চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বই পড়ে, কিংবা সিনেমা দেখে গল্প কপি করি না: অমি

‘আমি অতি সাধারণ মানুষ। চারপাশের মানুষের জীবন ও নিজের জীবনের গল্পগুলো থেকে নাটকের গল্প বানাই। বই পড়ে, সিনেমা দেখে নাটকের গল্প কপি করি না। কোনো সিনেমার দৃশ্য থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে সেখান থেকে গল্প নেই না। অন্যরা কে কী বানালো সেটা দেখে সেই রকম গল্পের নাটক বানাই না। বরং আমার নাটকের গল্পের মতো এখন অনেক কাজ হচ্ছে।’

চ্যানেল আই অনলাইনকে কথাগুলো বলছিলেন কাজল আরেফিন অমি। যিনি এ সময়কার টিভি নাটকের অন্যতম জনপ্রিয় নির্মাতা। তার বানানো সিরিয়াল ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ দর্শকদের কাছে ব্যাপকভাবে আলোচিত। শুধু সিরিয়াল নয়, অমি নির্মিত বেশিরভাগ নাটকই দর্শক নন্দিত! এ কারণেই হয়তো দর্শক অমির নাটকের জন্য অপেক্ষায় থাকেন!

Reneta June

গত ঈদেও নিজের প্রতিভা দেখিয়েছেন অমি। সিক্যুয়ালে বানানো তার ‘ব্যাচেলর রমজান’ ও ‘ফিমেল ২’ দর্শক উপভোগ করেছেন। আরেকটি নাটক ‘ব্যাড বাজ’ থেকেও অন্যরকম সাড়া ফেলেছিল। সেই সাফল্যে অনুপ্রাণিত হয়ে আসন্ন ঈদের জন্য সিকুয়ালে ‘গুড বাজ’ আনছেন অমি। ইতোমধ্যে কক্সবাজারে পাঁচ দিন শুটিংয়ের মাধ্যমে কাজ শেষ হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

নিজের ভ্রমণ অভিজ্ঞতা বা বন্ধুত্বের ভ্রমণের অভিজ্ঞতার গল্পগুলো থেকে ‘গুড বাজ’ বানিয়েছেন বলে জানিয়েছেন অমি। তিনি বলেন, সিনেমা দেখে বই পড়ে গল্পের প্লট কখনই নেই না। এ কারণে হয়তো আমার গল্পের চরিত্রগুলো রূপকথার চরিত্রের মতো হয় না। আমি সবসময় নিজের জীবন ও চারপাশের মানুষের জীবনগুলো নিজের চোখে দেখে গল্প গ্রো আপ করাই। শুরু থেকে কাজ করি মানুষের জন্য। গল্পগুলো মানুষেরই। এসব গল্প মানুষ হয়তো রিলেট করতে পারে এ কারণে আমার কাজ পছন্দ করে।

‘গুড বাজ’র বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেন মিশু সাব্বির, জিয়াউল হক পলাশ, পাভেল, সাফা কবির, শরাফ আহমেদ জীবন, পারসা ইভানা, লামিয়া। আকবর হায়দার মুন্নার প্রযোজনায় মোশন রকের ব্যানারে নাটকটি ক্লাব ইলিভেন ইউটিউব চ্যানেলে প্রচার হবে।

‘গুড বাজ’ প্রসঙ্গে অমি বলেন, প্রতিটি দৃশ্য দেখে মানুষ উপভোগ করবে। একটু দেখলে মনে হবে পুরোটা দেখি। খুবই এনজয়েবল একটা নাটক। দর্শক বহু কনটেন্টে কক্সবাজারকে বহুভাবে দেখেছেন। এবার আমার কাজটার মাধ্যমে অন্যরকম এক কক্সবাজার দেখতে পাবেন। যার মধ্যে সব বয়সীরা বন্ধুত্ব ও ভ্রমণ বিষয়গুলো অনুভব করবেন।

‘একটি সন্দেহের গল্প’ নাটকের এ পরিচালক বলেন, সংখ্যায় ১৪-১৫ কাজে আমি বিশ্বাসী নই। বেশি কাজ করলে হয়তো আর্থিকভাবে লাভবান হতাম কিন্তু তৃপ্তি আসবে না। দুই-তিনটা কাজ করলেও সেগুলো সর্বোচ্চভাবে ভালো করার চেষ্টা করি। এজন্য আমার শুটিংয়ে একটু সময় লাগে।

ঈদের জন্য ব্যাচেলর কোরবানি ও গুড বাজ এই দুটি কাজ করেছি। বৃষ্টির জটিলতা না থাকলে হয়তো আরেকটি কাজ করতে পারি।