চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মঙ্গলগ্রহে মানুষ পাঠানোর অভিযানে অসহায় নাসা

মঙ্গলগ্রহে মানুষের কলোনী গড়ে বসবাসের হাকডাকের খবর প্রকাশিত হলেও লালগ্রহে মানুষ পাঠাতে পারছে না নাসা।

একটি ঘোষণায় মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা বলছে, এখন পর্যন্ত মানুষকে মঙ্গলে নামানোর মতো কোনো সক্ষমতা তাদের নেই। সংস্থাটি জানায় মহাকাশযানে মানুষকে লাল গ্রহে উড়িয়ে নেয়া গেলেও অবতরণ করাটা একেবারেই আলাদা ব্যাপার।

বিজ্ঞাপন

নাসার হিউম্যান স্পেসফ্লাইটের প্রধান উইলিয়াম গেরস্টেনমেয়ার বলেন,‘কবে মঙ্গলের মাটিতে পা মানুষ যাবে এর কোনো সঠিক তারিখ আমিও বলতে পারছি না। মঙ্গলে প্রবেশ, স্থির থেকে অবতরণ করাটা নাসার সামনে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।’

তিনি জানান, মঙ্গলে মহাকাশযানের উৎক্ষেপণ এবং অবতরণ করতে সক্ষম মহাকাশযান ওরিয়ন তৈরি করতে বিপুল খরচ হচ্ছে। এখন পর্যন্ত পরিকল্পনার চেয়ে দুইগুণ ব্যয় বেড়ে গেছে।

বিজ্ঞাপন

এমন বাস্তবতায় নাসা মঙ্গলে অবতরণ এবং ওই গ্রহ থেকে পৃথিবীতে ফিরে আসতে সক্ষম এমন কোনো মহাকাশযানের ডিজাইনেও হাত দিতে পারছে না।

টাকার অভাবে মঙ্গলে মানুষ পাঠানোর উচ্চাভিলাষী পরিকল্পনায় নাসা পিছিয়ে পড়লেও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্স, ব্লু অরিজিনের মতো প্রতিষ্ঠানগুলো পিছিয়ে নেই। ২০২৫ নাগাদ লালগ্রহে মানুষের কলোনী গড়ার মহাপরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে তারা।

মঙ্গলগ্রহে মানববসতি গড়তে মার্স ওয়ান কলোনী

মঙ্গল নিয়ে টানাটানিতে পিছিয়ে পড়া নাসা তাই এখন চাঁদের দিকে তাকিয়ে আছে। ভবিষ্যতে চন্দ্রাভিযানেই মনোযোগ দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

গেরস্টেনমেয়ার বলেন,‘যদি চাঁদে পানির দেখা পাই তাহলে চন্দ্রপৃষ্ঠে মানুষ অবতরণের জন্য প্রয়োজনীয় কাঠামো গড়তে আমরা বড় পরিসরে কাজ শুরু করবো। এজন্য মঙ্গলের দিকে বেশি মনোযোগ না দিয়ে আমরা চাঁদের দিকেই লক্ষ্যটা স্থিও রাখতে চাই।’