চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সুশান্তের জন্ম শহরে নিষিদ্ধ সালমান!

অবসাদগ্রস্ত হয়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন সুশান্ত সিং রাজপুত। আর এই অভিনেতা অবসাদগ্রস্ত হয়েছেন বলিউডের স্বজনপ্রাীতির কারণে। এমন ভাবনা থেকেই এবার সুশান্ত সিংয়ের জন্ম শহরে বলিউডের স্বজনপোষণকারী হিসেবে স্বীকৃতি করণ যোহর, সালমান খানকে ‘বয়কট’ এর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেখানকার জনগণ।

বিহারের রাজধানী পাটনার জনগণ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিহার ও পাটনায় সালমান খান, করণ যোহর ও আলিয়া ভাটকে বয়কট করার।

বিজ্ঞাপন

সুশান্তের মৃত্যুর পর থেকেই তার ভক্ত, অনুসারীদের একাংশ একজোট হতে শুরু করেছেন, তারা চেষ্টা করছেন পাটনার মানুষ যেন করণ জোহরের ধর্ম প্রোডাকশন, যশরাজ ফিল্মস এবং সালমান খান এবং তাঁর প্রযোজনা সংস্থা এসকেএফ-এর সিনেমা না দেখেন।

বিজ্ঞাপন

শুধু তাই নয় বিক্ষোভকারীদের মধ্যে সুশীল মিশ্র নামক একজন জানান, আমরা বিহারে সালমান খানের কোন কার্যক্রমই হতে দেব না। সালমানের ‘বিয়িং হিউম্যান’ নামক পোশাকের দোকানেও কোন বেচা বিক্রি হবে না। একই সাথে সালমান খান অভিনীত কোন ছবিও বিহারে মুক্তি পাবে না।

এর আগেও সুশান্তের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে পাটনায় সালমান খানের ‘বিয়িং হিউম্যান’ স্টোরে ভাংচুর করা হয়েছিল। শুধু তাই নয়, মুম্বাইয়ে সালমানের বান্দ্রার বাড়ির সামনেও বিক্ষোভ করেন জনগণ। সেখানে ‘সালমান খান মুর্দাবাদ’ স্লোগানও দিয়েছেন তারা। একই সাথে সালমান খান ও করণ যোহরের কুশপুত্তলিকা দাহ করে সুশান্তের বিক্ষুদ্ধ ভক্তরা।

তবে সালমানের বিরুদ্ধে পাটনা জনগণের এই বিমাতাসূলভ আচরণকে কেন্দ্র করে পাটনা ভিত্তিক টেলিভিশন সাংবাদিক মনীষ ঝা একটি সংবেদনশীল প্রতিক্রিয়া হিসাবে জানিয়েছেন, বিহারের মানুষ সালমান খানকে ভালোবাসেন। ‘টাইগার জিন্দা হ্যায়’র মতো চলচ্চিত্রে তিনি যে বিনোদন সরবরাহ করেছিলেন সেটি অন্য কোন তারকার দ্বারা সম্ভব ছিল না। এছাড়াও তিনি মানবিক কারণে প্রচুর দাতব্য দানের কাজ করে এসেছেন। যেখানে বিহারবাসীকেও তিনি অনেক সহায়তা করেছেন। সুতরাং, আশা করা যায় বিহারবাসী খুব বেশি দিন সালমানের বিরুদ্ধে কাজ করবে না।