চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

রিজার্ভে নতুন রেকর্ড

রিজার্ভ এখন ৩৯ দশমিক ৪০ বিলিয়ন ডলার

বিশ্বব্যাপী করোনা সংক্রমণের মধ্যেও বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ নতুন নতুন রেকর্ড গড়ছে। সেই রিজার্ভের পরিমাণ এখন ৩৯ দশমিক ৪০ বিলিয়ন ডলার। যা অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে বেশি।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংক এই তথ্য নিশ্চিত করেছে।

বিজ্ঞাপন

ব্যাংক সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রেমিট্যান্স ও রপ্তানি আয়ের পাশাপাশি বিশ্ব ব্যাংক, আইএমএফ, এডিবি, জাইকা ও এআইআইবির ঋণ সহায়তাও রিজার্ভ বাড়াতে ভূমিকা রেখেছে।

গত ৫ মাসে (এপ্রিল-অগাস্ট) এই দাতা সংস্থাগুলো বাংলাদেশকে প্রায় সাড়ে ৪ বিলিয়ন ডলারের ঋণ সহায়তা দিয়েছে। যা রিজার্ভে যোগ হয়েছে।

প্রতি মাসে ৪ বিলিয়ন ডলার আমদানি ব্যয় হিসেবে এই রিজার্ভ দিয়ে প্রায় ১০ মাসের আমদানি ব্যয় মেটানো সম্ভব।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক সিরাজুল ইসলাম জানান, প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স ও রপ্তানি আয় বাড়ার পাশাপাশি জাপানের আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থা-জাইকার ৩০ কোটি ডলার যোগ হওয়ায় রিজার্ভে এই নতুন রেকর্ড হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য, চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের অগাস্ট মাসে ১৯৬ কোটি ৩৯ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছে। গত বছরের অগাস্ট মাসে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৪৪ কোটি ৪৭ লাখ ডলার।

বিজ্ঞাপন

চলতি অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে ২৬০ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা। বাংলাদেশের ইতিহাসে এর আগে কখনোই একক মাসে এতো বেশি পরিমাণ রেমিট্যান্স আসেনি।

এর আগে একক মাসে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছিল গত জুনে। ওই মাসে প্রবাসীরা পাঠিয়েছিলেন মোট ১৮৩ কোটি ৩০ লাখ ডলার। এই হিসাবে চলতি বছরের অগাস্টে আসা ১৯৬ কোটি ডলার একক মাসের হিসাবে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স।

জুলাই-অগাস্ট এই দুই মাসে রেমিট্যান্স এসেছে ৪৫৬ কোটি ৩৪ লাখ ডলার, যা গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৫০ শতাংশ বেশি।

এবার করোনাভাইরাসের প্রভাবে বিশ্বে অর্থনীতিতে স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। ফলে মার্চ থেকে বৈশ্বিক পরিস্থিতি পাল্টে যাওয়ায় রেমিট্যান্সও কমে গিয়েছিল। কিন্তু এপ্রিল মাস থেকে আবার রেমিট্যান্স বাড়তে থাকে।

বৈধপথে রেমিট্যান্স আহরণ বাড়াতে গত অর্থবছরের বাজেটে দুই শতাংশ হারে প্রণোদনা ঘোষণা করেছিল সরকার। চলতি অর্থবছরেরও একই হারে প্রণোদনা অব্যাহত রাখা হয়েছে। এই প্রণোদনা বৈধপথে রেমিট্যান্স বাড়াতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যানুযাযী, গত ৩০ জুন শেষ হওয়া ২০১৯-২০ অর্থবছরে মোট এক হাজার ৮২০ কোটি ৩০ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স এসেছিল। যা ২০১৮-১৯ অর্থবছরের চেয়ে ১০ দশমিক ৮৭ শতাংশ বেশি।

গত ৩০ জুন রিজার্ভ ৩৬ বিলিয়ন ডলার ছাড়ায়। প্রায় এক মাস পর ২৮ জুলাই রিজার্ভ ৩৭ বিলিয়ন ডলার অতিক্রম করে। এরপর ১ সেপ্টেম্বর ৩৯ বিলিয়ন ডলার ছাড়াল দেশের রিজার্ভের পরিমাণ।