চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

দিনটা আমার ছিল না: তামিম

নটিংহ্যাম থেকে: মিশেল স্টার্কের বলে জায়গায় দাঁড়িয়ে কাট করতে গিয়ে ব্যাটের কানায় লেগে বোল্ড তামিম ইকবাল। তাতে মাঝপথেই ম্যাচটা শেষ! ৭৪ বলে ৬২ করেছেন তামিম। তার আগে নিজের ভুলে রানআউট করেছেন সৌম্য সরকারকে! ৮৩ স্ট্রাইকরেট রেখে ব্যাট করে যাওয়া তামিম যখন গিয়ার পরিবর্তন করে আগ্রাসী হবেন, তখনই দলকে বিপদে ফেলে ফিরে গেছেন সাজঘরে।

ইনিংসের ২৫তম ওভারের প্রথম বলটি (অফস্টাম্পের বাইরে) লাইনে না গিয়ে দূর থেকে কাট করতে যেয়ে ভেতরে টেনে আনেন তামিম। যে শট ভালো খেলেন দাবি করলেন, সেই শটেই আউট। তামিম দোহাই দিচ্ছেন ভাগ্যের। তবে ২২ গজে বারবার থিতু হয়েও আউট হওয়ায় দেশসেরা এ ওপেনার নিজেও হতাশ।

বিজ্ঞাপন

‘হয়তবা হিসেবের মতো যাচ্ছে না। যখন শুরু করেছিলাম, একটু ডাউন ছিলাম। শেষ দুই ইনিংসে ভাগ্যটা যদি একটু উপরে নিচে ভালো হত, তাহলে ইনিংসগুলো বড় হতে পারত। আজকেও দেখেন, এমনিতে এ শটটা খুব ভালো খেলি। কিন্তু আজ আমার দিন ছিল না। আমার কাছে মনে হয় আমি ভালো অবস্থায় আছি, শুধু একটা ইনিংসের প্রয়োজন যেটা আমি বড় করতে পারি। সমস্যা হচ্ছে আমাদের হাতে সেই সময়টা নেই।’

বাংলাদেশের সামনে ছিল অস্ট্রেলিয়ার দেয়া ৩৮২ রানের পাহাড়। সেটি টপকাতে না পারলেও ওয়ানডেতে নিজেদের সর্বোচ্চ ৩৩৩ রান এসেছে এ ম্যাচেই। তাতেও কী স্বস্তি মেলে। হার তো হারই!

বিজ্ঞাপন

মিক্সডজোনে তামিমের কাছে জানতে চাওয়া হল এত বড় রানের পেছনে কী পরিকল্পনা নিয়ে ব্যাটিং করেছিল বাংলাদেশ, ‘সত্যি কথা, আমাদের বড় স্কোর তাড়া করার অভিজ্ঞতা খুব বেশি নেই। আমি যে পরিকল্পনা করছিলাম, স্কোরবোর্ডের দিকেই তাকাচ্ছিলাম না। যেটা চাচ্ছিলাম, ৩০ ওভারে ১৮০ কিংবা ২০০ করতে পারি, তাহলে শেষ ২০ ওভারে একটা সুযোগ নিতে পারি। কারণ আপনি যদি আগেই বেশি আক্রমণাত্মক খেলতে গিয়ে যদি আউট হয়ে খেলাটা নষ্ট করে দেন, তাহলে আজকে ৩৩৩-ও হত না।’

‘আমার চেষ্টা ছিল, ৩০ ওভারে ওই রান করা এবং বাকিটা যেটা ১২০ বলে ১৬০-৭০ রান করা যেটা টি-টুয়েন্টিতে হয়ে যায়। যেখানে আমার ও মুশফিকের ক্যাপিটালাইজ করার কথা ভুল সময়ে আমি আউট হলাম। সাকিব আর আমার একটা জুটি হয়েছিল। ও একটা ভুল সময়ে আউট হল। আমরা ভালো খেলেছি। জিনিসটা আরও ভালো হতে পারত, যদি ভুল সময়ে আউট না হতাম।’

লক্ষ্যের সঙ্গে সমানতালেই এগিয়েছে বাংলাদেশ। ৩০ ওভারে তুলেছে ১৭৭ রান। তবে ট্রেন্ট ব্রিজের ব্যাটিং স্বর্গে থিতু হয়ে যাওয়া তামিম রানের পাহাড় সামনে রেখে কীভাবে ঠাণ্ডা মাথার ব্যাটিং করতে পারলেন সেটিও বিস্ময়ের!

তামিম যখন আউট হন বাংলাদেশের রান ১৪৪। ২৬ ওভারে দরকার ২৩৮। ওভারপ্রতি ৯.১৫ হারে রান। দুই ধাপের মাঝে পার্থক্য ১০০ রানের।

Bellow Post-Green View