চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনাভাইরাস: লকডাউনে মানুষের চলাচল তথ্য প্রকাশ করলো অ্যাপল

মহামারী করোনাভাইরাসের প্রকোপের মধ্যে প্রায় পুরো পৃথিবীতে চলছে লকডাউন। সংক্রমণ রুখতে চলা লকডাউনে শপিং মল, হোটেল, রেস্তোরাঁ থেকে গণপরিবহন, সবকিছুই প্রায় বন্ধ। ফলে সারাবিশ্বে কমেছে মানুষের গতিশীলতা। বেড়েছে বাড়িতে থাকার প্রবণতা। পূর্বের তুলনায় সে পার্থক্য কতোটা, তার একটা চিত্র তুলে ধরেছে অ্যাপল।

চলাচলের অভ্যাস পরিবর্তন বিষয়ে এমন একটি গ্রাফচিত্র প্রকাশ করছে অ্যাপল,যেখানে লকডাউনের সময়ে মানুষের চলাচল কী পরিমাণ বেড়েছে বা কমেছে তার হিসাব প্রকাশ পেয়েছে।

বিজ্ঞাপন

দৈনিক পরিসংখ্যানে দেখানো হয়েছে যে, করোনা ভাইরাসের লকডাউন কার্যকর হওয়ার আগে ১৩ জানুয়ারীর তুলনায় লকডাউনের সময় কত কম লোক গাড়ি চালাচ্ছেন, হাঁটাচলা করছেন এবং গণপরিবহন ব্যবহার করছেন।

বিজ্ঞাপন

এতে ৬৩টি  প্রধান শহরগুলোকে যুক্ত করা হয়েছে। হংকংকে যুক্ত করা হলেও মূল ভূখণ্ড চীন নেই। যুক্তরাজ্যের লন্ডন, লিডস, ম্যানসেস্টার এবং বার্মিংহামকে যুক্ত করা হয়েছে।

অ্যাপল একটি স্প্রেডশিট ফাইলে সেসব রেকর্ড গবেষক ও মিডিয়ার জন্য উন্মুক্ত রেখেছে। যাতে তারা তাদের নিজস্ব মডেলের মধ্যে ডাটা ব্যবহার করে সহজ করে প্রকাশ করতে পারে।

বিজ্ঞাপন

এটি মূলত গুগলের অনুরূপ প্রচেষ্টাকেই অনুসরণ করে থাকে। তবে যৌক্তিকভাবে গুগলের গতিশীলতা নির্ণয়ের ধারণাটি বিস্তারিত অ্যাপলের চেয়ে। কারণ অ্যাপলে শুধু তিনটা ধাপ দেখানো হয়েছে যে, কতো পরিমাণ মানুষ গাড়ি চালাচ্ছেন, হাঁটাচলা করছেন এবং গণপরিবহন ব্যবহার করছেন।

সম্প্রতি ১৩০টি দেশের পরিসংখ্যান তুলে ধরে গুগল আরো বিস্তারিত দেখিয়েছে, বিভিন্ন স্থান যেমন হোটেল-রেস্তোরাঁ, পার্ক, থিয়েটার, অফিস থেকে শুরু করে মুদি বা ওষুধের দোকানে মানুষের যাতায়াত বা উপস্থিতি কেমন হয়েছে, তা দেখায়, এতে তেমনই বেড়েছে বাড়িতে থাকার হার তাও দেখায়। একই ভাবে কমেছে বাস, ট্রেন, মেট্রোর মতো গণপরিবহন ব্যবস্থাও। ৩ এপ্রিল ওই রিপোর্ট প্রকাশ করে গুগল।

আইফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বলছে, এটি ব্যবহারকারীর গোপনীয়তা রক্ষা করা হয়েছে। এতে ব্যবহারকারীর কোনো তথ্য যুক্ত করা হয় না।

অ্যাপলের  চিত্রে দেখা যায়, ফ্রান্স, ইটালিতে কঠোর লকডাউনের কারণে যুক্তরাজ্যের তুলনায় মানুষের ক্রিয়াকলাপ হ্রাস পেয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র তার থেকে পিছিয়ে আছে।

গুড ফ্রাইডেতে যুক্তরাজ্যে লোকজনের চলাচল কিছুটা বৃদ্ধি পায়, গাড়ি চালানো ৬৫% দেখা যায় সাধারণভাবে। কিন্তু রোববার তা হ্রাস পেয়েছে।

অ্যাপলেরটিতে গুগলের তুলনায় অনেক কম তথ্য আছে বলছে বিশেষজ্ঞরা। তবে এ তথ্য লকডাউন বিষয়ে জনসাধারণের চলাচল ও তারা কতোটা লকডাউন মানছে তা জানতে সরকারকে সাহায্য করবে বলে মনে করছেন তারা।