চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সিটি ব্যাংক আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার পাচ্ছেন ১২ লেখক

সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় মোট ১২জন লেখক পাচ্ছেন সিটি আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার…

প্রতিবছরের মতো এবারও একুশে বইমেলায় প্রকাশিত বইগুলো থেকে ‘সিটি ব্যাংক আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার ২০১৯’-এর মনোনীত লেখকদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। কারা এবার পুরস্কার পাচ্ছেন, মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) সেটা জানিয়েছে আয়োজকরা।

আনন্দ আলোর সম্পাদক রেজানুর রহমান চ্যানেল আই অনলাইনকে জানান, ‘সিটি ব্যাংক আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার’ ঘোষণা করা হলো। এবার সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় মোট ১২জন লেখক পাচ্ছেন ‘সিটি ব্যাংক আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার’। খুব শিগগির চ্যানেল আইয়ে জমকালো অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে মনোনীত লেখকদের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

সিটি ব্যাংক আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার প্রদান কমিটির এক সভায় মঙ্গলবার এ সিদ্ধান্ত হয় বলে জানান রেজানুর রহমান।

পুরস্কারপ্রাপ্ত লেখকেরা হলেন: কথা সাহিত্যে যৌথভাবে সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম ও শাহাদুজ্জামান। মনজুরুল ইসলামের বইয়ের নাম ‘কয়লা তলা ও অন্যান্য গল্প’। বইটির প্রকাশক অন্য প্রকাশ। প্রথমা থেকে প্রকাশিত শাহাদুজ্জামানের বইয়ের নাম ‘মামলার সাক্ষী ময়না পাখি’।

কবিতায় যৌথভাবে মারুফুল ইসলাম ও আফজাল হোসেন। অন্য প্রকাশের ‘পানতুম’ বইয়ের জন্য মারুফুল ইসলাম এবং অনন্যা প্রকাশনী থেকে ‘উনিশ নম্বর কবিতা মোকাম’-এর জন্য আফজাল হোসেন। প্রবন্ধ ও মুক্তিযুদ্ধে যৌথভাবে সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী ও মেজর জেনারেল মো. সরোয়ার হোসেন। কথা প্রকাশ থেকে ‘সময় বহিয়া যায়’-এর জন্য সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী এবং প্রিয়মুখ প্রকাশনা থেকে ‘১৯৭১: প্রতিরোধ সংগ্রাম বিজয়’ বইটির জন্য মেজর জেনারেল মো. সরোয়ার হোসেন।

ভ্রমণ ও আত্মজীবনীতে ফারুক মঈনউদদীন সুদূরে অদূর দুয়ার -সময় প্রকাশনী। শিশুসাহিত্যে যৌথভাবে নাম আছে মুস্তাফিজ শফি ও মোকারম হোসেনের। কথা প্রকাশ থেকে শফির বিইটির নাম ‘ভূত কল্যাণ সমিতি’ এবং শিশু প্রকাশ থেকে মোকাররমের বইটির নাম ‘রঙের গাছ’।

এছাড়াও প্রথম বই শাখায় আছে জার্নিম্যান থেকে প্রকাশিত ‘ঘটনা কিংবা দুর্ঘটনার গল্প’র জন্য মাজহারুল ইসলাম, অন্য প্রকাশ থেকে ‘নিঃসঙ্গতার পাখিরা’র জন্য হক ফারুক আহমেদ এবং জার্নিম্যান থেকে ‘অন ডে’জ লাইক দিস’-এর জন্য শায়রা আফরিদা ঐশী।