চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ
Partex Cable

আর্থিক সংকটের কথা বলতে গিয়ে কাঁদলেন আমির

Nagod
Bkash July

বলিউডের প্রয়াত প্রযোজক তাহির হুসেন  ও তার স্ত্রী জিনাত হুসেনের ছেলে বলিউডের মিস্টার পারফেকশনিস্ট খ্যাত তারকা আমির খান। চার ভাইবোন ফয়সাল, ফারহাত আর নিখাতের মধ্যে তিনিই বড়। যদিও বর্তমান এই সুপারস্টারের জন্ম এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে, তবে জীবনের চলার পথটা সব সময় মসৃণ ছিল না তার জন্য।

Reneta June

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন, স্কুলে থাকার সময় তার ও তার ভাইবোনদের বেতন দিতে দেরি হতো। আর এ নিয়ে কতটা ভয়ে ভয়ে থাকতেন তিনি।

সাক্ষাৎকারে আমির বলেছেন সেই ৮টা বছরের কথা। যখন তাদের পরিবার খুব আর্থিক সংকটে পড়েছিল। সেই সময় স্কুলের বেতন দিতেও দেরি হয়ে যেতো। আমির জানান, তাদের স্কুলের ফি ছিল কিছুটা এরকম-ক্লাস সিক্সে ৬ টাকা, সেভেনে ৭ টাকা, ক্লাস এইটে ৮ টাকা। তা সত্ত্বেও আমির ও তার ভাইবোনরা ‘যথা সময়ে বেতন দিতে পারতেন না’।

এক-দুবার সাবধান করে দেওয়ার পর, প্রিন্সিপাল তাদের নাম ঘোষণা করে দিতো অ্যাসেম্বলিতে, গোটা স্কুলের সামনে। এই কথা বলতে গিয়ে সেই সাক্ষাৎকারে কেঁদেও ফেলেন আমির।

১৯৭৩ সালে ‘ইয়াদো কা বারাত’ ছবি দিয়ে আমিরের ক্যারিয়ার শুরু হয়। এরপর বড় হয়ে ১৯৮৮ সালে ‘কেয়ামত সে কেয়ামত তাক’-এ কাজ করেন জুহি চাওলার বিপরীতে। তাহির হুসেন আমির খানের একটি ছবিই প্রযোজনা করেছিলেন, আর তা হল ১৯৯০ সালে ‘তুম মেরে হো’।

বলিউডে দীর্ঘ ক্যারিয়ারে যেমন একাধিক অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন, তেমন হিট ছবির লিস্টও লম্বা আমিরের। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য-‘দিল’, ‘রাজা হিন্দুস্তানি’, ‘সরফরোশ’, ‘রং দে বাসন্তি’, ‘লাগান’, ‘তারে জমিন পার’, ‘গজনি’, ‘থ্রি ইডিয়টস’, ‘ধুম ৩’, ‘পিকে’, ‘দঙ্গল’ প্রভৃতি। –কইমই ডটকম

BSH
Bellow Post-Green View