চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সড়কে মৃত্যুর মিছিল থামছেই না

ফরিদপুর জেলায় আজ শনিবার একইদিনে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ১০ জনের। পৃথক দুটি ঘটনায় এতোগুলো প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। প্রতিদিন এধরণের ঘটনা আমাদের থমকে দেয়।

একইদিনে সড়ক দুর্ঘটনা বিষয়ে আরো কিছু তথ্য আমাদের ভাবাচ্ছে। সারাদেশে ঈদুল আজহার ছুটিতে ১০ আগস্ট থেকে ১৮ আগস্ট মাত্র ৯ দিনে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ১৮৫ জন এবং আহত হয়েছেন ৩৫৫ জন। রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে ওইসময়ে ১৩৫টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে। শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব জানিয়েছে ‘নিরাপদ সড়ক চাই’।

বিজ্ঞাপন

বিভিন্ন মাপকাঠিতে দেশ যে এগিয়ে যাচ্ছে, তাতে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু দেশের সড়ক-মহাসড়কে এইযে এতো এতো ঘটনা আর প্রাণহানি, এমনটি পৃথিবীর আর কোনো দেশে ঘটে কিনা তা গবেষণার দাবি রাখে। উন্নত দেশগুলোর সড়কসহ বিভিন্ন যোগাযোগ ব্যবস্থায় কী ধরণের ব্যবস্থাপনায় দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে আছে, তা আমাদের অনুসরণ করে আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া এখন সময়ের দাবি।

বিজ্ঞাপন

গত বছরের ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বাসের চাপায় দুই কলেজশিক্ষার্থী নিহত হবার পরে নিরাপদ সড়কের দাবিতে সারাদেশে রাস্তায় নেমে আসে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা। ওই আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে গত বছরের ১৯ সেপ্টেম্বর পাস করা হয় সড়ক পরিবহন আইন। আইনের প্রয়োগ নিশ্চিতে সরকারের বিভিন্ন কর্তৃপক্ষকে আন্তরিক মনে হয়েছে। কিন্তু আইন পাসের পরপরই ওই আইনের বেশ কয়েকটি ধারা সংশোধনের দাবিতে আন্দোলনে নামেন পরিবহন মালিক-শ্রমিকেরা। এতে আইনটি কার্যকরের বিষয়টি চাপা পড়ে যায়। এধরণের ঘটনা উদ্বেগের।

আরেকটি বিষয় লক্ষ্যনীয়, তা হচ্ছে অযোগ্যদের ড্রাইভিং লাইসেন্সপ্রাপ্তি। বিশেষ করে গণপরিবহনের চালকদের। নতুন আইনের আওতায় এক্ষেত্রে কিছু পরিবর্তন এসেছে, যা দ্রুত কার্যকর হওয়া জরুরি বলে আমরা মনে করি।

সড়ক-মহাসড়কে প্রাণহানির ঘটনা হয়তো রাতারাতি বন্ধ হবে না, কিন্তু আমরা চাই এগুলো কিছু কার্যকর পদ্ধতি-পদক্ষেপের মাধ্যমে ধীরে ধীরে কমে আসুক।

Bellow Post-Green View