চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ব্যাংকারদের যাতায়াতে পরিবহন নিশ্চিত করতে হবে

অন্যথায় দিতে হবে ভাড়া

করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে চলমান কঠোর বিধিনিষেধের সময় দায়িত্ব পালনকারী ব্যাংকারদের যাতায়াতের জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যাংককে যানবাহনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। যানবাহনের ব্যবস্থা করতে না পারলে তাদের যৌক্তিক গাড়ি ভাড়া দিতে হবে।

বৃহস্পতিবার এক প্রজ্ঞাপন জারি করে এই নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ রোধকল্পে সরকার আরোপিত বিধিনিষেধের মধ্যে বিশেষ প্রয়োজনে ব্যাংকিং কার্যক্রম চালু রাখার সময়সীমা প্রাথমিকভাবে ১৪ এপ্রিল থেকে ২১ এপ্রিল নির্ধারণ এবং পরে ২১ এপ্রিল থেকে ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়েছে। ১৩ এপ্রিল জারি করা প্রজ্ঞাপনে ব্যাংকের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নিজ নিজ অফিসে আনা-নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

তবে লক্ষ্য করা যাচ্ছে, সরকারঘোষিত বিধিনিষেধ চলাকালে ব্যাংক সব ক্ষেত্রে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য প্রয়োজনীয় যানবাহনের ব্যবস্থা করতে ব্যর্থ হওয়ায় এবং সীমিত আকারে ব্যাংকিং সেবা কার্যক্রম চালু রাখতে ব্যাংকে আসা-যাওয়ার জন্য গণপরিবহনের অপ্রতুলতার কারণে ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অধিক ব্যয় ও ভোগান্তির সম্মুখীন হচ্ছেন।

এই জন্য নির্দেশনা দেয়া যাচ্ছে যে, ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যাতায়াত সমস্যা নিরসনে ব্যাংক তার কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জন্য ব্যাংকের ব্যবস্থাপনায় নিজস্ব পরিবহন সুবিধা নিশ্চিত করবে।

কোনো কারণে যাতায়াত সুবিধা নিশ্চিত করতে অসমর্থ বা ব্যর্থ হলে ব্যাংকে আসা-যাওয়ার জন্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সরকারি বিধিনিষেধ চলাকালে যাতায়াত ভাড়ার প্রকৃত ব্যয় অধিক বিধায় বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে ব্যাংক ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ যৌক্তিক হারে যাতায়াত ভাতার ব্যবস্থা করবে। এ সংক্রান্ত ব্যয়ের বিষয়ে পরবর্তীসময়ে নিজ নিজ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের মাধ্যমে অনুমোদন নেবে।

এ নির্দেশনা ১৪ এপ্রিল থেকে সরকারঘোষিত বিধিনিষেধ চলাকালে প্রযোজ্য থাকবে।

বিজ্ঞাপন