চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ব্রিটনির পাশে দাঁড়ালেন ম্যাডোনা

মার্কিন পপতারকা ব্রিটনি স্পিয়ার্স তার বাবার বিরুদ্ধে তাকে বন্দি করে রাখার অভিযোগ করেছেন আদালতে। গায়িকার সমর্থনে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন অনেক তারকাই। এবার সেই তালিকায় নাম যোগ হলো ম্যাডোনার।

ইনস্টাগ্রামে ম্যাডোনা লিখেছেন, ‘এই নারীর জীবন ফিরিয়ে দিন। দাস প্রথা অনেক আগেই বিলুপ্ত হয়ে গেছে! শত শত বছর ধরে পিতৃতান্ত্রিক লোভের বলি হয়ে আসছেন নারীরা। এটা মানবাধিকার লঙ্ঘন! ব্রিটনি, আপনাকে আমরা এই কারাগার থেকে বের করবোই!’

ব্রিটনির ও ম্যাডোনা ২০০৩ সালে ‘মি অ্যাগেইনস্ট দ্য মিউজিক’ তানে একসঙ্গে কাজ করেছেন।

বিজ্ঞাপন

ম্যাডোনা ছাড়াও জাস্টিন টিম্বারলেক, হ্যালসে, মারিয়া ক্যারে, মাইলি সাইরাস, প্যারিস হিলটন, কেটি পেরির মতো তারকা শিল্পীরা ব্রিটনির পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। সমর্থন দিয়েছেন এলন মাস্কও।

২০০৮ সালে বিষণ্ণতা ও অবসাদের কারণে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন ব্রিটনি। সেই সময় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কনজারভেটরশিপ আইনের অধীনে আদালতের আদেশে ব্রিটনির বাবা জিমিকে এই গায়িকার সব বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার দেওয়া হয়। গত ১৩ বছর ধরে ব্রিটনি স্পিয়ার্সের জীবনযাত্রা ও আর্থিক সমস্ত কিছু নিয়ন্ত্রণ করছেন তার বাবা।

২৩ জুন লসঅ্যাঞ্জেলেসের আদালতে আবেদন করেছেন ব্রিটনি। ব্রিটনি জানান, যত দ্রুত সম্ভব এই ‘বন্দিদশা’ থেকে মুক্তি চান তিনি। ৩৯ বছরের মার্কিন তারকা জানিয়েছেন তার ইচ্ছের বিরুদ্ধে তাকে জন্মনিয়ন্ত্রণে বাধ্য করা হচ্ছে। এমনকি প্রেমিকের সঙ্গে বিয়ে করতে ও সন্তান নিতে তাকে বাধা দেওয়া হচ্ছে। এসবের কারণে তিনি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন এবং দিনের পর দিন কেঁদেছেন। তার জীবনযাত্রায় ভয়ংকর প্রভাব পড়েছে বাবার কারণে।

বিজ্ঞাপন