চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ব্যক্তি করদাতাদের করমুক্ত আয়ের সীমা ৩ লাখ টাকা

ব্যক্তি শ্রেণির করদাতাদের কর হার হ্রাস এবং ব্যয় সক্ষমতা বৃদ্ধিতে মুজিববর্ষের উপহার হিসেবে ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ব্যক্তি করদাতাদের জন্য করমুক্ত আয়ের সীমা বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। বিদ্যমান আড়াই লাখ টাকা থেকে ৫০ হাজার টাকা বাড়িয়ে তা ৩ লাখ টাকা নির্ধারণের প্রস্তাব করা হয়েছে।

‘অর্থনৈতিক উত্তরণ ও ভবিষ্যৎ পথ পরিক্রমা’ শিরোনামে করোনাভাইরাসের সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে টিকে থাকা ও অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের প্রত্যাশা সামনে রেখে আওয়ামী লীগের তৃতীয় মেয়াদের দ্বিতীয় বছরে ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেট জাতীয় সংসদে বৃহস্পতিবার উপস্থাপন করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার বিকেল সোয়া ৩টার দিকে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত সংসদ অধিবেশনে ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য এ বাজেট উপস্থাপন শুরু করেন অর্থমন্ত্রী।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

বাজেট প্রস্তাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, মুজিববর্ষের  উপহার হিসেবে গত অর্থবছরের আড়াই লাখ টাকা থেকে আরো ৫০ হাজার টাকা বাড়িয়ে করমুক্ত আয়ের সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে ৩ লাখ টাকা। অর্থাৎ ৩ লাখ টাকা পর‌্যন্ত আয় করলে কোনো কর দিতে হবে না- বাজেটে এমন প্রস্তাব রেখেছেন অর্থমন্ত্রী আ  হ ম মুস্তফা কামাল।

আর নারী ও ৬৫ বছরের বেশি বয়সী করদাতাদের সাড়ে ৩ লাখ টাকা পর্যন্ত কোনো কর দিতে হবে না। প্রতিবন্ধী করদাতাদের ক্ষেত্রে এই সীমা সাড়ে ৪ লাখ টাকায় রাখা হয়েছে।

এ ছাড়া গেজেটভুক্ত যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য করমুক্ত আয়সীমা ৪ লাখ ৭৫ হাজার টাকায় নির্ধারণ করা হয়েছে।

সাধারণ করদাতাদের ক্ষেত্রে আয়ের সীমা ৩ লাখ টাকার পর প্রথম ১ লাখ টাকায় ৫ শতাংশ, পরবর্তী ৩ লাখ টাকায় ১০ শতাংশ, এরপরের ৪ লাখ টাকায় ১৫ শতাংশ, এরপরের ৫ লাখ টাকায় ২০ শতাংশ। অবশিষ্ট টাকার উপর ২৫ শতাংশ হারে কর পরিশোধের প্রস্তাব করা হয়েছে।