চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সংসদ সদস্যদের শপথ বাতিল চেয়ে লিগ্যাল নোটিস

দশম জাতীয় সংসদের ‘মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই’ একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের নেওয়া শপথ বাতিল করে নতুন গেজেট প্রকাশের দাবি জানিয়ে একটি লিগ্যাল নোটিস পাঠানো হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী তাহেরুল ইসলাম তৌহিদ মঙ্গলবার দুপুরে স্পিকার, প্রধান নির্বাচন কমিশনার, মন্ত্রিপরিষদ সচিব বরাবর এই নোটিস পাঠান।

আগামী ১৩ জানুয়ারির মধ্যে সংশ্লিষ্টদের কাছে এ নোটিসের জবাব চাওয়া হয়েছে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন নোটিসদাতার পক্ষের আইনজীবী ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহাবুব উদ্দিন খোকন।

মঙ্গলবার রেজিস্ট্রি ডাকযোগে নোটিস পাঠিয়ে মাহবুব উদ্দিন খোকন সাংবাদিকদের বলেন: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের গত ৩ জানুয়ারি নেওয়া শপথ বাতিল বা প্রত্যাহার করতে স্পিকার, প্রধান নির্বাচন কমিশনার, মন্ত্রিপরিষদ সচিব বরাবর নোটিস দেওয়া হয়েছে।

দশম জাতীয় সংসদের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে একাদশ সংসদের নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যরা শপথ নিয়ে সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন দাবি করে খোকন বলেন, সংবিধানের ১২৩(৩) অনুচ্ছেদে বলা আছে, প্রতি সংসদের মেয়াদোত্তীর্ণ হলে পূর্বের সংসদ সমাপ্তি না হওয়া পর্যন্ত এরা দায়িত্ব পালন করবেন। সে অনুযায়ী নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যদের ৩ জানুয়ারি নেওয়া শপথে সংবিধান লঙ্ঘন করা হয়েছে।

Advertisement

তিনি বলেন, ১৪৮(৩) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী শপথের জন্য নির্বাচিতদের উচিৎ ছিল ১২৩(৩) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ২৮ জানুয়ারি পর্যন্ত অপেক্ষা করা। ফলে এই শপথ বাতিল করার জন্য আমরা বলেছি। শপথ বাতিল পাশাপাশি নতুন করে গেজেট করতে ১৩ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ৯ টার মধ্যে আমাদের জানানোর জন্য। অন্যথায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আর অনুচ্ছেদ ১৪৮(৩) এ বলা হয়েছে, ‘এই সংবিধানের অধীন যে ক্ষেত্রে কোন ব্যক্তির পক্ষে কার্যভার গ্রহণের পূর্বে শপথ গ্রহণ আবশ্যক, সেই ক্ষেত্রে শপথ গ্রহণের অব্যবহিত পর তিনি কার্যভার গ্রহণ করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে।’

অনুচ্ছেদ ১২৩(৩) এ বলা হয়েছে, ‘তবে শর্ত থাকে যে, এই দফার (ক) উপ-দফা অনুযায়ী অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে নির্বাচিত ব্যক্তিগণ, উক্ত উপ-দফায় উল্লিখিত মেয়াদ সমাপ্ত না হওয়া পর্যন্ত, সংসদ সদস্যরুপে কার্যভার গ্রহণ করিবেন না।

লিগ্যাল নোটিসে বলা হয়েছে, একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের শপথ নেওয়া কেবল বেআইনিই হয়নি, বেআইনভাবে তারা তাদের পদের মেয়াদও বাড়িয়ে নিয়েছেন।

সংবিধানের ৭২(৩) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী বর্তমান সংসদের মেয়াদ শেষ হবে ২৯ জানুয়ারি। তাই শপথ নেওয়া নির্বাচিতরা শুধুমাত্র আইনকেই বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখাননি, তারা তাদের সংসদ সদস্য পদটিকেও অকার্যকর করে ফেলেছেন।