেখা ইতিহাস গ্রন্থসমূহের ভাষা মূলত ফার্সী। ফার্সী ভাষা থেকে বাংলা ভাষায় সর্বাধিক ইতিহাস গ্রন্থ অনুবাদ করেছেন তিনি। গবেষণা করেছেন বাংলার নৃতত্ত্ব নিয়ে, বাংলার ধর্ম নিয়ে।

ঢাকার স্থাপত্য বিষয়ক গ্রন্থ প্রণয়ন কমিটির প্রকাশিতব্য এশীয় ভাষার শিলালিপি বিষয়ক গ্রন্থসমূহের সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি ছিলেন আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া। ঢাকার স্থাপত্য বিষয়ক গ্রন্থ প্রণয়ন কমিটি ঢাকার প্রাচীন ইতিহাস বিশেষত শিলালিপি নিয়ে গ্রন্থ প্রণয়নের কাজ করছে। তিনি বিগত ২০০৯ সাল থেকে আমৃত্যু শিলালিপির পাঠোদ্ধার, অনুবাদ ও গবেষণা কাজ তত্ত্বাবধান করেছেন। আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া একুশে পদক. বাংলা একাডেমি পুরষ্কারসহ বিভিন্ন সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন। ২০১৬ খ্রিষ্টাব্দের ২৪ ফেব্রুয়ারি তিনি ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন এবং ২৫ ফেব্রুয়ারি তাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার দরিকান্দি গ্রামে সমাহিত করা হয়।

 

BSH
Bellow Post-Green View