চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

৪০ বছর পর সরকারি জায়গা দখলমুক্ত করলো প্রশাসন

গোপালগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও ছাত্রলীগ নেতা রাকিব হোসেন খাঁন তুষার হত্যা মামলার প্রধান আসামী সেই এমএইচ খাঁন মঞ্জু ও সরকার দলীয় ৩ নেতাসহ ৪/৫ জনের দখলে থাকা সরকারি জায়গা দখলমুক্ত করেছেন প্রশাসন।

গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানার নির্দেশে গোপালগঞ্জের এসি ল্যান্ড মো. মনোয়ার হোসেন সোমবার এ জায়গাটি দখলমুক্ত করেন। গোপালগঞ্জ জেলা শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কের পাশে প্রায় ২ কোটি টাকা মূল্যের এই ৭ শতাংশ জায়গাটি ৪০ বছর পর দখলমুক্ত করলো সরকার।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার সকালে এ তথ্য নিশ্চিত করে গোপালগঞ্জ পৌর ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মো, মোসারফ হোসেন জানিয়েছেন, সরকার দলীয় প্রবীন একজন রাজনীতিবিদ, গোপালগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি এমএইচ খাঁন মঞ্জু, গোপালগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. মুশফিকুর রহমান লিটন, মোহামেডানের সাবেক অধিনায়ক ফুটবল খেলোয়াড় মো. ইলিয়াস হোসেন এবং তার বিএনপি সমর্থিত ভাই পিল্টন শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে অবস্থিত ১নং খাস খতিয়ানের ৮৯ নং ঘোষেরচর মৌজার ৪৮৪৯ নং দাগের ৭ শতাংশ সরকারি জায়গা দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে ভোগ করে আসছিলো।

বিজ্ঞাপন

গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা গত এক বছর আগে গোপালগঞ্জে যোগদানের পর জেলার বিভিন্ন জায়গায় ক্ষমতাশালীদের দখলে থাকা সরকারি জায়গা দখলমুক্ত করার কাজ শুরু করেন। তারই ধারাবাহিকতায় গত ৬ জুলাই সোমবার জেলা প্রশাসকের নির্দেশে গোপালগঞ্জ জেলা শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে অবস্থিত ১নং খাস খতিয়ানের ৮৯ নং ঘোষেরচর মৌজার ৪৮৪৯ নং দাগের ৭ শতাংশ জায়গা দখলমুক্ত করেন এসি ল্যান্ড মো. মনোয়ার হোসেন ।

এ সময় বুলডোজার দিয়ে ভেঙ্গে ফেলা হয় বিএনপি নেতা এমএইচ খাঁন মঞ্জুর বিলাসবহুল দোতলা বাড়িসহ অন্যান্য স্থাপনা। প্রায় ২ কোটি টাকা মূল্যের এই ৭ শতাংশের মধ্যে অধিকাংশ জায়গা দখল করে রেখেছিলেন এম.এইচ খান মঞ্জু। এই বাড়িতে বসেই নারী- মাদক- অস্ত্র ও মানুষ হত্যাসহ নানান ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের দিক নির্দেশনা দিতেন এম.এইচ খান মঞ্জু।

প্রায় একযুগ আগে এই বাড়িতে বসেই জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি রাকিব হোসেন খাঁ তুষারকে গুলি করে হত্যার নির্দেশ দিয়েছেন মঞ্জু খান। কিন্ত দুঃখজনক হলেও সত্য যে, সরকার দলীয় এইসব নেতারা ছাত্রলীগ নেতা তুষার হত্যা মামলার প্রধান আসামী ও বিএনপি নেতা এমএইচ খাঁন মঞ্জুর সঙ্গেঁ দল বেধে ৪০ বছর ধরে সরকারের ২ কোটি টাকা মূল্যের এই জায়গাটি জোরপূর্বক দখল করে অবৈধভাবে বসতবাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন তা কেউই জানত না।

আসাদুজ্জামান বাবুল