চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

হোয়াটমোরের সেরা টেস্ট একাদশে সাকিব

বাংলাদেশের ক্রিকেটকে যারা তাদের জাদুকরী স্পর্শে বদলে দিয়েছিলেন তাদের তালিকায় শীর্ষেই থাকবে ডেভ হোয়াটমোরের নাম। মাত্র চার বছর ছিলেন, কিন্তু এই সময়েই ক্রিকেটবিশ্বে বাংলাদেশকে সমীহ জাগানো এক দলে পরিণত করেছিলেন অস্ট্রেলিয়ান এই কোচ। মুশফিকুর রহিম, তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসানদের আন্তর্জাতিক পথচলার দিক নির্দেশক ছিলেন তিনি।

তরুণ ক্রিকেটার বাছাইয়ে হোয়াটমোর যে পাকা জহুরি ছিলেন তার প্রমাণ সাকিব-তামিমরা নিজেই। বিশ্ব ক্রিকেটে সাকিবের চাহিদা এখন ‘হটকেকের’মতো। তিন ফরম্যাটের ক্রিকেটে টাইগারদের সেরা ভরসা এখন বাঁহাতি অলরাউন্ডার।

বিজ্ঞাপন

সাকিব নিজেকে যে অন্য এক উচ্চতায় নিয়ে যাবেন তা ২০০৬ সালেই অনুভব করতে পেরেছিলেন কোচ হোয়াটমোর। তার চোখে অভিষেকের পর থেকে নিজেকে ত্রিমাত্রিক একজন ক্রিকেটারে পরিণত করেছেন সাকিব। ব্যাটিং-ঘূর্ণি স্পিন সঙ্গে ফিল্ডিং, তিন ফরম্যাটের ক্রিকেটে বিশ্বসেরাদের একজন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

বিজ্ঞাপন

কোচিং ক্যারিয়ারে বাংলাদেশ ছাড়াও বড় সব দলের কোচ ছিলেন হোয়াটমোর, শ্রীলঙ্কা তো বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছে তার হাত ধরেই। সমৃদ্ধ কোচিং ক্যারিয়ারে দেখা অজস্র ক্রিকেটারদের মধ্য থেকে বেঁছে সেরা টেস্ট একাদশ গড়েছেন হোয়াটমোর। ক্রিকইনফোর ক্রিকেট মান্থলিতে তার গড়া সেরা টেস্ট একাদশে কিংবদন্তিদের সঙ্গে যোগ হয়েছে সাকিব আল হাসানের নামও।

সাকিবকে নিয়ে বলতে গিয়ে হোয়াটমোর লিখেছেন, ‘তার ক্রিকেটে প্রবেশ দেখেই আমি জানতাম সে দীর্ঘদিন বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবে। ওয়ানডেতে ও ছিল ভীষণ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ। ব্যাটিং-বোলিংয়ে দক্ষতা আছে, সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সে স্পিনার-ব্যাটসম্যান হিসেবে শীর্ষ অলরাউন্ডারও হয়েছে। আরও বেশি আত্মবিশ্বাসী হয়েছে। সে ত্রিমাত্রিক খেলোয়াড় এবং বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার।’

হোয়াটমোরের সেরা টেস্ট একাদশ :
সনাৎ জয়সুরিয়া, আজহার আলী, কুমার সাঙ্গাকারা, অরবিন্দ ডি সিলভা, মাহেলা জয়াবর্ধনে, অ্যালান বোর্ডার (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান, চামিন্দা ভাস, রডনি হগ, মুত্তিয়া মুরালিধরন, উমর গুল।