চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ নিয়ে মাথাব্যথায় আইসিসি

অ্যাশেজ দিয়ে শুরু হয়েছিল আইসিসির নতুন প্রতিযোগিতা ‘ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ’। ১ জুন, ২০২১ সালে শেষ হওয়ার কথা যে প্রতিযোগিতার। করোনাভাইরাসে ভেস্তে যেতে বসেছে সব। বেশিরভাগ দ্বিপাক্ষিক সিরিজ হয় পিছিয়েছে, নয়তো বাতিল হয়েছে। এভাবে চ্যাম্পিয়নশিপ সময়মত শেষ করা সম্ভব নয় তা বুঝতে পেরে নতুন সূচি তৈরিতে বসে পড়েছে আইসিসি।

আইসিসির এক কর্মকর্তার বরাতে বার্তা সংস্থা আইএএনএস জানিয়েছে, টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ এখন সংস্থাটির মাথাব্যথার কারণ। প্রতিযোগিতাটির ভবিষ্যৎ কী তা নিয়ে এখনো অবশ্য বড়রকমের সিদ্ধান্তে আসবে না তারা। বরং সদস্য দেশগুলোকে সঙ্গে নিয়ে নতুন সূচি তৈরিতে একসঙ্গে কাজ করতে আগ্রহী সংস্থাটি।

বিজ্ঞাপন

‘আমরা এই প্রতিযোগিতা নিয়ে কাজ করা চালিয়ে যাবো। আমরা একটি বিস্তৃত ব্যবসায়িক পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি যা বিশ্বের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে সাহায্য করবে। এরমধ্যে আছে মহামারীর ভেতরেও সম্ভাব্য বিকল্প খুঁজে বের করা। আমরা অবশ্য এখনো তেমন কোনো সিদ্ধান্ত নেইনি।’

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

উদ্ভূত পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের পথ খুঁজতে একসঙ্গে কাজ করার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন ভারতীয় বোর্ডের এক কর্মকর্তা, ‘সবাইকে আগে নিজেদের সমস্যা নিয়ে কাজ করতে হবে। কোনকিছুই সহজে সমাধান হবে না যতক্ষণ না সবার মাথা এক হয়। এই মহামারী গত তিন-চার বছরের সূচি বিশেষ করে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে প্রভাব রেখে যাবে।’

করোনার কারণে জুনে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর বাতিল করতে চাইছে ইংল্যান্ড। বাংলাদেশে দুই টেস্টের সিরিজ পিছিয়ে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। পাকিস্তানের কোচ মিসবাহ-উল-হক বলছেন পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে নতুন সূচি তৈরির প্রয়োজন পড়বেই। এরপরও সবাইকে সমান সুযোগ দেয়ার আহ্বান এ কোচের।

‘যখন আমরা ক্রিকেটে ফিরবো, তখন সবাইকে সমান সুযোগ দিতে হবে। টুর্নামেন্ট ছোট করার কোনো দরকার নেই। কোনো ম্যাচ বাতিল করা যাবে না, তাতে যদি আসর লম্বা হয় এরপরও। সবাই যেন সমান সুযোগ পায় সেভাবেই সূচি তৈরি করতে হবে।’