চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নির্ভুল তথ্য দিতে হবে

জনশুমারি ও গৃহগণনা-২০২২

আগামী বুধবার (১৫ জুন) থেকে সারাদেশে শুরু হচ্ছে ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা-২০২২’। এটা বাংলাদেশের ষষ্ঠ জনশুমারি বা আদমশুমারি। এক সপ্তাহ ধরে চলা এই মহাযজ্ঞ শেষ হবে ২১ জুন। এর মাধ্যমে মূলত দেশের মোট জনসংখ্যার পাশাপাশি জানা যাবে খানা, পরিবার, নারী-পুরুষ, শিশু, বিভিন্ন পেশা, শিক্ষা, আয়-সহ গুরুত্বপূর্ণ আরও অনেক তথ্য। স্বাভাবিকভাবেই এই কাজের দায়িত্বে রয়েছে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস)।

নানা কারণে এবারের জনশুমারি ‘বিশেষ’ হয়ে উঠেছে। এই প্রথম বাংলাদেশে ডিজিটাল পদ্ধতিতে জনশুমারি হচ্ছে। ১০ বছরের ব্যবধানে করা আগের পাঁচটি আদমশুমারির সময় তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ হয়েছিল খাতা-কলমে। আরেকটা বিশেষ বিষয় হলো; এবারই প্রথম বাংলাদেশে অবস্থান করা বিদেশিদেরকেও এই জনশুমারির আওতায় আনা হবে। শুধু তাই নয়, এর পাশাপাশি বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশের নাগরিকদের তথ্যও সংগ্রহ করবে পরিসংখ্যান ব্যুরো।

Reneta June

এরই মধ্যে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, জনশুমারি শুরুর আগে মঙ্গলবার (১৪ জুন) দিবাগত রাত ১২টাকে শুমারির রেফারেন্স পয়েন্ট বা সময় হিসেবে ধরা হবে। আর তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রমে বা শুমারিকর্মী হিসেবে সারাদেশে চার লাখেরও বেশি মানুষ যুক্ত থাকবেন। যাদের উপরই মূলত নির্ভুল তথ্য সংগ্রহের মতো বিশাল দায়িত্ব পড়েছে। যাতে কোনোভাবেই ‘সামান্যতম ভুল’ করা যাবে না।

বিজ্ঞাপন

হ্যাঁ, ‘নির্ভুল তথ্য’। যার উপর নির্ভর করছে দেশ ও দেশের মানুষের উন্নয়ন-অগ্রগতি। অর্থনীতির দৃষ্টিতে প্রতিটি নাগরিককে উন্নয়নজালে না আনতে পারলে একটি দেশের ‘সার্বিক উন্নয়ন’ সম্ভব নয়। তাই জনশুমারি থেকে কোনোভাবেই যেন কেউ বাদ না পড়ে, সেজন্যও প্রচার-প্রচারণা চলছে। উদ্বুদ্ধকরণ বিষয়ক গান, নাটিকা, ডকুড্রামা, মাইকিং ইত্যাদির মাধ্যমে চলছে সেই আয়োজন।

আমরা জানি, সঠিক পরিসংখ্যান না থাকার কারণে উন্নয়নধারায় কখনো কখনো কোনো কোনো জনগোষ্ঠী, অঞ্চল, পেশাজীবী, নৃ-গোষ্ঠী বাদ পড়তে পারে। তার অনেক উদাহরণও আছে। তাই উন্নয়ন পরিকল্পনায় সঠিক তথ্য-উপাত্ত পাওয়াটা জরুরি। এই কাজের দায়িত্বে যারা আছেন, তাদেরকে আমরা সবাই সঠিক তথ্য দিয়ে সহায়তা করবো। এমনকি কোনো কারণে তথ্য সংগ্রহের দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিও যদি ভুল করেন, তাহলে তাকে মনে করিয়ে দিতে হবে নিজ উদ্যোগে। যদিও যারা একবার বাদ পড়বেন, পুনরায় তাদের তথ্য সংগ্রহের ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে।

আমরা মনে করি, সবাইকে জনশুমারিতে নির্ভুল তথ্য দিতে হবে। প্রয়োজনে নিজের উদ্যোগেই তা করতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই। কেননা এ জনশুমারিতেই ফুটে উঠবে বাংলাদেশের সার্বিক চিত্র।