চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে কেন এসেছিলেন সোহেল তাজ?

রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সোমবার রাতে এসেছিলেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমেদ সোহেল তাজ। অনেকদিন পরে তার সেখানে যাওয়াকে কেন্দ্র করে সামাজিক মাধ্যমে অনেকে প্রশ্ন করেছেন, তিনি কি আবারও রাজনীতিতে সক্রিয় হচ্ছেন?

বিষয়টি নিয়ে চ্যানেল আই অনলাইনের পক্ষ থেকে সোহেল তাজের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। তার মোবাইল নম্বরে ফোন দিলে সোহেল তাজের ব্যক্তিগত সহকারী পরিচয়ে কাইয়ুম জানান: কোন রাজনৈতিক আলাপ নয়, সোহেল তাজের একমাত্র ছেলে ব্যারিস্টার তুরাজ আহমদের বিয়ের আমন্ত্রণ কার্ড দিতেই আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে গিয়েছিলেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

তবে আওয়ামী লীগের নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানাচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা চান সোহেল তাজ আবারও আওয়ামী লীগে সক্রিয় হোক। এখনই সরকারের কোনো পদে না হলেও দলে সক্রিয় হোক তিনি। প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিগতভাবে তাকে পছন্দ করেন। আওয়ামী লীগ সভাপতির ইচ্ছায় অক্টোবরের কাউন্সিলে তাকে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে দেখা যেতে পারে বলেও সূত্রটি জানায়।

আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে সোহেল তাজের সাক্ষাতের সময় উপস্থিত একজন শীর্ষ পর্যায়ের আওয়ামী লীগ নেতা চ্যানেল আইন অনলাইনকে বলেন: সোমবার রাত ৯টার দিকে সোহেল তাজ ধানমন্ডি কার্যালয়ে আসেন। তিনি সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ১০ থেকে ১২ মিনিট অবস্থান করেন। সেসময় তিনি দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরর হাতে ছেলের বিয়ের কার্ড তুলে দেন।

বিজ্ঞাপন

সোহেল তাজের রাজনীতিতে ফিরে আসার বিষয়ে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন: নেত্রী (শেখ হাসিনা) চান সোহেজ তাজ রাজনীতিতে ফিরে আসুক। তবে এখন পর্যন্ত তার পক্ষ থেকে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া যায়নি।

আওয়ামী লীগের আসন্ন ২১তম জাতীয় কাউন্সিলে সোহেল তাজের কেন্দ্রীয় কমিটিতে আসার সম্ভাবনা ক্ষীণ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সোহেল তাজের সাক্ষাতের সময় আরও উপস্থিত ছিলেন: আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান ও জাহাঙ্গীর কবির নানক, সংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল, বাহাউদ্দিন নাছিম এবং ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দীসহ অনেকে।

২০০৮ সালে নির্বাচনে গাজীপুরের কাপাসিয়া থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন সোহেল তাজ। তারপর ওই সময় সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথগ্রহণ করেন তিনি। এর কিছুদিন পর মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেন। তারপর সংসদ সদস্য পদ থেকেও সরে দাঁড়ান তাজউদ্দিন পুত্র। পরে ওই আসনে উপনির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তার বোন সিমিন হোসেন রিমি।

এর আগে গত ৩০ এপ্রিল গণভবনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিয়ের আমন্ত্রণ কার্ড দেন সোহেল তাজ।তার একমাত্র ছেলে ব্যারিস্টার তুরাজ আহমদের বিয়ে হচ্ছে ড. বদিউজ্জামান ভূঁইয়া এবং ড. আবিদা সুলতানা ইভার একমাত্র কন্যা লাবিবা জামানের সঙ্গে।

Bellow Post-Green View