চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘প্রিয়’ রোনাল্ডোর পাশে বসা হলো না লুকাকুর

সুযোগ ছিলো দুটি রেকর্ড স্পর্শ করার। দুটিতেই জড়িয়ে আছে ব্রাজিলিয়ান গ্রেট রোনাল্ডোর নাম। রোমেলু লুকাকু একটি ছুঁতে পেরেছেন কিন্তু অন্যটির কারণে সেই রেকর্ড ভরে গেছে বিষাদে!

১৯৯৭-৯৮ মৌসুমে বার্সেলোনা থেকে সবচেয়ে দামী ফুটবলার হয়ে ইন্টার মিলানে নাম লেখানোর পর প্রথম মৌসুমেই দুই অনন্য রেকর্ড গড়েছিলেন রোনাল্ডো। প্রথম মৌসুমেই গড়েছিলেন ৩৪ গোলের রেকর্ড। যার শেষটা হয়েছিলো লাৎসিওর বিপক্ষে, তখনকার উয়েফা কাপের (এখন ইউরোপা লিগ) ফাইনালে। এবং রোনাল্ডোর ইন্টার সেই ম্যাচটা জিতে শিরোপাও ঘরে তুলেছে শেষ পর্যন্ত।

বিজ্ঞাপন

রোনাল্ডোর মতই আদর্শ স্ট্রাইকার লুকাকুর সামনেও ছিলো এই রেকর্ড ছোয়ার সুযোগ। ম্যাচের আগে এই বেলজিয়ান স্ট্রাইকারের নামের পাশে ছিলো প্রথম মৌসুমে ইন্টারের হয়ে ৩৩ গোল। আরেকটা গোল হলেই রোনাল্ডোর পাশে বসে যাবে নাম।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

খেলা শুরুর ৫ মিনিটের মধ্যেই প্রিয় রোনাল্ডোর ৩৪ গোলের রেকর্ডে বসে গেছেন লুকাকু। ৪ মিনিটে তাকে ডি-বক্সে ফাউল করে বসেন সেভিয়ার ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার ডিয়েগো কার্লোস। পেনাল্টি পায় ইন্টার। স্পটকিক আর কাউকে নিতে দেননি লুকাকু, নিজেই নিয়ে লক্ষ্যভেদ করে বসে গেছেন রোনাল্ডোর পাশে।

কিন্তু সেই শেষ, এই গোলের পরেই যেন ভাগ্য উবে গেছে লুকাকুর। প্রথম গোলটা আদায় করে যেখানে নায়ক হতে পারতেন সেখানে শেষ পর্যন্ত তিনিই ভিলেন।

প্রথমার্ধেই ২-২ গোলে সমতায় ম্যাচটা যখন পরের ৪৫ মিনিটে টান টান উত্তেজনার পারদ ছড়াচ্ছে সেখানে লুকাকুর পা দিয়েই ম্যাচ জিতে নিয়েছে সেভিয়া। ৭৪ মিনিটে তার আত্নঘাতী গোলেই শেষ পর্যন্ত ফাইনালটা ৩-২ গোলে জিতে নেয় সেভিয়া। রোনাল্ডোর ৩৪ গোলের পাশে বসলেও ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তির মত তাই শিরোপা জয়ের ভাগ্য হলো না লুকাকুর।