চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

রিয়ালকে মৌসুমের পঞ্চম হারের স্বাদ দিলো এইবার

শনিবার এইবারের মাঠ থেকে ৩-০ গোলের লজ্জার এক হার নিয়ে ফিরেছে রিয়াল। এই হারে আপাতত পয়েন্ট টেবিলের ছয়ে থাকলেও শঙ্কা আছে আট কিংবা নয়েও নেমে যাওয়ার! পয়েন্টে নিকটের প্রতিদ্বন্দ্বীরা যে রাতে মাঠে নামবে রিয়ালকে পেছনে ঠেলতে।

চলতি মৌসুমে অনেকদিন পর একসঙ্গে মাঠে নামলেন রিয়াল মাদ্রিদের চার রক্ষণ স্তম্ভ- সার্জিও রামোস, মার্সেলো, রাফায়েল ভারানে ও দানি কারভাহাল। প্রথম তিনজন ছিলেন শুরু থেকে। কারভাহাল নেমেছেন বদলি হিসেবে। কিন্তু মৌসুমের শুরু থেকেই লস ব্লাঙ্কোসদের যে বেহালদশা, সেটা বদলানো না এতটুকুও। হাঁসফাঁস করতে করতে এইবারের মাঠে চলতি লা লিগার পঞ্চম হার দেখেছে রেকর্ড ১৩বারের ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নরা।

গোলের ফলও বোঝাতে পারছে না বল পায়ে কতটা অসহায় ছিল রিয়াল! শুরুর কয়েক মিনিট ঝলক থাকলেও আস্তে আস্তে তা মিইয়ে গেছে তাদের ফরোয়ার্ডদের ব্যর্থতায়। সেই সুযোগে অতিথিদের কফিনে পেরেক ঠুকেছে এইবার।

বিজ্ঞাপন

নিজেদের মাঠে আতিথ্য দিয়ে ১৬ মিনিটের মাথায় রিয়ালকে গোলের জ্বালায় জ্বালিয়েছে এইবার। মাঝমাঠ থেকে বল পায়ে রিয়াল রক্ষণে ঢুকে কিকে গার্সিয়ার দিকে বল বাড়িয়ে দেন কুকেরেল্লা। কিকের নেয়া শট রিয়াল গোলরক্ষক থিবো কোর্ত্তোয়া ফিরিয়ে দিলেও শেষরক্ষা হয়নি। সুযোগ সন্ধানী গঞ্জালো এস্কেলান্তের খোঁচা ঠিকই জড়ায় জালে।

ম্যাচের ৫২ মিনিটে ডিফেন্ডার আদ্রিওজোলার মারাত্মক ভুলে দ্বিতীয়বার পিছিয়ে পড়ে রিয়াল। টনি ক্রুসের ক্রস আদ্রিওজোলার পা থেকে কেড়ে নেন কুকেরেল্লা। পরে তার দেয়া পাসে ডানবারের কোণা দিয়ে জোরাল শটে জালে জড়ান সার্জিও এনরিচ।

দ্বিতীয়গোলের ধাক্কা কাটতে না কাটতেই পাঁচ মিনিট পর তৃতীয় গোল হজম করে বসে লস ব্লাঙ্কোসরা। এবারও গোলের মূল যোগানদাতা কুকেরেল্লা। তার দেয়া ক্রসে এনরিচের পা হয়ে বল পান কিকে। স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড যখন গোলমুখে শট নিলেন, তখন অসহায় হয়ে দাঁড়িয়ে দেখা ছাড়া কিছুই করার ছিল না রিয়াল গোলরক্ষকের।

বিজ্ঞাপন