চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কোভিডের কী সাধ্য পয়লা বৈশাখের প্রাণশক্তিকে চাপা দেয়: জয়া

আজ পহেলা বৈশাখে বর্ণিল উৎসবে পুরো দেশ মেতে উঠার কথা। রাজধানী জুড়ে থাকার কথা বর্ষবরণের নানা আয়োজন। কিন্তু বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে এখন চলছে করোনা মহামারীর সময়। দেশে দ্বিতীয়বারের মত করোনাভাইরাস ঠেকাতে পয়লা বৈশাখসহ সবধরনের সমাগমের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সরকার। পয়লা বৈশাখ উদযাপনের জন্য বাইরে বের হওয়া এবং এক জায়গায় জড়ো হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। তাই নিজের ঘরে বসেই পয়লা বৈশাখ উদযাপন করছেন দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। জানালেন বৈশাখী শুভেচ্ছাও।

বিজ্ঞাপন

ফেসবুকে শেয়ার করা পোস্টে জয়া আহসান লিখেছেন, ‘কোভিডের দুঃসময় আমরা পার হইনি। চারদিকে বিষণ্ণতা আর মৃত্যু। কিন্তু দুঃসময়ই যে মানুষের শেষ কথা নয়, সে কথা জানাতেই তো বাংলা নববর্ষের আগমন। করোনার বিস্তারে গত বছরের নববর্ষে আমরা সংযত থেকেছি। প্রত্যাশা করেছি, পরের নববর্ষে দুর্যোগের গাঢ় মেঘ মাথার ওপর থেকে সরে যাবে। এবারে কোভিড আরও জোরেশোরে ফিরে এসেছে। কিন্তু কোভিডের কী সাধ্য পয়লা বৈশাখের প্রাণশক্তিকে চাপা দেয়! মানুষকে পরাস্ত করা কি এতই সহজ! কত যুদ্ধ, মন্বন্তর, মারি পেছনে ফেলেই না এত দূর এগিয়ে এসেছে মানুষ। মানুষ মানে এগিয়ে যাওয়া। ঘোর অন্ধকার আসে, তাকে পেছনে ফেলে এগিয়ে চলো, সবাই হাত ধরে—পয়লা বৈশাখ ঠিক এই কথাটিই সব সময় বলে এসেছে। আমরা সতর্ক আর নিরাপদ থাকব, নিজেদের সুস্থ রাখার জন্য সবকিছু করব, সবার জন্য দু হাত বাড়িয়ে রাখব, মনকে ভরে রাখব আলোয়। নববর্ষের কচি রোদ আমাদের সবার মুখের ওপরে। এই বছর প্রথমবারের মত বাংলাদেশে পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে ফেসবুক একটি বিশেষ অগমেন্টেড রিয়ালিটি ইফেক্ট তৈরি করেছে। মনে হচ্ছে যেন সবার সাথেই মঙ্গল শোভাযাত্রায় বেরিয়েছি। শখ করে আলপনা দিয়েছি গালে। করোনা থেকে বাঁচতে মুখে আবার মাস্কও আছে! দুঃসময় পেরিয়ে আমাদের এই পথ চলাতেই আনন্দ। শুভ নববর্ষ।’

বিজ্ঞাপন