চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

তার নাম ‘ওসামা বিন লাদেন’, ভাই সাদ্দাম হোসেন

তিনি পেরুর ফুটবলার

পেরুর ফুটবলার তিনি। নাম শুনলে অবশ্য চোখ কপালে ওঠার কথা! ১৮ বছর বয়সী এ ফুটবলারের নাম ওসামা বিন লাদেন জিমিনেজ লোপেজ। শুধু তাই নয়, ওসামার পরিবারে আছে সাদ্দাম হোসেনও। ভাগ্যের ফেরে অল্পের জন্য ‘জর্জ বুশ’ হওয়া থেকে বেঁচে গেছে ওসামার ছোট বোন!

চলতি সপ্তাহে পেরুর দ্বিতীয় বিভাগের দল ইউনিয়ন কোমেরসিওতে যোগ দেয়ার পর থেকে আলোচনার তুঙ্গে ওসামা বিন লাদেন। টুইটারে এখন রীতিমত ট্রেন্ডে পরিণত হয়েছেন তিনি। বিন লাদেন লিখতে গিয়ে ইংরেজি ‘ভি’ অক্ষর ব্যবহার হলেও স্প্যানিশ উচ্চারণে ‘ভি’কে ‘বি’ উচ্চারণ করা হয়। তাতে স্পষ্ট হয়ে গেছে, আসলে ওসামার বাবা বিন লাদেনই রাখতে চেয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

রেডিও শো ‘কুই থি ইয়ুগেস’এ সাক্ষাৎকারে ওসামা বিন লাদেন জানিয়েছেন শুধু তার নামই নয়, বাবা তার ভাইয়ের নাম রেখেছেন সাদ্দাম হোসেন। তৃতীয় সন্তান ছেলে হলে জর্জ বুশ রাখার ইচ্ছে ছিল ওসামার বাবার। মেয়ে হওয়াতে সেই যাত্রায় রক্ষা!

বিজ্ঞাপন

‘যখন ওসামা বিন লাদেন টুইন টাওয়ার গুঁড়িয়ে দিলো, তখন সব জায়গায় তার নাম। ২০০২ সালে আমার জন্ম, সেখান থেকেই আমার নাম নেয়া।’

‘কেউ এই নাম ব্যবহার করে না। আমাকে অনেক খারাপ পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে, এখন সবকিছু স্বাভাবিক। আমার শার্টে ওসামা লেখা আছে। একটা সময় মনে হতো নাম পাল্টে ফেলি। কিন্তু আমি এখন স্বাভাবিক।’

বাবা তার নাম ওসামা রাখায় মনে কোনো কষ্ট নেই উঠতি এ ফুটবলারের, ‘আমার মনে হয় বাবা এই নামটা পছন্দ করতেন। আমি জানি পেরুতে হিটলার নামেও একজন আছেন। ঈশ্বর পৃথিবীকে বাঁচিয়ে রেখেছেন, আবার তিনিই ধ্বংস করেন। হয়তো ওসামা অনেক মানুষ মেরেছেন, তাই বলে এমন না যে এই নাম রাখা যাবে না। তবে এই নাম যে মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তাতে সন্দেহ নেই।’

১৮ বছর বয়সী ওসামার আবার ছেলেও আছে। নাম রেখেছেন সান্তিয়াগো। ওসামার বাবাকে নাম রাখতে দিলে তিনি হয়তো নাতির নামই জর্জ বুশই রাখতেন!