চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

শীতের বাজারে উত্তাপ ছড়াবে মেসি-ম্যানসিটি দলবদল

বিশেষজ্ঞরা বলেন প্রথম ধাক্কার চেয়ে দ্বিতীয় ধাক্কার জোরটা নাকি একটু বেশিই হয়! কথাটা সত্যি হলে, আগামী শীতকালীন দলবদলে বড় রকমের ধাক্কার প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে পারে বার্সেলোনা। ব্রিটিশ গণমাধ্যমে খবর, লিওনেল মেসিকে দলে পেতে বেশ জোরেশোরে মাঠে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছে ইংলিশ ক্লাব ম্যানচেস্টার সিটি।

গত গ্রীষ্মের দলবদলে মেসিকে পাওয়ার জন্য বেশ তোড়জোড় করতে দেখা গেছে পেপ গার্দিওলার ম্যানসিটিকে। বায়ার্নের কাছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বার্সার ৮-২ গোলে বিধ্বস্ত হওয়ার পর ন্যু ক্যাম্প ছাড়ার ইচ্ছার কথা জানিয়েছিলেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। সুযোগটা কাজে লাগাতে চেয়েছিল কাতারি মালিকানাধীন সিটি। মেসি বিনা ট্রান্সফার ফিতে ইতিহাদ স্টেডিয়ামে আসবেন, এমন আশায় বুক বেঁধে ছিলেন সিটি সমর্থকরা।

বিজ্ঞাপন

মামলার হুমকি দিয়ে তখন মেসিকে আটকে রাখতে পেরেছেন পদত্যাগ করা বার্সা সভাপতি জোসেপ মারিয়া বার্তেমেউ। প্রিয় ক্লাবকে কাঠগড়ায় নিতে চান না বলে অনিচ্ছা সত্ত্বেও আরেকটা মৌসুম ন্যু ক্যাম্পে থাকতে রাজি হয়ে যান মেসিও।

এখন পর্যন্ত মেসি থাকলেও বিষয়টা মাথাব্যথার কারণ হয়ে উঠেছে বার্সার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কার্লেস টেসকুয়েটসের জন্য। ব্যাপারটা এমন পর্যায়ে দাঁড়িয়েছে, ৩৩ বছর বয়সী তারকা ন্যু ক্যাম্প ছেড়ে গেলে বার্সার জন্য লাভ-ক্ষতির সমীকরণ সমানভাবে হেলে আছে তাদের দিকে।

বিষয়টা পরিষ্কার করা যাক। লা লিগার পক্ষ থেকে বার্সাকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলা হয়েছে আগামী মৌসুমের মধ্যে যেকরেই হোক খেলোয়াড়দের বেতন ৪৩ শতাংশ কমিয়ে আনতে হবে তাদের। সেটি নিয়ে খেলোয়াড়দের সঙ্গে আলাপ-বৈঠক করে কোনো মীমাংসায় আসতে পারেনি বার্সা।

এখন যদি মেসি ম্যানসিটিতে চলেই যান, তাহলে বেতনের বিষয়টি অনেকখানি নিশ্চিন্ত হতে পারবে বার্সা। কারণ বাৎসরিক বেতনের বেশ মোটা অংশ আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডের পেছনেই খরচ হয় তাদের। সপ্তাহে মেসিকে ১২ লাখ ইউরোর মতো বেতন দিতে হয়।

বিজ্ঞাপন

ক্ষতির দিকটা হচ্ছে, ক্লাবের সঙ্গে চলতি মৌসুম পর্যন্তই চুক্তি আছে মেসির। এরমধ্যে নতুন চুক্তি না হলে আগামী মৌসুমে ফ্রি এজেন্ট হয়ে যাবেন ছয়বারের ব্যালন ডি’অরজয়ী মহাতারকা। তখন ট্রান্সফার ফি ছাড়াই চলে যেতে পারবেন যেকোনো ক্লাবে। মেসি চলে গেলে ট্রান্সফার ফি থেকে বাড়তি অর্থ তো আসছেই না, উল্টো ৩৩ মিলিয়ন ইউরো বোনাস দিতে হবে তাকে। পাশাপাশি পৃষ্ঠপোষকদের কাছেও দর পড়ে যাবে বার্সার।

বার্সার লাভ-ক্ষতির দিকটা মাথায় রেখেই একটা ভালোমানের প্রস্তাব নিয়ে শীতকালীন দলবদলে মাঠে নামবে ম্যানসিটি। একাধিক ব্রিটিশ গণমাধ্যমে বলা হয়েছে, মেসির জন্য ৫০-৬০ মিলিয়ন ইউরোর প্রস্তাব দিতে পারে সিটিজেনরা, সঙ্গে দেয়া হবে ডিফেন্ডার এরিক গার্সিয়াকে। নিজেদের একাডেমি লা মাসিয়া থেকে উঠে আসা ১৯ বছর বয়সী ডিফেন্ডারকে মৌসুমের শুরুতে কিনতে চেয়েও অর্থাভাবে কেনা হয়নি বার্সার।

ম্যানসিটি তাদের প্রস্তাবনাকে এমনভাবে সাজিয়েছে, না বলার মতো সুযোগ খুব কমই থাকছে বার্সার জন্য। এই দলবদলে তিন রকমভাবে লাভবান হতে পারে তারা। প্রথমত, মেসির আকাশছোঁয়া পারিশ্রমিক নিয়ে আর ভাবতে হবে না। দ্বিতীয়ত, আর্থিক সংকটের মধ্যে ৫০-৬০ মিলিয়ন ইউরো বেশ ভালো পরিমাণের অর্থ। তৃতীয়ত, তরুণ এক ডিফেন্ডারকেও পাওয়া যাচ্ছে সঙ্গে। আর মেসি যদি নতুন চুক্তি না-ই করেন, তাহলে তো কোনভাবেই এসবদিক থেকে লাভবান হওয়ার সুযোগ থাকছে না তাদের সামনে।

মেসি আসতে পারেন, এই সম্ভাবনাকে সামনে রেখে তার সাবেক গুরু পেপ গার্দিওলার সঙ্গে নতুন চুক্তির ঘোষণা দিয়ে রেখেছে ম্যানসিটি। এরআগে শোনা গিয়েছিল, কাতালান কোচের ব্যাপারে আর আগ্রহী নয় ক্লাবটি। গুজব উড়িয়ে গার্দিওলার সঙ্গে ২০২৩ সাল পর্যন্ত মেয়াদ বাড়িয়ে রেখেছে সিটিজেনরা। চাইলে মেয়াদ বাড়ানো যাবে আরও একবছর। এসবই ইঙ্গিত দেয় যে, মেসিকে ইতিহাদে আনতে বেশ মরিয়া ক্লাবটি।

ম্যানসিটির সম্ভাবনার পালে হাওয়া দিয়েছে গত বৃহস্পতিবার বিমানবন্দরে মেসির এক মন্তব্য। সতীর্থ অ্যান্টনিও গ্রিজম্যানকে নিয়ে কথা বলতে গিয়ে আর্জেন্টাইন তারকা বিরক্ত হয়ে বলেছেন, ক্লাবে অন্যের দোষ নিজের ঘাড়ে নিতে নিতে ক্লান্ত তিনি। তার কথাতেই স্পষ্ট, বার্সাতে হাঁপিয়ে উঠেছেন মেসি।

মেসির নিকটতর কিছু সূত্র থেকে আবার জানা গেছে, ম্যানসিটির পক্ষ এখন পর্যন্ত কোনো প্রস্তাব পাননি আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। বার্সাও কোনো প্রস্তাব পায়নি। ব্রিটিশ গণমাধ্যমগুলো যেসব তথ্য দিয়ে রেখেছে, তাতে আবার বোঝাই যাচ্ছে এবারের শীতের বাজারকে গরম করে রাখতে আসছে মেসি-ম্যানসিটির দলবদল।