চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ
Channeliadds-30.01.24Nagod

নরসিংদীতে বাস ও পিকআপের ত্রিমুখী সংঘর্ষে নিহত ৩

নরসিংদীর রায়পুরায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নীলকুঠি এলাকায় দুই যাত্রীবাহী বাস এবং পিকআপ ভ্যানের ত্রিমুখী সংঘর্ষে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এসময় আহত হয়েছে আরও ৫ জন।

মঙ্গলবার ভোরে দিকে উপজেলার নীলকুঠি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনায় নিহতরা হলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইল উপজেলার কালিকচ্ছ ধর্মতীর্থ দিঘীরপাড়া গ্রামের ধনঞ্জয় চন্দ্র দাসের ছেলে সানন্দ দাস (৫৫), একই উপজেলার চৌড়াগুদা গ্রামের ইসমাইল মিয়ার ছেলে রেনু মিয়া (৬৬) ও একই এলাকার কালাম মিয়ার ছেলে মো. কামাল মিয়া (৩৫)। তারা সকলেই মাছ ব্যবসায়ী ছিলেন। ওই পিকআপ ভ্যানটিতে করে মাছ নিয়ে শিবপুরের ইটাখোলার দিকে যাচ্ছিলেন তারা।

এই দুর্ঘটনায় আহত পাঁচজন হলেন- পিকআপ ভ্যানের চালক আবদুল জলিল (৫৫), চালকের সহকারী মো. মাহমুদ আলী (৩৩), ধর্মতীর্থ গ্রামের মাছ ব্যবসায়ী কেশব দাস (২৫), সুধাংশু দাস (৪৫) ও সবুজ মিয়া (৩৩)।

Reneta April 2023

ভৈরব হাইওয়ে পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, রায়পুরার নীলকুঠি এলাকায় ভোর পৌণে ৪টার দিকে লাকী এক্সপ্রেস পরিবহণের যাত্রীবাহী বাসটি বিআরটিসি বাসকে পাশ কাটিয়ে যাওয়ার সময় সামনে থেকে আসা পিকআপ ভ্যানটির সঙ্গে ত্রিমুখী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে পিকআপ ভ্যানটির সামনের অংশ দুমড়ে মুচড়ে গিয়ে ঘটনাস্থলেই সানন্দ দাস ও মো. রেনু মিয়া নামের দুজনের মৃত্যু হয়। পরবর্তীতে গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকায় নেওয়ার পথে মারা যান মো. কামাল মিয়া (৩৫)। এ সময় পিকআপ ভ্যানে থাকা মাছ ব্যবসায়ীসহ আরও অন্তত ৫ জন গুরুতর আহত হন।

খবর পেয়ে হাইওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে নিহত দুজনের লাশ উদ্ধার করে ভৈরব হাইওয়ে থানায় নেয় এবং আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে পাঠায়।

মো. কামাল মিয়ার মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করে কালিকচ্ছ ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য মো. সাইদুর রহমান জানান, গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা নেয়ার পথে নরসিংদী এলাকায় কামাল মিয়া মারা গেছেন। তার স্বজনরা লাশ নিয়ে বাড়ি ফিরছেন।

ভৈরব হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোজাম্মেল হক জানান, দুই বাস ও পিকআপ ভ্যানটি জব্দ করে ভৈরব হাইওয়ে থানায় আনা হয়েছে। ঘটনাস্থলে নিহত দুজনের স্বজনরা এরই মধ্যে থানায় এসেছেন। এই দুর্ঘটনায় তাদের কোন অভিযোগ নেই মর্মে বিনা ময়নাতদন্তে লাশ হস্তান্তরের আবেদন করেছেন। উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।