চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ভারতে কোভ্যাক্সিন ও কোভিশিল্ডের চূড়ান্ত অনুমোদন

ভারতে করোনাভাইরাসের দুটি ভ্যাকসিনকে জরুরি ব্যবহারের জন্য চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এখন দেশটিতে বিশ্বের সবচেয়ে বড় আকারে ভ্যাকসিন বিতরণ কর্মসূচি শুরু হবে। 

রোববার দেশটির ওষুধ নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির সাথে বানানো অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন এবং ভারত বায়োটেকের তৈরি ভ্যাকসিন কোভ্যাক্সিনের চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়।

দুই ভ্যাকসিনের অনুমোদনের পর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, ‘এটি একটি টার্নিং পয়েন্ট। সব ভারতীয় আজ গর্ববোধ করবে, যে দুটি ভ্যাকসিনই ভারতে তৈরি। তার মানে আমাদের আত্মনির্ভর ভারত তৈরির স্বপ্নপূরণে বিজ্ঞানীদের আগ্রহ কতটা তা বোঝা যাচ্ছে।’

এই বছরে ৩০ কোটি মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়ার পরিকল্পনা আছে ভারতের।

করোনাভাইরাসে বিশ্বে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আক্রান্ত শনাক্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা ভারতে। সেখানে এরই মধ্যে আক্রান্ত হয়েছে ১ কোটি ৩০ লাখের বেশি মানুষ আর প্রাণ হারিয়েছে দেড় লাখের বেশি।

ভ্যাকসিন কার্যক্রমকে সামনে রেখে শনিবার দেশব্যাপি ৯০ হাজার স্বাস্থ্যকর্মীকে অনুশীলন (ড্রাই রান) করানো হয়। ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউট অক্সফোর্ড/অ্যাস্ট্রাজেনেকার সঙ্গে একত্রে ভ্যাকসিন তৈরিতে কাজ করছে। তারা এক মাসে ৫ কোটি ডোজ তৈরি করছে বলেও জানিয়েছে।

দেশটির ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ড্রাগ কন্ট্রোল জেনারেল অব ইন্ডিয়া- ডিসিজিআই জানিয়েছে, দুটি প্রতিষ্ঠানই যেসব তথ্য দিয়েছে তাতে দেখা গেছে সেগুলোর ব্যবহার নিরাপদ।

ভারত বায়োটেকের কোভ্যাকসিন প্রথম থেকেই বেশ আশা জাগিয়েছিল দেশজুড়ে।  পরীক্ষামূলক প্রয়োগেও আশাজনক ফল দিয়েছিল।

ভারত বায়োটেকের আবেদন বিশ্লেষণ করার পর বিশেষজ্ঞ প্যানেল জানিয়েছে, ভারত বায়োটেকের ভ্যাকসিনটি ২৫ হাজার ৮০০ জনের উপর ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চালানোর পর সাফল্য মিলেছে। যার মধ্যে রয়েছেন কো-মর্বিডিটি যুক্ত মানুষেরাও। যাদের উপর প্রয়োগ করে বোঝা গিয়েছে, এটি নিরাপদ। কিন্তু কতটা কার্যকর, সেটা সম্পূর্ণ বুঝতে আরও কিছুটা সময় লাগবে।

শুক্রবার অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিশিল্ড-কে ছাড়পত্র দেয় বিশেষজ্ঞ কমিটি। ভারতে তা তৈরি করছে সেরাম ইনস্টিটিউট। এখনও ‍দুটি ভ্যাকসিন ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের তৈরি প্যানেলের অনুমতির অপেক্ষায় আছে। সেগুলো হলো ক্যাডিলার জাইকোভ-ডি এবং রাশিয়ার স্পুটনিক-ভি।

বিজ্ঞাপন